CC News

সৈয়দপুরে এখনো জ্যোতিষী হাত দেখে বলেন ভবিষ্যতের কথা

 
 

।। নওশাদ আনসারী ॥ জ্যোতিষী গো জ্যোতিষী, হাত গুইনা কও দেখি, মনে মনে যারে চাই তারে পামু কি, আমি মনে মনে যারে চাই তারে পামু কি? সোয়া সের চাউল দিমু, সোয়া পাঁচ আনা পয়সা দিমু আধা পোয়া দিমু সাথে খাঁটি গাওয়া ঘি ….বাংলার সিনেমার জনপ্রিয় গান হলেও তারই যেন প্রতিচ্ছবি হয়ে সৈয়দপুরে আজও ১২ বছর ধরে হাতের রেখা দেখে বিভিন্ন সমস্যার সমাধান দেওয়ার কথা দিচ্ছেন জ্যোতিষী শ্রী কমল রায়।
ভাগ্য অদৃশ্য জগতের একটি ব্যাপার। আমরা আমাদের অতীতকে দেখতে পাই। কিন্তু ভবিষ্যৎকে দেখতে পাই না। ভবিষ্যতে কী হবে তাও কেউ জানি না। তাই আমাদের ভাগ্য জানার আগ্রহ খুবই তীব্র। সুপ্রাচীন কাল থেকেই মানুষ তার ভাগ্য জানার চেষ্টা করে আসছে।
যদিও সমাজবিজ্ঞানী ও মনোরোগ বিশেষজ্ঞদের মতে, বাস্তবতাবিমুখ, হতাশাগ্রস্ত, মানসিক রোগে আক্রান্ত এবং নিজের প্রতি আত্মবিশ্বাস না থাকা মানুষগুলো জ্যোতিষীদের কাছে ছুটলেও এর সঙ্গে মানুষের ভাগ্যের কোনো সম্পর্ক নেই। তারপরও জীবনে কখনো জ্যোতিষীকে দিয়ে হাত দেখাননি এমন মানুষের সংখ্যা কম হবে বৈকি। আর এই হাত দেখানো কে কেন্দ্র করে সমাজে আজও কিছু জ্যোতিষীকে দেখতে পাওয়া যায় যারা হাতের রেখা দেখে আপনার ভবিষ্যত বলেন এবং বিভিন্ন সমস্যার সমাধানও দেওয়ার কথা বলেন।
তেমন একজন জ্যোতিষী শ্রী কমল রায় । গেল ১৩ বছর ধরে তিনি সৈয়দপুরে হাত দেখা ও ভাগ্য গণনা করে আগতদের বিভিন্ন সমস্যার সমাধান, পরামর্শ দিয়ে আসছেন । সৈয়দপুরে রেলওয়ে মাঠ ঘেষে পুবালী স্কাউট বিজ্ঞান ক্লাবের পাশেই তাবু লাগিয়ে রং বেরঙের পাথর কড়ি সাজিয়ে বসেন তিনি। বাসা পার্শ্ববর্তী তারাগঞ্জে হওয়ায় প্রতিদিন আসা যাওয়া করতে হয় তাকে।
এ নিয়ে বৃহস্পতিবার (১৯ এপ্রিল) কথা হয় শ্রী কমল রায়ের সাথে। তিনি জানান, তারাগঞ্জে যুবক বয়সেই গুরু ননী গোপাল ঠাকুরের কাছ থেকে তিনি জ্যোতিষী শাস্ত্রের জ্ঞান নেন। গত ২২ বছর থেকে তিনি গনকের কাজ করে আসছেন। আর সৈয়দপুরে এ গনক ও আয়ুর্বেদ চিকিৎসার কাজ করে আসছেন গত ১২ বছর থেকে। বাসায় বুড়ি মা, স্ত্রী ও এক ছেলে এক মেয়ের ছোট সংসারে মেয়ের বিবাহ দিয়েছেন কয়েক বছর আগে আর ছেলে কাজ করে একটি ফলের দোকানে। আর তিনি প্রতিদিন সকালে সৈয়দপুরে এসে সন্ধ্যা পর্যন্ত ২০০ থেকে ৩০০ টাকা যা আয় হয় তা দিয়ে চালান ছোট সংসার। আপনার কাজের কতটুকু গ্যারান্টি জানতে চাইলে তিনি জানান, এটা বিশ্বাসের কথা যে বিশ্বাস করে সে পুনরায় আসে পরামর্শ নিতে। ব্যানারে পরামর্শ ফি ১০০ টা লেখা থাকলেও মানুষজন ২০, ৩০ করেই দিয়ে চলে যায় বলেন কমল জ্যোতিষী। আর এভাবে সোয়া সের চালের যোগাড় করে নিজের ৪ জনের সংসার চালাচ্ছেন তিনি।
হাতের রেখা অনুসারে বর্তমানে রেখা আপনার কাঠা, পয়সাকুড়ি কামাই করেও টিকতেছে কম, ইদিয়ানে উদিসাস উদিয়ানে ইদিসাস কামাইয়ো করেছেন ঠিক কিন্তু টাকা টেকে না, রেখা অনুসারে আপনার নিয়মনীতিও ঠিক, সব মানুষের সাথে মেশেন মনের মধ্যে তিতা নাই এলাই একজন ডাকুক চলে যাবেন, পরোপকারী লোক আপনি। হাত দেখাতে আসা একজন বয়স্ক মানুষের হাতের রেখার দিকে তাকিয়ে এক নিঃশ্বাসে এভাবে বলে যাচ্ছিলেন জ্যোতিষী কমল রায়। কথা হয় হাত দেখাতে আসা বোতলাগাড়ী ইউনিয়ন শ্বাসকান্দর গ্রামের রফিকুলের সাথে। তিনি জানান, জমি জামা নিয়ে মামলা মোকদ্দমাসহ পারিবারিক অনেক ঝামেলায় আছি। গনকের উপর বিশ্বাস তেমন না হলেও হাত দেখাতে কোন সমস্যা দেখেন না তিনি।
অতিত, বর্তমান, ভবিষ্যত সময়ের শুভাশুভ ফল নির্ণয়, রাশিফলের ব্যাখ্যা, বিভিন্ন রাশি গ্রহের সমাধান, যেকোন গ্রহের সমস্যার জন্য, রোগ, শোক, মামলা মোকদ্দমা থেকে রেহাই, মানসিক অশান্তি দুর, বিবাহ বিচ্ছেদ, প্রেমে ব্যর্থ, উন্নতিতে বাধা, সন্তান লাভে ব্যাঘাত, ব্যবসায় অবনতি, দুর্ঘটনা শত্র“র ভয় দুরিকরণ ইত্যাদির জন্য হাতের রেখা দেখে সুপরার্শ ও মাধুলীর পাশাপাশি যেকোন রোগের সুচিকিৎসা দেওয়ার ব্যানার টাঙ্গিয়ে প্রতিদিন বসেন তিনি উল্লেখিত যায়গায়।
বর্তমান যুগে গনক বা জ্যোতিষীদের প্রতি মানুষের বিশ্বাস অনেক কমে গেলেও মানুষের সাথে জ্যোতিষী বা জ্যোতিষশাস্ত্রের সম্পর্ক সেই প্রাচীন আমল থেকেই। ইতিহাস বলে থাকে, অতীতে রাজা-বাদশাহদের থেকেও বেশি ক্ষমতাশালী ছিল জ্যোতিষীরা। তাদের নাম শুনলে প্রজারা তো বটেই রাজারাও কেঁপে উঠতেন। সম্রাটরা তাদের বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ নেওয়ার কথা মাথায়ও আনতেন না। জ্যোতিষীদের প্রভাব অতিতের মত বর্তমানে তেমন না থাকলেও কিছু কিছু বিশ্বাস রয়ে গেছে বলে আজও পত্রিকার পাতায় ফুটবল বিশ্বকাপ, অলম্পিকসহ বিভিন্ন আসরে জ্যোতিষীর ভবিষ্যতবাণীর কথা চোখে পড়ে।
কিন্তু সময়ের পরিক্রমায় তাদের সেই ক্ষমতা হ্রাস পেয়েছে। সাথে সেই জ্যোতিষীদের প্রতি বিশ্বাসও কমে গেছে অনেক মানুষের। কিন্তু তারপরেও জ্যোতিষশাস্ত্রের ওপরে রয়ে গেছে কিছু মানুষের বিশ্বাস। এবং সেই কিছু বিশ্বাসী মানুষদের বিশ্বাসকে পুজি করে আজও চলছে কমল রায়ের মত জ্যোতিষীদের সংসার।

Print Friendly, PDF & Email