CC News

জয়পুরহাটে শিক্ষক প্রশিক্ষন কলেজের অনিয়মের দেড় যুগ!

 
 

মোমেন মুনি, বিশেষ প্রতিনিধি, ০৭ মে: জয়পুরহাটের সদর উপজেলার জয়পুরহাট-পাঁচবিবি সড়কের পার্শ্বে পাকুরতলী নামক স্থানে অবস্থিত জয়পুরহাট বিএড কলেজ। এই শিক্ষক প্রশিক্ষন কলেজটি প্রায় দেড় যুগ ধরে চলছে কোন স্থায়ী শিক্ষক ছাড়াই। মাত্র ৩ জন খন্ডকালীন শিক্ষক দিয়ে বৃহষ্পতিবার ও সোমবার মাত্র ৩ ঘন্টা পাঠদান চলে শিক্ষক প্রশিক্ষন কলেজটিতে। এ ছাড়াও কোন নিয়ম-নীতি না থাকলেও ওই শিক্ষক প্রশিক্ষন কলেজটির শিক্ষার্থীদের থেকে কোর্স ফি বাবদ কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে কলেজটির অধ্যক্ষ ও সভাপতির বিরুদ্ধে।
সরেজমিনে জানা গেছে, ২০০০ সালের দিকে স্থাপিত জয়পুরহাট বিএড কলেজ নামের শিক্ষক প্রশিক্ষন কলেজটির জন্য ব্যাংকের সংরক্ষিত তহবিলে কমপক্ষে ৫ লাখ টাকা মজুত রাখার বিধান থাকলেও কোন টাকা নেই। কলেজ স্থাপনের জন্য ১ একর ৫২ শতক জমি থাকা বাধ্যতামূলক হলেও ভূয়া দলিল দেখিয়ে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের চোখে ধুলা দিয়ে প্রতি বছর জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নিবন্ধন নবায়ন করে নেয়া হয় বলেও অভিযোগ রয়েছে।
নিয়ম অনুযায়ী পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দিয়ে নিয়োগ বোর্ডের মাধ্যমে চুড়ান্ত হওয়া ৮ জন পূর্নকালীন ও ৬ জন খন্ডকালীন শিক্ষকসহ প্রয়োজনীয় জনবল থাকার কথা থাকলেও সেখানে নিয়োগ বর্হিভূত মাত্র ৩ জন খন্ডকালীন শিক্ষক, ১ জন অফিস সহকারী ও এক জন পিওনকে মাঝে মধ্যে দেখা যায়। তারা হলেন, জয়পুরহাট সদরের সৃজনী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হারুন অর রশিদ, জেলা কলেক্টরেট স্কুলের অবসর প্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক তোজাম্মেল হক ও বোরহান উদ্দিন নামের আরো এক জন পার্শ্ববর্তী স্কুল শিক্ষক। উল্লেখ্য অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষকরা অযোগ্য হলেও তারা এই কলেজে ক্লাস নেন। এছাড়া এই কলেজে যে সকল খন্ডকালীন শিক্ষক কর্মরত আছেন তাদের নিজস্ব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানের অনুমোমোদন প্রয়োজন হলেও তা নাই।
নিয়োগ বহির্ভত ওই সব শিক্ষক কর্মচারীদের পারিশ্রমিক পান কাজের বিনিময়ে খাদ্য কর্মসুচির মত। প্রতি কর্মদিবসের পাঠদান বাবদ খন্ডকালীন শিক্ষকরা ৩৫০ টাকা, প্রতিমাসে অফিস সহকারী গোলাম মোস্তফাকে ৩ হাজার ৫’শ টাকা, পিওন হাফিজুল ইসলামকে ২ হাজার ও ৭৫ বছর বয়সী বৃদ্ধ নৈশ্য প্রহরী মজিবর রহমানকে ১ হাজার ৫’শ টাকা দেওয়া হয় বলে অভিযোগ করেন তারা।
এ ছাড়া নিয়ম অনুযায়ী ৮টির স্থলে মাত্র ১টি মাত্র শ্রেনি কক্ষ, ১টি অফিস কক্ষ, ১টিতে নৈশ প্রহরী বসবাস করেন, ১টিতে নৈশ্য প্রহরীর গরু, ছাগল ও হাসঁ-মুরগী থাকলেও গ্রন্থাগার ও নারী প্রশিক্ষার্থীদের কমনরুমের কোন অস্তিত্ব নাই।
হনুফা খাতুন, মেরিনা পারভীনসহ কয়েকজন বিএড প্রশিক্ষনাথী জানান, এক বছরের বিএড কোর্স ফি বাবদ বিএড কলেজ কর্তৃপক্ষ তাদের প্রতি জনের কাছ থেকে ২০ হাজার টাকা আদায় করেন। এ ছাড়া পরীক্ষা ফি বাবদ আরো ৫ হাজার টাকা দিতে হবে বলেও জানানো হয়েছে। এছাড়া নাম প্রকাশে অনেচ্ছুক বেশ কয়েক জন বিএড শিক্ষার্থী জানান, জয়পুরহাট বিএড কলেজে তেমন কোন ক্লাসই হয় না। ফলে বাড়িতে বসেই লেখাপড়া করে পরীক্ষা দিয়ে যারা মেধাবী শুধু তারাই পাশ করেন। প্রতি বছর কথিত এই বিএড কলেজের শিক্ষক-কর্মচারীর পারিশ্রমিক ১ থেকে দেড় লাখ টাকা বাদ দিয়ে আদায়কৃত কোর্স ফি’র কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ আছে সভাপতি ও অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে।
এ ভাবেই গত প্রায় ২০ বছর যাবত কথিত এই বিএড কলেজ থেকে বছরের পর বছর জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে চুরান্ত পরীক্ষা দিয়ে বিএড প্রশিক্ষনার্থীরা পাশ-ফেল করছেন। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ও প্রশাসনের চোখে ধুলা দিয়ে এই অনিয়ম-দূর্নীতি দীর্ঘ দিন ধরে চলে আসছে।
এই কলেজের অফিস সহকারী কাম হিসাব রক্ষক গোলাম মোস্তফা জানান, ২০০০ সালে স্থাপিত এই কলেজটির শুরু থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত ভর্তি হন প্রায় ২ হাজার বিএড শিক্ষার্থী। ২০১৬ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত প্রতি কোর্সে ৫০/৬০ জন করে প্রশিক্ষানার্থী ভর্তি হয়েছ্নে, যাদের প্রত্যেকের কাছ থেকে কোর্স ফি বাবদ ২০ হাজার টাকা করে আদায় করা হয়। তিনি এসব টাকা সরাসরি আদায় করে সভাপতি ও অধ্যক্ষের কাছে জমা দেন, আবার সভাপতি ও অধ্যক্ষ কখনো কখনো ব্যাক্তিগত ভাবেও প্রশিক্ষনার্থীদের কাছ কোর্স ফিসহ পরীক্ষায় বিশেষ সুবিধা দেওয়ার কথা বলেও অতিরিক্ত অর্থও আদায় করে থাকেন। এসবের কোন হিসাবে তার কাছে নাই বলেও জানান অফিস সহকারী গোলাম মোস্তফা। আগে ও পরের কোন হিসাব দেখাতে না পারলেও ২০০৩ থেকে ২০১৬ শিক্ষাবর্ষ পর্যন্ত পরীক্ষার্থীদের নিকট থেকে শুধু কোর্স ফি বাবদ প্রায় পৌনে ২ কোটি টাকা আদায় হয়েছে। আর মোট ভর্তিকৃত শিক্ষার্থীদের নিকট থেকে কোর্স ফি ও পরীক্ষার্থীদের নিকট থেকে নিয়ম বহির্ভূত অতিরিক্ত অর্থ আদায় ধরা হলে এর পরিমান প্রায় ৪ কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাবে বলে অভিযোগ করেন নাম প্রকাশে অনেচ্ছুক এই কলেজের প্রশিক্ষনার্থীরাসহ সাবেক একাধিক খন্ডকালীন শিক্ষক ও কর্মচারীগন।

কলেজের প্রহরী মজিবর রহমান ও পিওন হাফিজার রহমান জানান, সপ্তাহে ২দিন সকাল সাড়ে ৯ টা থেকে সাড়ে ১২ টা পর্যন্ত কলেজ খোলার সময় টুকুতে কিছু শিক্ষার্থী আসলেও অধিকাংশই ক্লাসে আসেন না। শুধু চুরান্ত পরীক্ষার সময় শিক্ষার্থী পরীক্ষা কেন্দ্রে উপস্থিত হয়ে পরীক্ষায় অংশ গ্রহন করেন। ‘আর প্রিন্সিপাল স্যার শুধু টাকা আদায়ের সময় কলেজে আসেন।’
এসব ব্যাপারে জানতে চাইলে কলেজ পরিচালনা কমিটির (এডহক) সভাপতি দাবী করে সিরাজ আনোয়ার হায়দার কোন সন্তোষ জনক জবাব না দিয়ে বলেন, ‘যে ভাবে বেসরকারী বিএড কলেজ চলে এই কলেজও সেই ভাবেই চলছে।’
জয়পুরহাট বিএড কলেজের অধ্যক্ষ সহিদুল ইসলাম জানান, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম অনুযাায়ী বিএড কলেজ পরিচালনার কথা থাকলেও তা সম্ভব হয় না। তবে সংরক্ষিত তহবিলের ৫ লাখ টাকা, প্রয়োজনীয় সংখ্যক শ্রেনি কক্ষ ও নিয়োগ প্রাপ্ত শিক্ষক-কমচারী না থাকাসহ বিএড কলেজের কোন নিয়ম-কানুন না মানা বিষয়ে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি কোন জবাব দিতে পারেননি।

এ ব্যাপারে জানতে চেয়ে গত ১৫ এপ্রিল জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের ও রেজিষ্টারের  ই-মেইলে চিঠি পাঠানো হলেও কোন জবাব পাওয়া যায়নি।

Print Friendly, PDF & Email