CC News

বদরগঞ্জে বিক্রি হচ্ছে নিম্নমানের খেঁজুর

 
 

আজমল হক আদিল, বদরগঞ্জ (রংপুর) : রংপুরের বদরগঞ্জে অবাধে বিক্রি হচ্ছে নিম্নমানের খেঁজুর। মধ্যপ্রাচ্য হতে আমদানি করা এ সব খেঁজুরের বস্তায় মেয়াদের কোন তারিখ উল্লেখ থাকেনা। ফলে রোজাদাররা জানতেই পারছেন না তারা কি খাচ্ছেন কিংবা এ সব খেঁজুর আদৌ মান সন্মত কি না ?
খোঁজ নিয়ে জানা যায়; এসব খেঁজুর বাজারে আসার আগে রংপুর ও বগুড়া সহ দেশের বড় বড় শহরের গুদামে মজুদ করা হয়। অবাক করার বিষয় যে, যে গুদাম ঘরে খেঁজুর রাখা হয় ওই সব গুদাম ঘরের তাপ মাত্রা নিয়ন্ত্রনের কোন ব্যবস্থাই নেই। ফলে মাসের পর মাস ওই সমস্ত গুদামে নির্দিষ্ট তাপমাত্রা না থাকার কারনে এসব খেঁজুর খাবার অনুপযোগি হয়ে পড়ে।
বিক্রেতাদের সাথে কথা বলে জানা যায়; মধ্যপ্রাচ্য থেকে কখন খেঁজুর আসে তা তারা জানেন না। তারা কেবল খেঁজুর কিনে এনে দোকানে মজুদ করেন এবং বিক্রি করেন।
আরও জানা গেছে; আমদানিকারকরা বেশ কয়েক মাস আগেই মধ্যপ্রাচ্য থেকে সস্তায় খেঁজুর এনে বিভিন্ন গুদামে মজুদ করেন। দাম বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে তা বাজারজাত করেন। খেঁজুর আমদানিকারকরা বেশির ভাগই ঢাকা ও চট্রগ্রামের ব্যবসায়ি। দুবাই বন্দর থেকে জাহাজে করে চট্র্রগ্রামে খেঁজুর আনতে সময় লাগে দেড় থেকে দুই মাস। বাংলাদেশে মূলতঃ সব খেঁজুরই আসে দুবাই বন্দর হতে। কিন্তু কোন দেশের খেঁজুর তা প্যাকেটের গায়ে লেখা থাকে না। বিক্রেতারাও জানেন না এ খেঁজুরগুলো কোন দেশের। তাদের ধারনা এগুলো আসে ইরাক থেকে। তবে ইরান ও সৌদি আরবের প্যাকেটজাত খেঁজুরগুলোর মান তুলনামূলক ভাবে ভালো। চকোলেট রঙের এ খেঁজুরগুলো ঝরঝরে এবং দামও বেশি।
বদরগঞ্জ বাজারের খেজুর ব্যবসায়ি কালা মিয়া জানান; মানের ভাল মন্দ দেখলে ব্যবসা হবে না, মানুষ ঝরঝরে খেঁজুর নিতে চায় না দাম বেশির কারনে। তাই ভেজা খেঁজুর আনা হয়।
অপর খেঁজুর ব্যবসায়ি খলিল মিয়া জানান; তারা ভেজা বস্তার খেঁজুর কিনলেও তা পরিস্কার পানিতে ধুঁয়ে বিক্রি করেন। এতে খেঁজুরের গন্ধ ভাবটা কমে যায়।
বদরগঞ্জ উপজেলা স্যানেটারি পরিদর্শক শহিদুল ইসলাম জানান, খাদ্যে ভেজাল প্রতিরোধে অচিরেই অভিযান পরিচালিত হবে।
বদরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ আঃ হাই রুবেল জানান; নি¤œœ মানের খেঁজুর খাওয়ার কারনে মানুষের পেটের পীড়া সহ নানাবিধ সমস্যা দেখা দিতে পারে।
বদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহি অফিসার রাশেদুল হক জানান, প্রতি রমজানে খাদ্যে ভেজাল প্রতিরোধে অভিযান পরিচালিত হয়। এবারও এর ব্যতিক্রম হবে না।

Print Friendly, PDF & Email