CC News

রাজারহাটরে প্রত্যন্ত চরাঞ্চলে ইউএনও…

 
 

রফিকুল ইসলাম, রাজারহাট (কুড়িগ্রাম) : কুড়িগ্রামের রাজারহাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মুহ: রাশেদুল হক প্রধান উপজেলা প্রশাসনের সকল দপ্তরের কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি ও গণমাধ্যম নেতৃবৃন্দকে সঙ্গে নিয়ে একদিন কাটিয়েছেন চরাঞ্চলে। উপজেলা সদর থেকে প্রায় ৪০ কি. মি. দূরে অবস্থিত তিস্তার তীরবর্তী চরবিদ্যানন্দে চরাঞ্চলের মানুষের সঙ্গে মতবিনিময় করতে গিয়েছিলেন তিনি। সরজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, সুন্দরগঞ্জ, কাউনিয়া, পীরগাছা ও উলিপুর এই ৪টি উপজেলার সীমান্তবর্তী চরবিদ্যানন্দ একটি প্রত্যন্ত অংশ রাজারহাট উপজেলার। ওই চরে প্রায় ৩ হাজার মানুষের বসবাস। ওই অঞ্চলটিতে এ পর্যন্ত মাধ্যমিক পর্যায়ের কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেনি। মাত্র ৩টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, একটি কমিউনিটি ক্লিনিক ও একটি ইবতেদায়ী মাদ্রাসা রয়েছে। পাশাপাশি ওই চরে সহজে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ যেতে চান না। এ খবর জেনে সম্প্রতি উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহ: রাশেদুল হক প্রধান অত্র উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান, ইউপি চেয়ারম্যান, সরকারি সকল দপ্তরের কর্মকর্তা, প্রেসক্লাবের সভাপতি-সম্পাদককে সঙ্গে নিয়ে গত ১৮ এপ্রিল সকাল ১১টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত চরাঞ্চলের বাসিন্দাদের সঙ্গে ওই চরের আনন্দবাজার নামক স্থানে মতবিনিময় সভার আয়োজন করে অত্র ইউপি চেয়ারম্যান মো. তাইজুল ইসলাম। মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন-উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আবুল হাসেম, ইউএনও মুহ: রাশেদুল হক প্রধান, অফিসার ইনচার্জ মোখলেসুর রহমান, উপজেলা স্বাস্থ্য প. প. কর্মকর্তা ডা. মো. শহিদুল্লাহ, কৃষি অফিসার ষষ্টী চন্দ্র রায়, শিক্ষা অফিসার আশরাফ-উজ-জামান সরকার, প্রকৌশলী জি, কে, এম আনোয়ারুল আলম, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. ময়নুল হক, জেলা পরিষদ সদস্য মো. আব্দুস ছালাম, প্রেসক্লাবের সভাপতি এস. এ বাবলু, সাধারণ সম্পাদক মো. রফিকুল ইসলাম প্রমূখ। মতবিনিময় সভা শেষে অত্র এলাকার ভূমিহীন এক মুক্তিযোদ্ধা সজর উদ্দিন (৬৬) এর বসতবাড়ি নির্মাণের জন্য সরকারি জায়গা তাৎক্ষণিকভাবে বন্দোবস্ত বুঝে দেন ইউএনও। অপরদিকে আনন্দবাজারে রাস্তা বন্ধ করে দীর্ঘদিন ধরে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে ওঠায় ওই চরের বাসিন্দাদের যাতায়াতে চরম দূর্ভোগ পোহাতে হয়েছিল।  এ অভিযোগ উঠলে ইউএনও তাৎক্ষণিকভাবে দু’টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান উচ্ছেদ করেন। এ বিষয়ে রাজারহাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহ: রাশেদুল হক প্রধান বলেন, এই চরাঞ্চলের মানুষের জনদূর্ভোগ লাঘবে এখন থেকে উপজেলা প্রশাসন সার্বক্ষণিক মনিটরিং করবে। আপনারা কেউ আর হতাশ হবেন না। একাধিক চরবাসী এ প্রতিবেদককে জানান, ইউএনও স্যার খুব ভালো মানুষ, তিনি যেভাবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন, আমরা তা কখনও ভাবতে পারিনি। এ ছাড়া তিনি চরাঞ্চলটির বিভিন্ন মানুষের সঙ্গে সমস্যা সংক্রান্ত বিষয়াদী নিয়ে কথা বলেন।

Print Friendly, PDF & Email