CC News

ঘরের ভেতর সাপের বাসা!

 
 

সিসি ডেস্ক, ২১ এপ্রিল: কুমিল্লার দেবীদ্বার উপজেলা সদরের ছোট আলমপুর গ্রামে সপ্তাহব্যাপী ছিল সর্প-আতঙ্ক। স্থানীয় এক মাদরাসা শিক্ষকের ভাড়া বাসায় নিত্যদিনের সাপের উৎপাতে এ আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে গ্রামজুড়ে। গত এক সপ্তাহে ওই বাসা থেকে মারা হয় একডজন বিষদর সাপের বাচ্চা। অবশেষে শুক্রবার ওঝা সর্দার আলাউদ্দিন কবিরাজের নেতৃত্বে ওই বাসা থেকে বিষধর দুটি গোখরা উদ্ধারের পরই ওই এলাকায় সাপের আতঙ্ক মুক্ত হয়েছে বলে স্থানীয়রা জানান।

স্থানীয়রা আরো জানান, দেবীদ্বার উপজেলা সদরের ছোট আলমপুর গ্রামের বয়লার সংলগ্ন সেনা সদস্য মোবারক হোসেনের ওই বাসায় ভাড়া থাকেন সৈয়দপুর কামিল মাদরাসার আরবি প্রভাষক মো. ওয়াস কুরুনী। গেলো এক সপ্তাহে তিনি সাপের বাচ্চার উৎপাতে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েন। এ সংবাদ এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে সবার মধ্যে আতঙ্ক দেখা দেয়।

সংবাদ পেয়ে শুক্রবার দুপুরে ওঝা সর্দার আলাউদ্দিন কবিরাজ এসে প্রায় ঘন্টাব্যাপী অভিযান চালিয়ে একটি গোখরো শাপ ও একটি দারাস শাপ উদ্ধার করেন।

বাসার ভাড়াটিয়া সৈয়দপুর কামিল মাদরাসার আরবি প্রভাষক মো. ওয়াছ কুরুনী জানান, তার পরিবার নিয়ে গত ছয় মাস যাবত উক্ত বাসায় বসবাস করে আসছেন। গত সপ্তাহ থেকে সাপের উৎপাত লক্ষ করছেন। প্রথমে বাথরুমে দুটি সাপের বাচ্চা দেখতে পান, ওই দু’টি সাপের বাচ্চা মারার পর, পরদিন রান্না ঘরে আরো দুটি সাপের বাচ্চা ছুটাছুটি করতে দেখে এগুলোও মেরে ফেলেন। এ ঘটনায় বাসার লোকদের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দেয়। রাতে খাটে শুতে গেলে আরো দুটি সাপের বাচ্চা দেখে স্থানীয়দের সহায়তায় ওদুটো সাপের বাচ্চাও মেরে ফেলেন এবং খাটের কাঁথা, লেপ, তোষক, বিছানা তুলে কাজের বুয়াকে দিয়ে দেন। কাজের বুয়া বাড়িতে নিয়ে লেপ-তোষক খুলে আরো দু’টি সাপের বাচ্চা পান।

শুক্রবার সকালে মাদরাসায় যাওয়ার পথে দরজার পাশে ৩/৪টি সাপের বাচ্চা এলোমেলো ছুটতে দেখে তার চিৎকারে স্থানীয়রা এসে দুটি মেরে ফেলেন। পরে ওঝা সর্দার আলাউদ্দিন কবিরাজকে ডেকে এনে দুটি বিষধর জীবিত সাপ উদ্ধার করার পর এলাকায় স্বস্তি ফিরে আসে।

ওঝা সর্দার আলাউদ্দিন কবিরাজ জানান, দুটি বিষধর সাপই উদ্ধার করেছি। তবে আরো সাপের বাচ্চা থাকলেও যে মেডিসিন দিয়েছি তাতে আর কোন বাচ্চা জীবিত থাকার সম্ভাবনা নেই। স্থানীয়দের আতঙ্কিত হওয়ারও কোনো কারণ নেই। এখন ওই এলাকার মানুষ নিরাপদেই বসবাস করতে পারবেন।

Print Friendly, PDF & Email