CC News

ছাত্রীদের যৌন হয়রানি করতেন কামরুল

 
 

সিসি ডেস্ক: রংপুরের আইনজীবী ও আওয়ামী লীগ নেতা রথীশ চন্দ্র ভৌমিক ওরফে বাবু সোনার স্ত্রী দীপার সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্ক ছাড়াও তাজহাট উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রীদের যৌন হয়রানি করতেন শিক্ষক কামরুল ইসলাম। এ নিয়ে প্রধান শিক্ষক বরাবর লিখিত অভিযোগও দেয় দুই শিক্ষার্থী। এছাড়াও পরিচালনা পর্ষদের সদস্য ও প্রতিষ্ঠানের অন্যান্য শিক্ষকদের সঙ্গে অসদাচারণসহ তার বিরুদ্ধে বেপরোয়া আচরণ ও শৃঙ্খলাবিরোধী নানা কর্মকাণ্ডের অভিযোগ রয়েছে।

মোল্লাপাড়া এলাকার অনেক শিক্ষার্থী কামরুলের যন্ত্রণায় তার ফোন নম্বর কালো তালিকায় রাখতেন বলেও অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে। বাবু সোনা হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে কামরুলের নাম চলে আসায় তার বিষয়ে খোঁজ নিতে গিয়ে তাজহাট উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা যায়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তাজহাট উচ্চ বিদ্যালয়ের এক সিনিয়র শিক্ষক জানান, কারণে-অকারণে ওই প্রতিষ্ঠানের ছাত্রীদের গায়ে হাত দিতেন কামরুল। এ নিয়ে দশম শ্রেণির দুই ছাত্রী অভিযোগ দিলে অন্যান্য বিষয়গুলো উল্লেখ করে স্কুলের সভাপতির নির্দেশে গত ৪ মার্চ প্রধান শিক্ষক কারণ দর্শানো নোটিশ দেন কামরুলকে।

ওই শিক্ষক আরও জানান, বাবু সোনা তাজহাট উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি ছিলেন। স্ত্রী স্বর্ণা সরকার দীপা ওই প্রতিষ্ঠানেরই শিক্ষক হওয়ায় তিনি কামরুলের পক্ষ নিয়ে বিষয়টি নিয়ন্ত্রণ করতে দুই শিক্ষার্থীসহ অন্যান্য শিক্ষকদের নানাভাবে বোঝানোর চেষ্টা করেন।

তাজহাট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক তাওহিদা খাতুন বলেন, সাতদিনের মধ্যে নোটিশের জবাব দিতে বলা হয় কামরুলকে। নোটিশের জবাব সন্তোষজনক না হওয়ায় ১৯ মার্চ এক বৈঠকে একটি তদন্ত কমিটি করে দেয়া হয়। এ কমিটির আহ্বায়ক করা হয় অভিভাবক সদস্য বিপুল সরকারকে। অপর দুই সদস্য হলেন- শিক্ষক প্রতিনিধি মতিউর রহমান ও সহকারী প্রধান শিক্ষক বেলাল হোসেন। সেই কমিটি ২৮ মার্চ তাকে (কামরুল) আমার রুমেই জিজ্ঞাসাবাদ করেন। এ নিয়ে ৩০ মার্চ আরও একটি বৈঠকের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এর আগেই ২৯ মার্চ বাবু সোনাকে হত্যাকাণ্ড ঘটলো।

স্কুলের অভিভাবক সদস্য ও স্থানীয় মোল্লাপাড়ার বাসিন্দা বিমল সরকার জানান, কামরুল এলাকায় বেপরোয়াভাবে চলাচল করতেন। তার আচরণে অনেকই ক্ষুব্ধ ছিলেন। তিনি কাউকেই তোয়াক্কা করতেন না। এমনকি পরিচালনা পর্ষদকে নিয়েও বিরুপ মন্তব্য করতেন।

ওই এলাকার এক শিক্ষার্থীর অভিভাবক রওশনারা বলেন, তাজহাট উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন মোল্লাপাড়ায় কামরুলের পৈত্রিক নিবাস ও জমিজমা থাকায় প্রায়ই তিনি এখানে আসতেন।

কারণে-অকারণে ওই এলাকার শিক্ষার্থীদের ডেকে নিয়ে তার বাগানের ঘাস তুলে নিতেন। এছাড়াও গাছ লাগানো, গাছে পানি ঢালা, মাটির গর্ত খোঁড়াসহ শিক্ষার্থীদের দিয়ে বিভিন্ন কাজ করে নিতেন। এ কারণে অনেক শিক্ষার্থী তার মোবাইল নম্বর কালো তালিকায় দিয়ে রাখতো।

তিনি আরও বলেন, পুলিশের হাতে গ্রেফতার দুই শিক্ষার্থী সবুজ ও রোকনকে দিয়ে এক মাস আগে তার বাগানের মধ্যে দুইটি গর্ত খুঁড়ে নেন কামরুল। এছাড়া বাবু সোনার মরদেহ গুমের পরিকল্পনায় খোঁড়া গর্তটিও ওই দুই শিক্ষার্থীকে দিয়ে তৈরি করে নেন তিনি।

এদিকে ঘটনার তদন্ত সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানায়, ভূমিকম্পে যেন ভবন ধসে না পড়ে এ কারণে মাটির গুনগত মান পরীক্ষা করতে গর্ত খোঁড়ার জন্য ভয়ভীতি দেখিয়ে সবুজ ও রোকনকে নির্দেশ দেয় কামরুল। শিক্ষকের নির্দেশে ৩০০ টাকার বিনিময়ে ২৬ মার্চ দুই শিক্ষার্থী গর্ত খুঁড়ে দেয়। পরে ৩০ মার্চ বাবু সোনার মরদেহ আলমারিতে ভরে নিয়ে এসে কেউ যেন বুঝতে না পারে সেজন্য কামরুল একাই সেই গর্তে মরদেহ ফেলে আংশিক মাটিচাপা দিয়ে দেন। পরে সবুজ ও রোকনকে দিয়ে বাকিটুকু ভরাট করে নেন চতুর কামরুল। ফলে ওই দুই শিক্ষার্থী জানতে পারেনি যে, ওই গর্তের নিচে কী ছিল।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ১৯৯৪ সালে একই দিনে তাজহাট উচ্চ বিদ্যালয়ে ধর্মীয় শিক্ষক হিসেবে যোগদেন কামরুল ও দীপা। সে সময় স্কুলের সভাপতি ছিলেন কামরুলের বিমাতা ভাই নুরুল ইসলাম জাফরী এবং সহ-সভাপতি ছিলেন দীপার স্বামী বাবু সোনা।

স্কুলে চাকরি হওয়ার কিছুদিন পর থেকে দীপার সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা বাড়াতে নানা কৌশলের আশ্রয় নেন কামরুল। স্কুলের যাবতীয় দাপ্তরিক কাজে দীপাকে সহায়তা করতে থাকেন তিনি। বিনিময়ে দীপা বাড়ি থেকে টিফিন বক্সে করে কামরুলের জন্য খিচুড়ি, ছানা, পায়েসসহ ফলমূল নিয়ে এসে তাকে খাওয়াতেন। এসব বিষয় জানতে পারেন দীপার স্বামী বাবু সোনা। তিনি শিক্ষক কামরুলকে সাবধান করে দেন। এ থেকে তাদের মেলামেশা বন্ধ হয়ে যায়। সেই থেকে মোবাইল ফোনে কামরুল আর দীপা পরিকল্পনা করেন কীভাবে আগের সম্পর্ক ফিরিয়ে আনা যায়। তারা দিনে কখনও ৩০-৩৫ বারও কথা বলেছেন।

একপর্যায়ে দু’জনের মধ্যে ভালোবাসার সম্পর্ক গড়ে ওঠে। বিষয়টি স্কুলসহ এলাকায় জানাজানি হলে বাবু সোনার সঙ্গে দীপার সম্পর্কের আরও অবনতি ঘটে। একপর্যায়ে কামরুল ও দীপা বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নেন। আর এতে একমাত্র হিসেবে বাধা দেখেন বাবু সোনাকে। তাই বাবু সোনাকে হত্যার পরিকল্পনা করতে থাকেন তারা। পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী ২৯ মার্চ (বৃহস্পতিবার) রাতে খাবারের সঙ্গে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে অচেতন করে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে বাবু সোনাকে হত্যা করেন দীপা ও কামরুল।

জাগো নিউজ

Print Friendly, PDF & Email