CC News

নীলফামারীতে যৌন হয়রানীর দায়ে প্রধান শিক্ষকের বদলি

 
 

বিশেষ প্রতিনিধি: নীলফামারীর কিশোরগঞ্জে সহকারী শিক্ষিকার সাথে যৌন হয়রানীর দায়ে কুটিপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে বদলি করা হলেও তিনি কর্মস্থলে যোগদান করেনি।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, কুটিপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা মোছা: তহমিনা বেগম অভিযোগ করেন তার বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবু তাহের মো: রেজাউল করিম অশোভনীয় আচরন, কুরুচি পূর্ণ কথাবার্তা এবং অফিস কক্ষে যৌন হয়রানীর চেষ্টা করেন। এনিয়ে তিনি প্রধান শিক্ষকে অনরোধ করেন যেন তার সাথে এমন আচরন করা না হয়। এতে প্রধান শিক্ষক আরো ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন। এবং শিক্ষিকার বিরুদ্ধে স্কুলে দেরীতে আসার জন্য অভিযোগ তোলেন।

সেখানে উল্লেখ করা হয়, ২০১৫ সালের ফেব্রুয়ারি, মার্চ, ২০১৬ সালের জুলাই এবং ২০১৭ সালের জুলাই, আগস্ট ও ডিসেম্বর মাসে সহকারী শিক্ষিকা তহমিনা বেগম দেরীতে স্কুলে আসেন। এছাড়াও ২৯.০৮.২০০৯ ইং থেকে ০২.০৯.২০০৯ পর্যন্ত ৫ দিন তিনি নৈমিত্যিক ছুটির আবেদন করলে তাকে ছুটি না দিয়ে অনুপস্থিত দেখানো হয়।

এনিয়ে সহকারী শিক্ষিকা মোছা: তহমিনা বেগম কিশোরগঞ্জ উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ করেন। তার অভিযোগের প্রেক্ষিতে উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো. মাসুদুল হাসান ৩ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেন। তদন্ত কমিটির সদস্যরা হলেন সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো. রফিকুল ইসলাম, আবু জাহের মো. সাইফুর রহমান ও মো. নুরুজ্জামান। তদন্ত কমিটি ৩ জানুয়ারী ২০১৮ ইং তারিখে তদন্তকার্য শেষ করেন।

তদন্ত কমিটির কাছে প্রধান শিক্ষকের প্রশাসনিক দূর্বলতা, সহকারী শিক্ষকদের প্রতি প্রধান শিক্ষকের পক্ষপাত ও বৈষম্যমূলক আচরণ, বিশেষ শিক্ষকের প্রতি বিশেষ দৃষ্টি এবং এখতিয়ার বর্হিভ’ত ভাবে শিক্ষকদের বিরুদ্ধে শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগের সত্যতা প্রমানিত হয়।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহনের সুপারিশ করেন। তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এর প্রেক্ষিতে বিভাগীয় উপ-পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) রংপুর মো: সিরাজুল ইসলাম গত ১১.০৩.১৮ তারিখে তাকে উত্তর বাহগিলী ডাঙ্গাপাড়া সপ্রাবিতে বদলির আদেশ জারি করেন এবং ১৩ মার্চের মধ্যে তাকে যোগদানের নির্দেশ দেন। কিন্তু ১৪ মার্চ পর্যন্ত তিনি উত্তর বাহগিলী ডাঙ্গাপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যোগদান করেনি। তিনি যোগদান না করায় স্কুল পরিচালনা ও পাঠদান ব্যাহত হচ্ছে মর্মে অভিযোগ পাওয়া গছে।

এ বিষয়ে প্রধান শিক্ষক আবু তাহের মো: রেজাউল করিম জানায়, আমি শারীরিক ভাবে অসুস্থ থাকায় নতুন কর্মস্থলে যোগদান করতে পারিনি।

Print Friendly, PDF & Email