CC News

সৈয়দপুর বিমানবন্দর রুপান্তরিত হচ্ছে আন্তর্জাতিকমানের (ভিডিও)

 
 

সিসি নিউজ, ১৪ মার্চ: আন্তর্জাতিক মানের বিমানবন্দরে রুপান্তরিত হচ্ছে সৈয়দপুর বিমানবন্দর। আর এ সম্ভাব্যতা যাচাইয়ে গত বছর সরকারের একটি উচ্চ পর্যায়ের দল বিমানবন্দর এলাকা পরিদর্শন করেছে। বিমানবন্দর সম্প্রসারনের খবরে কতিপয় অসাধু ব্যাক্তি অধিক ক্ষতিপূরন প্রাপ্তির লোভে বিমানবন্দর সংলগ্ন জমিগুলোতে রাতারাতি গড়ে তুলছে গাছের বাগান ও ঘর-বাড়ী।
উত্তরের ৮ জেলার সাথে আকাশপথে রাজধানীর যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম সৈয়দপুর বিমানবন্দর। এ বিমানবন্দরের মাধ্যমে ঢাকা থেকে মাত্র ৩ ঘন্টায় পৌছানো যায় উত্তরের সীমান্ত জেলা শহর পঞ্চগড়ে। চা-বাগান, উত্তরা ইপিজেড, বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি, মধ্যপাড়া পাথর খনিতে বিনিয়োগকারীরা সহজেই যাতায়াতের সুবিধা পাওয়ায় গুরুত্ব পেয়েছে বিমানবন্দরটি। যাত্রী সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় বাংলাদেশ বিমান সহ প্রতিদিন বিভিন্ন কোম্পানীর ৯টি উড়োজাহাজ এখন ঢাকা-সৈয়দপুর রুটে চলাচল করছে।
২০১৭ সালের জুনে বর্তমান সরকার সৈয়দপুর বিমানবন্দরকে আন্তর্জাতিক মানের বিমানবন্দরে রুপান্তর করার ঘোষনা দেন। সে লক্ষ্যে বে-সামরিক বিমান চলাচল মন্ত্রণালয় একজন যুগ্ম সচিবের নেতৃত্বে গঠিত বিমানবন্দর প্রকল্পটি যাচাইয়ে কমিটি গঠন করে। প্রকল্পটি বাস্তবায়নে জমি অধিগ্রহন এবং ওই জমিতে বর্তমান স্থাপনার জরিপ করতে কমিটি সম্প্রতি বিমানবন্দর এলাকা পরিদর্শন করে।
সরকারের ঘোষণা অনুযায়ী সৈয়দপুর বিমানবন্দরকে আন্তর্জাতিক মানের বিমানবন্দরে উন্নীত করণ কার্যক্রম শুরুর খবর ছড়িয়ে পড়লে বিমানবন্দরের দক্ষিণ অংশে রাতারাতি ঘরবাড়ী নির্মাণ ও গাছের বাগান তৈরি শুরু করেন জমির মালিক ও বর্গাচাষীরা।

এলাকাবাসী জানান, বিমানবন্দর আধুনিকায়ন হতে যাচ্ছে শুনে সুযোগ সন্ধানিরা ক্ষতিপুরণ বাবদ বেশি টাকার পাওয়ার লোভে এ কাজ করছে। ওই এলাকার কয়েকজন বর্গাচাষী জমির মালিকদের কাছ থেকে কয়েক বছরের চুক্তিতে জমি নিয়ে প্রায় ৫০ একর জমিতে ঘর-বাড়ী নির্মান এবং প্রায় ২০ একর জমিতে বিভিন্ন ফলজ-বনজ গাছের বাগান করছে।

বিমানবন্দর পরিদর্শনের সময় আশে পাশে ভিডিও দৃশ্য ধারণ করেছে সম্ভাব্যতা যাচাই কমিটি। জমি অধিগ্রহনের ক্ষেত্রে ওই ফুটেজ দেখে ক্ষতিপূরণ দেয়ার কথা জানালেন নীলফামারী জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ খালেদ রাহীম।

ভিডিও দেখতে ক্লিক করুন:

Print Friendly, PDF & Email