CC News

‘উত্তরের শিল্পনগরী, দীপ্তিমান নীলফামারী’

 
 

।। এম এ মোমেন ।।
কোন মূল্যবান সামগ্রীর উপর স্বত্ব বা অধিকার প্রতিষ্ঠার চিন্তা থেকেই খ্রিস্টপূর্ব ২০০০ অব্দে প্রথম ব্র্যান্ডিংযের বিষয়টি উদ্ভূত হয়েছে বলে ধারণা করা হয়। তখন ব্র্যান্ডিংয়ের মূল বিষয় ছিল ‘এটি আমার-কেউ নিওনা’। পরবর্তীতে ১৮ শতকে পণ্য ব্র্যান্ডিংয়ের ধারণা পরিবর্তিত হয়েছে ‘এটি আমার তৈরি-তুমি কিনো’।
তবে স্থান ব্র্যান্ডিং কখন শুরু হয়েছিল তার কোনো সুনির্দিষ্ট তথ্য পাওয়া না গেলেও সাইমন অ্যানহল্ট এর মতে, স্থান ব্র্যান্ডিংয়ের ধারণা প্রথমে পাওয়া যায় আলেকজান্ডার দি গ্রেট এর সময়ে। তিনি মনে করতেন, একটি দেশের সাফল্য ও ব্যর্থতা বহুলাংশে নির্ভর করে সে দেশের বাইরে তার ভাবমূর্তির উপর। তবে সত্যিকার অর্থে ১৯৯০ এর দশকে স্থান ব্র্যান্ডিংয়ের বিষয়টি সামনে আসে যখন অস্ট্রেলিয়া, হংকং, স্পেন এ ধরনের কৌশল প্রনয়ণ করে। অপরদিকে একটি নগরকে সকলের নিকট অনন্য রুপে উপস্থাপনের জন্য ১৯৭০ এর দশকে নগর ব্র্যান্ডিং শুরু হয়। তবে নেশন ব্র্যান্ডিং এর বিষয়টি ১৯৯০ এর দশকে প্রথমে সাইমন অ্যানহল্ট ব্যবহার করেছিলেন।
ব্র্যান্ডিং ধারনা টিকে মূলত: দুটি ভাগে ভাগ করা হয়েছে। (ক) পণ্য কেন্দ্রিক ব্র্যান্ডিং। (খ) স্থান কেন্দ্রিক ব্র্যান্ডিং।
ব্র্যান্ডিং ও বাংলাদেশ: বাংলাদেশ বিশ্বে বন্যা, ঝড়, জলোচ্ছাস আর ঘনবসতিপূর্ণ দরিদ্র রাষ্ট্র হিসেবে বিশ্বে একসময় পরিচিত ছিল। বর্তমানে অর্থনেতিক ও সামাজিক সূচকে এগিয়ে যাচ্ছে অমিত সম্ভাবনার বাংলাদেশ। পোশাক শিল্পে বাংলাদেশ এখন অনন্য উচ্চতায়। মঙ্গল শোভাযাত্রা ও বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষন এখন বিশ্ব ঐতিহ্যের অংশ। বাংলাদেশের ক্রিকেট এবং পোশাক শিল্পের সাথে বর্তমান সরকারের ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ ব্র্যান্ডিং দেশে-বিদেশে ব্যাপকভাবে পরিচিতি লাভ করেছে। ২০০৮ সাল থেকে বাংলাদেশকে বিশ্বব্যাপী তুলে ধরতে শুরু হয় ‘বিউটিফুল বাংলাদেশ’ বা রূপময় বাংলাদেশ ক্যাম্পেইন।
জেলা-ব্র্যান্ডিংয়ের ধারণা:বাংলাদেশের প্রত্যেকটি জেলার কোনো না কোনো বিশেষত্ব রয়েছে। কোনো জেলা পর্যটনের জন্য, কোনো জেলা কোনো পণ্যের জন্য, আবার অন্য কোনো জেলা হয়তো কোনো সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের জন্য বিখ্যাত। কাজেই একটি জেলার ইতিহাস-ঐতিহ্যকে বিবেচনায় রেখে জেলার সর্বস্তরের মানুষকে সম্পৃক্ত করে তার বিকশিত করার লক্ষ্যে গৃহীত সার্বিক কর্ম-পরিকল্পনা এবং তা বাস্তবায়নের যে কর্মযজ্ঞ-তাই মূলত জেলা-ব্র্যান্ডিং। একটি সুন্দর ভবিষ্যৎ বিনির্মাণের লক্ষ্যে মূল্যবোধ চর্চার মাধ্যমে একটি জেলার নাগরিক সেবাসহ সার্বিক কল্যাণ সাধন জেলা-ব্র্যান্ডিংয়ের অন্যতম উদ্দেশ্য।
জেলা-ব্র্যান্ডিং কেন: একটি জেলার চলমান উদ্যোগ এবং সম্ভাবনাসমূহকে বিকশিত করার মাধ্যমে জেলার সার্বিক উন্নয়ন ঘটানো সম্ভব। ব্র্যান্ডিং- প্রতিটি জেলাকে একটি সুনির্দিষ্ট রূপকল্প দেবে- যা গৃহীত কর্মপরিকল্পনার সুসংগঠিত বাস্তবায়নের মাধ্যমে সেই জেলাকে একটি গন্তব্যে পৌঁছতে সাহায্য করবে। একটি জেলার সর্বস্তরের মানুষের আশা-আকাঙ্খা, ঐতিহ্য, গৌরবকে দেশে-বিদেশে ভাস্বর করে তোলার লক্ষ্যে সকলের একাত্ম হয়ে কাজ করার জন্য জেলা-ব্র্যান্ডিং গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে।
জেলা ব্র্যান্ডিং প্রেক্ষাপট: জেলা-ব্র্যান্ডিং জেলার ইতিহাস ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির সংরক্ষণ চর্চা, পর্যটন শিল্পের বিকাশ, এক জেলা এক পণ্য কর্মসূচির বাস্তবায়নে সহায়তা প্রদান এবং জেলার ভৌগলিক নির্দেশক পণ্য চিহ্নিতকরণ এবং তা সংরক্ষণের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। সামগ্রিক বিবেচনায় বলা যায় ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণে বর্তমান সরকারের রূপকল্প বাস্তবায়নে সহায়তা প্রদানই জেলা-ব্র্যান্ডিংয়ের অন্যতম উদ্দেশ্য। প্রত্যেকটি জেলার স্বাতন্ত্র্য এবং অর্থনৈতিক সম্ভাবনাকে বিকশিত করার লক্ষ্যে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের তত্ত্বাবধানে এটুআই প্রোগ্রাম, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের উদ্যোগে জেলা ব্র্যান্ডিং এর কার্যক্রম শুরু করা হয়। নীলফামারী জেলা তার ব্যতিক্রম নয়। বাংলাদেশের উত্তর জনপদের দরিদ্র পীড়িত নীলফামারীর সামনে উন্মোচিত হয়েছে অমিত সম্ভাবনার দ্বার। এ জেলায় রয়েছে একটি সরকারি ইপিজেড যা উত্তরা ইপিজেড নামে পরিচিত, ১ টি রেলওয়ে কারখানা, ১ টি টেক্সটাইল মিল, ২টি সিরামিক্স কারখানা, একটি বিসিক শিল্প নগরী, ১ টি টাইলস কারখানা, ৩৭ টি মাঝারী শিল্প প্রতিষ্ঠান, ৯৪টি ক্ষুদ্র শিল্প এবং ১২৭টি কুটির শিল্প প্রতিষ্ঠান। সৈয়দপুর বিমানবন্দরকে আন্তর্জাতিক মানে উন্নীতকরণ এবং সদরে একটি সরকারি অর্থনেতিক জোন গড়ে তোলার কাজ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। চিলাহাটি স্থলবন্দর চালুর ব্যাপারে উচ্চ পর্যায় থেকে ইতিবাচক সাড়া পাওয়া গেছে। এর ফলে প্রতিবেশি ভারত, নেপাল ভুটানের সাথে আমদানি রপ্তানি বৃদ্ধি পাবে। এর ফলে বদলে যাবে এ অঞ্চলের আর্থ সামাজিক অবস্থার ব্যাপক উন্নয়ন। এককালে মঙ্গা কবলিত উত্তরের এই জনপদ গত কয়েক বছরে মানব উন্নয়ন সূচকে অভাবিত উন্নতি করেছে। বর্তমান নীলফামারী একটি খাদ্য উদ্বৃত্ত জেলা। যোগাযোগ ব্যবস্থা, শিল্প কলকারখানা ও কৃষি বহুমুখীকরণের মাধ্যমে ক্রয় সক্ষমতা বৃদ্ধি পাওয়ায় মানুষের জীবনমানে ব্যাপক ইতিবাচক পরিবর্তন এসেছে। শিক্ষার হার ও মান বৃদ্ধি পাওয়ায় বাড়ছে উন্নত কর্মজীবির সংখ্যা। এককালের অবহেলিত ও পশ্চাৎপদ এই জনপদ কৃষি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, শিল্প কর্মসংস্থানসহ সকল ক্ষেত্রে দ্রুত উন্নতি সাধনের মাধ্যমে সকল সীমাবদ্ধতাকে পিছনে ফেলে এ জেলা দ্রƒত এগিয়ে যাচ্ছে। আর তাই নীলফামারী জেলার সম্ভাবনা সমূহকে বিকশিত করার মাধ্যমে জেলার সার্বিক উন্নয়ন ঘটানোই জেলা ব্র্যান্ডিংয়ে শিল্প উদ্যোগ বিষয়টিকে নির্বাচন করার মূল উদ্দেশ্য। পর্যটনকে আকৃষ্ট করাসহ নীলফামারী জেলার অগ্রযাত্রা ও মানুষের আকাঙ্খার প্রতি দৃষ্টি রেখে একটি পৃথক ব্র্যান্ডিং গড়ে তোলার জন্য স্থানীয় চেম্বার, প্রেসক্লাব, স্কুল-কলেজের অধ্যক্ষ ও শিক্ষকবৃন্দ, তরুণ সমাজ, বিভিন্ন পেশাজীবি ও সমাজসেবী, স্থানীয় সরকারের প্রতিনিধিসহ সকল স্টেকহোল্ডারকে নিয়ে আলোচনাপূর্বক ব্র্যান্ড নাম নির্ধারণ করা হয়েছে “উত্তরের শিল্পনগরী, দীপ্তিমান নীলফামারী”।
নীলফামারী জেলার ব্র্যান্ডিং এর জন্য একটি লোগো তৈরি করা হয়েছে। লোগোটির মর্মার্থ হলো, লোগোর কেন্দ্রস্থলে রয়েছে নীলফামারী জেলার মানচিত্র। চারপাশে বিচ্ছুরণ জেলার উন্নয়নের দীপ্তির প্রকাশ। মূল কেন্দ্রের বাইরে চক্রাকার অংশটি চাকার প্রতীক যা এ অঞ্চলের শিল্পের বিকাশের প্রতিফলন । কেন্দ্রের সবুজ রং এর অঞ্চলের উর্বর ভূমির প্রতীক। নীলফামারী জেলার বিভিন্ন উপজেলায় যেসব শিল্প উদ্যোগ, জনহিতকর উদ্যোগ রয়েছে, যেসব উদ্যোগের মাধ্যমে মানুষ অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি অর্জন করেছে, হয়ে উঠছে স্বাবলম্বী, হয়ে উঠেছে সচেতন একেকজন নাগরিক, নিজ জীবন এবং সেই সাথে জেলাকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে এক দীপ্তিমান ভবিষ্যতের দিকে- সেইসব উদ্যোগকেই রুপায়িত করা হয়েছে “উত্তরের শিল্পনগরী, দীপ্তিমান নীলফামারী” লোগোটিতে ।
লেখক: সভাপতি, সৈয়দপুর রিপোর্টার্স ইউনিটি।

Print Friendly, PDF & Email