CC News

উত্তরা ইপিজেডে কাজ করছে অন্তত ২০ হাজার নারী

 
 

সিসি নিউজ: নীলফামারীর উত্তরা ইপিজেডে কর্মসংস্থান হয়েছে অন্তত ২০ হাজার নারীর। পুরুষের সাথে বিভিন্ন কারখানায় কাজ করে পরিবারে সচ্ছলতা আনার পাশাপাশি জীবনযাত্রার মান উন্নয়ন করছে তারা। এছাড়াও ইপিজেডকে কেন্দ্র করে আশপাশের প্রতিষ্ঠানগুলোতেও কর্মসংস্থান হয়েছে বহু নারীর।
পাঁচ বছর আগে স্বামীর মৃত্যুর পর উত্তরা রপ্তানী প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চলে ভেনচুরা লেদার কারখানায় কাজ শুরু করেন খালেদা বেগম। জীবিকার তাগিদে ১০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে আসেন উত্তরা ইপিজেডে। বর্তমানে তাঁর বড় ছেলে মাধ্যমিকে ও ছোট মেয়েটি পড়ছে প্রাথমিকে।
১৯৯৬ সালে গড়ে উঠে উত্তরা ইপিজেডে বর্তমানে কাজ করছে ৩০ হাজার কর্মী। যার মধ্যে ২০ হাজার শ্রমিকই নারী। পুরুষের পাশাপাশি কাজ করে দরিদ্র পরিবারগুলোতে স্বচ্ছলতা ফেরাতে সমান অবদান রাখছেন তারা। ইপিজেডের পরচুলা, চশমা, সোয়েটার, খেলনা, ব্যাগসহ ১২ দেশি-বিদেশি কারখানায় তারা কাজ করছেন।
এক নারী শ্রমিক জানান, বর্তমানে আমার স্বামী বেকার। আমার ইনকামের টাকা দিয়ে সংসার আমার ভালই চলতেছে আমার ছেলেকে লেখা পড়া করাতে পারছি।ইপিজেডে আড়াই বছর ধরে কাজ করি সংসারে উন্নতি করি ছেলেদের লেখা পড়া করাতে সুবিধা হয়।
নারীরা কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করলেও এখনও আছে পুরুষের সাথে বেতন বৈষম্য।
নীলফামারী জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা রাফিয়া ইকবাল বলেন, নারী এবং পুরুষ পরস্পর পরস্পরের সহযোগী ও সহমর্মী হয়ে আমরা একটা শান্তিময় সমাজ গড়তে চাই যে সমাজটা বাংলাদেশকে বিশ্ব দরবারে সমৃদ্ধশালী দেশ হিসেবে পরিচিত লাভ করবে
জেলার উত্তরা ইপিজেডকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছে প্রায় পাঁচশো দোকানপাট এবং প্রসার ঘটেছে এলাকার ব্যবসা-বাণিজ্যের। যেখানে কর্মসংস্থান হয়েছে আরও অনেক নারীর।

Print Friendly, PDF & Email