CC News

দারিদ্র্যের চাপে ‘স্ত্রী ভাড়া’ দিচ্ছে কিছু কেনিয়ান!

 
 

সিসি ডেস্ক, ২৯ মার্চ: কেনিয়ার অনেক পরিবারে স্বামী-স্ত্রী দুজনই পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য হচ্ছেন। কেনিয়ার উপকূলীয় শহরগুলোতে এমন ঘটনা নতুন নয় বলে আলজাজিরার একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

ওয়াম্বুই নাম্নী এক নারী আলজাজিরাকে জানায়, ‘আমাদের জীবন খুব কঠিন ছিল। আমার স্বামীর রোজগারের ঠিক-ঠিকানা ছিল না। সে যখন আমাকে এই পেশায় আসতে বলে, তখন আমার কোনো উপায় ছিল না।’

তারা এখন তিন বেলার খাওয়া আর ছেলেমেয়েদের স্কুলে পাঠানোর খরচ যোগাতে পারে বলে জানান।

কেনিয়ার উপকূলীয় শহরগুলোতে এমন ঘটনা নতুন নয়। সেখানে স্বামীরা তাদের স্ত্রীদের পরিচয় গোপন রেখে ইউরোপের ধনী পর্যটকদের কাছে পতিতা হিসেবে পাঠায়।

পর্যটকরা সমুদ্রের সৈকতে পতিতার সন্ধান করলে তাদের কাছে নিজেদের স্ত্রীকে পাঠায় সেখানে কাজ করা পুরুষরা।

রামাদান বলেন, ‘ঘরে নিজের বউ থাকতে আমি আরেক মহিলাকে বিত্তশালী বানাতে যাব কেন? এটা আমাদের জন্য নিজের খরচ যোগানোর জন্য কিছু টাকার ব্যবস্থা করার সুযোগ।’

দেশটির পর্যটন কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, পূর্ব আফ্রিকার দেশ কেনিয়ায় ২০১৬ সালে ১০ লাখেরও বেশি পর্যটক গিয়েছেন। তারা সেখানে ১০ কোটি ডলারেরও বেশি খরচ করেছেন। কেনিয়া পর্যটকদের অন্যতম প্রিয় গন্তব্য।

রামাদান ও ওয়াম্বিউর যেখানে থাকে, সেই কওয়াল সৈকতকে আফ্রিকার সপ্তম সেরা সমুদ্র সৈকত হিসেবে ঘোষণা করেছে ট্রিপ অ্যাডভাইজর ওয়েবসাইট।

কিন্তু এসব স্বীকৃতিতে কেনিয়ার গ্রামবাসীদের কিছু যায় আসে না। কিন্তু এতে মারাত্মক ঝুঁকিও রয়েছে।

কেনিয়ার কর্তৃপক্ষ বলেছে, তাদের উপকূলী এলাকায় ২০১৪ সালে এইডস রোগী ছিল ৩২৫ জন। কিন্তু ২০১৬ সালে এই সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৫,৩৩৫ জন।

সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য কাজ করছে এমন একটি সংগঠনের কর্মী ফেইথ মোয়েন্ডে বলেন, ‘এমন নারীরা যখন একাধিক সঙ্গীর সাথে যৌনতায় লিপ্ত হন, তখন যৌনরোগ সংক্রমণের ঝুঁকি অনেক বেড়ে যায়। বিশেষ করে তারা যখন অন্য ব্যক্তির শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে অজ্ঞ থাকেন, তখন এটা বেশি হয়।’

এই ঝুঁকির কথা জেনেও রামাদান ও ওয়াম্বিউ তাদের দেহব্যবসা বন্ধ করবে না। প্রতি মাসে তাদের বাসাভাড়া দিতে হয় ৮০ ডলার। একই সঙ্গে তিন বাচ্চার ভরণপোষণ ও স্কুলের খরচ চালাতে হয় তাদের।

ওয়াম্বিউ বলেন, ‘আমি ভালোভাবে বেঁচে থাকার জন্য এটা করছি। শুনতে অনৈতিক মনে হচ্ছে, কিন্তু আমার স্বামী জানে এবং আমাকে সমর্থন দিচ্ছেন। তাহলে কেন করব না?’

Print Friendly, PDF & Email