CC News

মাগুরায় স্কুল মাঠে আ.লীগ নেতার ইটভাটা

 
 

মাগুরা: জেলার মহম্মদপুর উপজেলার তল্লাবাড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও এসএম টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড বিএম কলেজের সীমানাজুড়ে আওয়ামী লীগের এক নেতা ইটভাটা গড়ে তুলেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এতে স্বাস্থ্য ঝুঁকিসহ নানা সমস্যায় পড়েছে স্কুল ও কলেজের পাঁচ শতাধিক শিক্ষার্থী।

স্কুল ও কলেজ চলাকালীন ইটভাটার চিমনির কালো ধোয়া, ধুলাবালি ও ইটভাটার সঙ্গে সংশ্নিষ্ট যানবাহনের শব্দদূষণে একদিকে শিক্ষার্থীদের লেখাপড়া বিঘ্নিত হচ্ছে, অন্যদিকে স্বাস্থ্য ঝুঁকি নিয়েই বেড়ে উঠছে কোমলমতি ছাত্র-ছাত্রীরা।

মহম্মদপুর-মাগুরা সড়কের গা ঘেঁষে অবৈধভাবে এই ইটভাটা গড়ে উঠলেও কেন তা প্রশাসনের নজরে আসছে না এ নিয়ে বিভিন্ন মহলে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

স্কুলের শিক্ষকরা জানান, ইটভাটার কারণে বিগত বছরের তুলনায় এ বছর ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা কমে গেছে। শিশু শ্রেণী থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত এ বছর মোট শিক্ষার্থীর সংখ্যা মাত্র ২১৮ জন। ধুলা এবং ধোয়ার কারণে প্রায়ই শিশু শ্রেণির ছেলেমেয়েরা বমি করে ও শ্বাষকষ্টে ভোগে। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পেছনেই এসএম টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড বিএম কলেজ। এখানে সব মিলিয়ে ২৭৫ ছাত্রছাত্রী। চিমনির কালো ধোয়া ও শব্দদূষণে এখানে শিক্ষার্থীর উপস্থিতি অর্ধেকেরও কম।

স্থানীয়রা জানান, ইটভাটার মালিক মহম্মদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। যে কারণে স্কুল বা কলেজ কর্তৃপক্ষ তাকে কিছু বলতে পারেন না। তাই নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করেই তিনি ইটভাটার কাজ পরিচালনা করে যাচ্ছেন। ইটভাটায় অবৈধভাবে পোড়ানো হচ্ছে কাঠ। প্রধান সড়কের গাঘেঁষে স্কুল সীমানার মধ্যে রাখা হয়েছে বড় বড় গাছের গুঁড়ি।

এসএম টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড বিএম কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ শ্যামল কুমার বিশ্বাস বলেন, ইটভাটার ধুলাবালি থেকে রক্ষা পেতে আমরা সীমানা প্রাচীরের কাজ শুরু করেছি।

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. কবিরুজ্জামান বলেছেন, এ বিষয়ে লিখিতভাবে বারবার উপজেলা শিক্ষা অফিসকে অবহিত করেছি, কিন্তু কোনো সদুত্তর পাই না।

ইটভাটা মালিক মো. খায়রুজ্জামান বলেন, আমি নিজের জমিতে ইটভাটা করেছি এবং উভয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ভূমিদাতা আমার বাবা। তবে স্কুলের অসুবিধার কথা ভেবে আমি আগামী বছর আর ওই জমিতে ইটভাটা করব না।

মহম্মদপুর উপজেলা ভারপ্রাপ্ত শিক্ষা কর্মকর্তা মো. মোশারফ হোসেন বলেন, অভিযোগ পেয়ে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তাকে জানানো হয়েছে। তিনি ব্যবস্থা নেবেন।

মাগুরা জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ আতিকুর রহমান বলেন, বিদ্যালয়টি পরিদর্শন করে ইটভাটা বন্ধ করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email