CC News

বহুমুখি সমস্যার আবর্তে বন্দি উত্তরাঞ্চলের বনায়ন কেন্দ্র

 
 

।। এম আর মহসিন ॥ রংপুর বন বিভাগের আওতাধীন উত্তরাঞ্চলের পাঁচটি জেলার অর্ধশতাধিক চারা উৎপাদন, প্রশিক্ষণ ও সামাজিক বনায়ন কেন্দ্রগুলি নানাবিধ সমস্যায় জর্জরিত হয়ে বনাঞ্চল বৃদ্ধি ও রক্ষা কার্যক্রমে স্থবিরতা নেমে এসেছে। দিনে দিনে বৃক্ষ উজার ও পরিবর্তে রোপিত না হওয়ায় হুমকিতে পড়েছে এ অঞ্চলের অস্তিত্ব ও জীব বৈচিত্র্য। সমাধানে এক দশক আগে উর্ধ্বতনদের জানালেও কোন সুরাহা মেলেনি বলে জানান সংশ্লিষ্টরা। ফলে সমস্যা নিয়েই চলছে এ সকল কেন্দ্র।
জানা যায়, ১৯৮০ সালে রংপুর বনসম্প্রসারণ বিভাগের স্বতন্ত্র কার্যক্রম শুরু হয়। পরবর্তিতে এটি সামাজিক বন বিভাগ নামে প্রতিষ্ঠা লাভ করে। এর আওতায় রংপুর, নীলফামারী, কুড়িগ্রাম, লালমনিরহাট ও গাইবান্ধা জেলার সমন্বয়ে ৩টি সামাজিক বনায়ন জোন সৃষ্টি করা হয়। আবার এদের অধিনে ৩টি ফরেষ্ট রেঞ্জ, ১৪টি বিট, ২টি পেট্রোল পোস্ট, ৮টি সামাজিক বনায়ন নার্সারী ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ও উপজেলা ভিত্তিক ২৭টি সোসাল ফরেস্ট্রি প্লান্টেশন সেন্টার রয়েছে। এসবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে কর্মকর্তা ও কর্মচারি মিলে ১৪৯ জন। কেন্দ্রগুলোতে স্টাফ কোয়াটার ও অফিস ঘর নির্মাণের পর শুরু হয় বনাঞ্চল গড়ার কার্যক্রম। এতে বনভূমি হিসেবে ১৪টি বিট ও ১টি এসএফএনটিসির আওতায় রিজার্ভ প্রটেক্টেড, ভেস্টেড, অ্যাকোয়ার্ড ও প্রস্তাবিতসহ বিভিন্ন শ্রেণীভিত্তিক মোট ৬ হাজার ৭শত ৯৮ একর জমি ব্যবহার করা হয়। এছাড়াও বিভিন্ন সময়ে সড়ক ও জনপথের নিজস্ব বাগান, ব্যক্তি মালিকানায় কৃষি বন বাগান, তিস্তা ব্যারেজ প্রকল্পে কৃষি, মৎস্য, পশুসম্পদ ও বন অধিদপ্তরের সমন্বিত বাগান গড়া হয়। এ সকল বাগান তৈরির পর গাছ বড় হয়ে মেয়াদ ফুরিয়ে গেলে দুর্বৃত্ত দ্বারা দিন রাতে সমানভাবে উজার হচ্ছে। এভাবে তিন দশক পেরিয়ে গেলে অভ্যন্তরীণ সমস্যার সমাধান না মেলায় জরাজীর্ণভাবেই চলছে বনায়ন কেন্দ্রগুলোর কার্যক্রম।
বনায়ন কেন্দ্রের সংশ্লিষ্টরা জানায়, বসবাস অনুপযোগী স্টাফ কোয়ার্টার যা যেকোন মুহূর্তে ধসে পড়তে পারে। আবাসনের স্বল্পতা, বরাদ্দ, যোগাযোগ বাহন ও প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কর্মচারি গার্ড, আগ্নেয়াস্ত্র এর অভাব, সামাজিক বনায়নে অনাগ্রহ, বনাঞ্চলনুপাতে জনবলের স্বল্পতা, বনভূমি জবর দখল, বন অপরাধীদের মামলা নিষ্পত্তিতে ধীরগতি। সওজের সাথে ভূমি মালিকানা নিয়ে জটিলতা ইত্যাদি কারণে বনায়ন রক্ষা ও বৃদ্ধিতে প্রতিবন্ধকতা থাকলেও বিষয়গুলি চিহ্নিত করে উর্ধ্বতনরা পদক্ষেপ না নেওয়ায় এ দশা হয়েছে এ অঞ্চলের বনাঞ্চলের।
একটি সূত্র জানায়, রংপুর বিভাগের প্রায় এক হাজার স’মিলে প্রতিদিন শত শত আকাশমনি, শিশু, অর্জুন, মেহগনিসহ দামি গাছ কেটে অসাধু ব্যবসায়ীরা দুর্বৃত্ত ও গাছখেকোদের পালন করলেও কোন পদক্ষেপ নেয়া হয় না। আবার এসব নিয়ে মামলা করলেও নিরাপত্তাহীনতায় থাকতে হয় বন কর্তৃপক্ষকে। আর এভাবেই বিভিন্ন সমস্যায় বৃহৎ বনাঞ্চল এলাকা গাছ উজার হয়ে অর্ধেকে নেমেছে।
গত শনিবার রংপুর বন বিভাগের আওতাধীন বিভিন্ন কেন্দ্রের বনায়ন এলাকাগুলো গিয়ে দেখা যায় অবাধে দুর্বৃত্ত দ্বারা গাছ কাটার দৃশ্য। এক সময় এসব বনাঞ্চল গাছে পরিপূর্ণ থাকলেও এখন তা নেই। সৈয়দপুর সামাজিক বনায়ন ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে গেলে দেখা যায়, জরাজীর্ণ কোয়ার্টার ৩টি। ২টিতে থাকে ২ জন মালি পরিবার নিয়ে আর একটি নতুন রেঞ্জ কর্মকর্তা উঠছেন। মতিয়ার রহমান নামের এক মালি জানান, ছাদের পলেস্তারা প্রায়ই ধসে পড়ে। এতে কয়েকবার আহত হই। অভিযোগ দেয়ার পরও সংস্কার হয়নি। তাই সবসময় আতংকে থাকি। একই অবস্থায় প্রায় অর্ধশতাধিক কেন্দ্রের কোয়ার্টারের। এ নিয়ে জলঢাকা কেন্দ্রে ফরেস্টার মোঃ মোনায়েম জানান, আমরা খুবই কষ্টে আছি। সমস্যা অনেক। শুধু জবাবদিহি করতে হয়। কিন্তু আমাদের সমস্যা সমাধান হয় না। এদিকে প্রতিদিন নির্বিঘেœ বন উজার হওয়া এবং গাছ না লাগানো কিংবা গাছ কেটে নগর বৃদ্ধিতে আবহাওয়ার বৈরিতা শুরু হয়েছে বলে জানান আবহাওয়াবিদরা। তাদের দাবি এভাবে বৃক্ষ নিধন চললে উত্তরাঞ্চলের জেলাগুলোতে গতবারের চেয়ে তাপদাহ বাড়বে এবং মরুময় অঞ্চলের তাপমাত্রা দেখা যেতে পারে আসন্ন গ্রীষ্মকালে।
এ বিষয়ে রংপুর বিভাগের প্রধান বন কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদের সাথে কথা হলে তিনি জানান, অনেক সমস্যা নিয়ে কাজ করতে হচ্ছে। বিষয়গুলো উর্ধ্বতনদের অবগত করা হয়েছে। লোকল নিয়োগ প্রক্রিয়া এবং পর্যাপ্ত বরাদ্দ পেলে সমাধান হবে। তারপরও প্রতিটি নাগরিক সচেতন ও সহযোগিতা করলে আমরা গাছ এবং নিজেদের রক্ষা করতে পারব।

Print Friendly, PDF & Email