CC News

সৈয়দপুরে জমি কিনতে দিতে হয় ৫ লাখ টাকা চাঁদা!

 
 

সিসি নিউজ, ২১ মে: সৈয়দপুরে জমি কিনতে গেলে দিতে হবে ৫ লাখ টাকার চাঁদা। নচেৎ ক্রেতা ও বিক্রেতাকে সংখ্যালঘু নির্যাতনসহ বিভিন্ন কথিত মামলায় ফাঁসানো হবে বলে হুমকি প্রদানের অভিযোগ মিলেছে। গত ১৮ মে এমনই একটি ঘটনা ঘটেছে সৈয়দপুরের কয়াচাঁদমারীপাড়া এলাকায়। থানায় অভিযোগ হলেও চাঁদা দাবীকারী গ্রেফতার না হওয়ায় আতংকে আছেন জমির ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়ে।
অভিযোগে জানা গেছে, শহরের রেলওয়ে কারখানার পশ্চিম দেয়াল ঘেঁষা কয়া চাঁদমারীপাড়ার বাসিন্দা শ্রী সুনিল চন্দ্র রায় তার পৈত্রিক ৮ শতক জমির মধ্যে ৪ শতক জমি গত ১৪ মে নতুন বাবুপাড়া বাসিন্দা আমিনুল ইসলাম সবুজের কাছে বিক্রির জন্য বায়নামাপত্র সম্পাদন করেন। এরই ধারাবাহিকতায় গত ১৮ মে বিকেল ৪ টায় সুনিল চন্দ্র জমির ক্রেতা আমিনুল ইসলাম সবুজকে জমির পরিমাপ বুঝিয়ে দিতে জমিতে যান। খবর পেয়ে একই এলাকার ঈশ্বর চন্দ্র রায়ের পুত্র শ্রী কার্তিক চন্দ্র রায় (৪৫) এর নেতৃত্বে একই এলাকার উমেশ চন্দ্র রায়ের পুত্র সুবোল চন্দ্র রায় ও সুশান্ত চন্দ্র রায় অজ্ঞাত ১০-১২জনকে নিয়ে জমিতে উপস্থিত হন। নগদ ৫ লাখ টাকা ছাড়া জমি পরিমাপ করতে দেয়া হবে না এমনকি জমি বিক্রিও করতে দেয়া হবে না বলে সুনিল চন্দ্রকে হুমকি দেয়। একপর্যায়ে উভয়পক্ষের মধ্যে মারামারি শুরু হয়। এতে ক্রেতাপক্ষের মোঃ আব্দুল জব্বার আহত হন।
এদিকে, সরেজমিনে গেলে ওই এলাকার অনেকে অভিযোগ করেন, কার্তিক চন্দ্র রায় চাঁদাবাজ ও মামলাবাজ লোক। কথায় কথায় নিজেকে ক্ষমতাসীন দলের লোক পরিচয় দিয়ে মামলার ভয় দেখান। তার ভয়ে দরিদ্র জনগোষ্ঠি আতংকিত। কার্তিক চন্দ্র রায় ইতোপূর্বে এলাকার ক্লাব ঘরের আসবাবপত্র চুরি ও জনৈক ব্যক্তির চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছেন এবং এলাকার বিভিন্ন জনের নামে আদালতে মামলা দায়ের করেছেন।
জমির ক্রেতা আমিনুল ইসলাম সবুজ বলেন, আমি কাগজপত্র যাচাই করে ওই জমিটি কেনার জন্য বায়নামা করেছি। উক্ত কার্তিক চন্দ্র রায় আমার কাছেও ৫ লাখ টাকা দাবি করেন।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে কার্তিক চন্দ্র রায় চাঁদা দাবির বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, ওই জমিটি ওয়াজবদল জমি। সুনিল তার দখলে থাকা বদলী জমি বিক্রি করে এবার আমাদের দেয়া জমিটি বিক্রি করার চেষ্টা করেছিল। আমি তাতে বাঁধা দিয়েছি।
সৈয়দপুর থানার অফিসার্স ইনচার্জ শাহজাহান পাশা বলেন, কার্তিক চন্দ্র রায়ের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে অভিযোগের সত্যতা মিললে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানান।

Print Friendly, PDF & Email