CC News

ঝিনাইদহে যুবকের সাথে শিশুর বিয়ে!

 
 

জাহিদুর রহমান তারিক, ঝিনাইদহ: ঝিনাইদহে ৩৬ বছরের যুবকের সাথে ৮ বছরের শিশুর বিয়ে দেওয়া নিয়ে প্রশাসনে তোলপাড় শুরু হয়েছে। এই আজব বিয়ের ঘটনা ফাঁস হওয়ায় বিপাকে পড়েছেন বিয়ের সাথে জড়িতরা। ইতিমধ্যে বাল্য বিয়েতে সহায়তার দায়ে ঝিনাইদহ নোটারি পাবলিকের আইনজীবী এড জাহাঙ্গীর কবির ও এড মীর আক্কাস আলীকে শোকজ করা হয়েছে। ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসনের দপ্তর থেকে এই শোকজ নোটিশ পাঠানো হয়। ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সোহেল সুলতান জুলকার নাইন কবির। তথ্য নিয়ে জানা গেছে, ঝিনাইদহ শহরের মোশারফ হোসেন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেনির ছাত্রী মাসুরা খাতুনকে বিয়ে দেওয়া হয়েছে কোরাপাড়া গ্রামে জাহাঙ্গীর হোসেনের সাথে। শিশু মাসুরা খাতুন নতুন কোর্টপাড়ার ওমর আলীর মেয়ে। অন্যদিকে জাহাঙ্গীর হোসেন কোরাপাড়া গ্রামের হারুন অর রশিদের ছেলে। সে পেশায় বাসের হেলপার। এদিকে ঘটনা জানাজানি হয়ে গেলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সোহেল সুলতান জুলকার নাইন কবীরের হস্তক্ষেপে ২য় শ্রেনির ছাত্রী মাছুরাকে তার মায়ের কাছে ফিরিয়ে দেন। মাছুরার মা শাপলা খাতুন জানান, তার মেয়ের জন্ম তারিখ ২০০৯ সালের ৩১ ডিসেম্বর। এতে তার বয়স হচ্ছে ৮ বছর। তিনি আরও জানান মেয়ে লেখা পড়ায় ভালো না। তাই বিয়ের কাবিন করে রেখেছিলাম। ১৬ বছর পূর্ন হলে তখন জামাই বাড়ি উঠায়ে দেব। পাগলাকানাই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলামের দেওয়া জন্ম নিবন্ধন সনদেও মাছুরার বয়স সাড়ে ৮ বছর। তবে মেয়ের পিতা ওমর আলীর হলফনামায় মেয়ের বয়স ৮ বছরের কথা বলা হয়েছে। এদিকে মাছুরার পিতা ওমর আলী ৩ জন সাক্ষির উপস্থিতিতে এক হলফনামায় উল্লেখ করেছেন, আইনসিদ্ধ না হওয়ায় তিনি এই বিয়ে বাতিল ও ছেলে পক্ষের সাথে সব সম্পর্ক ছিন্ন করেছেন। খোজ নিয়ে জানা গেছে, বিয়ে হওয়ার পর বাসের হেলপারি শেষে নতুন বর জাহাঙ্গীর প্রতি রাতেই শ্বশুর বাড়ি এসে রাত যাপন করতো। এতে প্রতিবেশিরা ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন। এদিকে বয়স গোপন করে নোটারী পাবলিক করায় জনমনে এই প্রতিষ্ঠানটির প্রতি সন্দেহ ও প্রশ্ন উঠেছে। কতিপয় আইনজীবী ও তাদের নিয়োজিত মহুরীরা এই অসৎ কাজের সাথে ব্যাপক ভাবে জড়িয়ে পড়ছে। বড় অংকের টাকা নিয়ে তারা এধরনের জাল জোচ্চুরিতে লিপ্ত হচ্ছে। যার জলন্ত প্রমান হচ্ছে ৮ বছরের শিশু মাছুরার বিয়ে। এ ব্যাপারে মোশারফ হোসেন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক মিজানুর রহমান জানান, তাদের ছাত্রী মাছুরার বিয়ে হয়ে গেছে বলে আমরাও জানতে পেরেছি। তবে এটা অন্যায় কাজ হয়েছে।

হতদরিদ্রদের বরাদ্দের টাকা জাল স্বাক্ষরে উত্তোলন!
ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ডু উপজেলার রঘুনাথপুর ইউনিয়নে অতিদরিদ্রদের জন্য বরাদ্দকৃত ৪০ দিনের কর্মসূচির টাকা জাল স্বাক্ষর করে টাকা উত্তোলনের অভিযোগ। এই ঘটনায় ৪জন ওয়ার্ড মেম্বর ও সংশ্লিষ্ট প্রকল্পের সভাপতির স্বাক্ষরিত একটি অভিযোগ দুর্নীতি দমন কমিশন, বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে পাঠানো হয়েছে। একই ঘটনায় ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ড মেম্বর সাইদুল ইসলাম বাদী হয়ে ইউপি চেয়ারম্যান ও পিআইওসহ ৪জনকে আসামী ঝিনাইদহ আদালতে একটি মামলা দায়ের করেছেন (যার মামলা নং-১৬/১৮ইং)। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে (পিবিআই) পুলিশের কর্মকর্তা সোহেল আহমেদকে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। মামলার আসামীরা হলেন ইউপি চেয়ারম্যান রাকিবুল হাসান রাসেল, ট্যাক অফিসার জবা খাতুন, উপ-সহকারী প্রকৌশলী হাবিবুর রহমান, প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসার মুহাম্মদ আব্দুর রহমান। মামলার বিবরণে উল্লেখ করা হয়েছে,২০১৭-১৮ অর্থ বছরের অতিদরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচির কাজ ২০১৭ সালে ২৩ ডিসেম্বর মাসে শুরু হয়। এই ৩টি প্রকল্পের জন্য মোট ১৭৪জন শ্রমিক বরাদ্দ নির্ধারন করা হয়। ৪০ দিন কাজ করার কথা থাকলেও ৩৫দিন কাজ করা হয়েছে। বাকি ৫ দিন কাজ না করেই প্রকল্পের সভাপতি ও শ্রমিকদের সই জাল করে ইউপি চেয়ারম্যান রাকিবুল হাসান রাসেল জনতা ব্যাংকের ম্যানেজার সিরাজুল আলমের সহযোগিতায় নগদ ১ লাখ ৭৪ হাজার ৭৫০ টাকা উঠিয়ে নিয়েছেন। নিয়ম রয়েছে শ্রমিকদের পাওনা স্ব-স্ব এ্যাকাউন্টের চেকের মাধ্যমে টাকা পরিশোধ করতে হবে। কিন্তু নিয়ম অমান্য করে ম্যানেজার ও চেয়ারম্যান মাস্টার রোলের মাধ্যমে শ্রমিকদের টাকা পরিশোধ করেছেন। শ্রমিক সুখি, গঙ্গারাম, আমেনা, রহিম, দবির, ফজলুর, কার্তিক, নবীসন ও বাবলুর রহমান সাংবাদিকদের জানান, ১৪ এপ্রিল ২য় ধাপে ইউনিয়নে ৪০দিনের কাজ শুরু হয়। সেখানে আমাদের চেকের মাধ্যমে ২০দিনের ৩৫শত টাকা পরিশোধ করা হয়েছে। কিন্তু একই দিনে চেয়ারম্যান ও ব্যাংক ম্যানেজার নিজেদেরকে বাঁচাতে সাদা কাগজে ১হাজার ও ৩৫ টাকার মাস্টার রোলে সই করে নিয়েছেন। এব্যাপারে চেয়ারম্যান রাকিবুল হাসান রাসেল ও ব্যাংক ম্যানেজার সিরাজুল আলম জানান অতিদরিদ্রদের কর্মসুচির টাকা পিআই্ও অফিসের নির্দেশ অনুযারী উঠানো হয়েছে। আমরা বুঝতে পারিনি এবং পরবর্তী এই ভুল আর হবে না। হরিণাকুন্ডু উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসার মুহাম্মদ আব্দুর রহমান জানান, এধরনের নির্দেশ পিআইও কখনো কারো দেয় না। আমরা টাকাগুলি স্ব-স্ব শ্রমিকের একাউন্টে প্লেস করে দিয়েছি। নিয়ম রয়েছে চেকের মাধ্যমেই শ্রমিকদের টাকা পরিশোধ করতে হবে।

পত্রিকায় লিখে কোন কিছুই হবে না!
ঝিনাইদহে প্রায় ৬টি উপজেলার শহরগুলোতে ও বিভিন্ন হাট-বাজারে ব্যাঙের ছাতার মতো গড়ে উঠেছে নসিমন, করিমন, ব্যাটারি চালিত অটোভ্যান, লাটাহাম্বার ও আলম সাধু তৈরীর ৭০টির ও অধিক অবৈধ যান কারখানা। জানা গেছে, প্রশাসনের কিছু কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করে চলছে এই সমস্থ অবৈধ কারখানায় নসিমন, করিমন, ব্যাটারি চালিত অটোভ্যান, আলম সাধু ও লাটাহাম্বার তৈরির রমরমা ব্যবসা। উপজেলা শহরগুলোতে ও বিভিন্ন হাট-বাজারে শহরে কিছু অসাধু ব্যবসায়ীরা এসকল কারখানার মালিক হয়ে রাতারাতি বিপুল অর্থের মালিক বনে যাচ্ছেন। অভিযোগ উঠেছে জেলার সদওে ও কালীগঞ্জ শহরেই গড়ে উঠেছে এ ধরনের ছোট বড় প্রায় ৩০টি কারখানা। এ সমস্থ কারখানাগুলো প্রশাসন দেখলেও না দেখার ভান করে থাকেন। এলাকাবাসীর জোর দাবী, মাঝে মাঝে এসব কারখানাগুলোতে জেলা প্রশাসনের তদারকিতে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে অভিযান পরিচালনা করে এই সমস্থ প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ করাসহ কারখানা মালিকদের জেল জরিমানা ব্যবস্থা করা উচিৎ। সূত্রমতে, মালিক পক্ষ অনেক বেশি প্রভাবশালী হওয়ার কারণে কিছুদিন পর পর মোটা অঙ্কের অর্থের বিনিময়ে প্রশাসনকে ম্যানেজ করে তাদের কারখানায় অবৈধ যান তৈরির রামরাজত্ব চালিয়ে যাচ্ছে। অথচ এধরনের কারখানায় অবৈধ স্যালো ইঞ্জিন চালিত যানবাহন তৈরীর নেই কোনো বৈধ সরকারি অনুমতিপত্র।

সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, সদরের দশমাইল, ডাকবাংলা বাজার, হরিনাকুন্ড,ু শৈলকুপা, মহেশপুর, কোটচাঁদপুর সহ কালীগঞ্জ কলা হাটার পশ্চিমে ঝিনাইদহ-যশোর মহাসড়কের গা ঘসে গড়ে উঠেছে অবৈধ্য স্যালো ইঞ্জিন চালিত সবচেয়ে বড় রেজাউল ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কসপ, এর মালিক রেজাউল ইসলাম, এই কারখানা করে অল্প কিছু দিনের ব্যবধানে অনেক টাকার মালিক হয়েছে সে। মেইন বাসষ্ট্যান্ডে ওলিয়ারের গ্যারেজ, কুদ্দুসের গ্যারেজ মডার্ণ ইঞ্জিনিয়ারিং সহ অনেক ছোট-বড় বেশ কয়েকটি এই অবৈধ স্যালো ইঞ্জিন চালিত কারখানা। এসকল কারখানায় সরকারী কোনো অনুমতি ছাড়াই দিনরাত চলেছে ইঞ্জিনভ্যান তৈরির কাজ। এতে করে সরকার একদিকে যেমন বিপুল অঙ্কের টাকা রাজস্ব হারাচ্ছে অন্যদিকে ব্যাপক শব্দ দুষণে পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে। কারখানার এক শ্রমিক নাম না প্রকাশ করার শর্তে জানায় যে, আমরা প্রশাসনসহ সবাইকে টাকা দিই এটা পত্রিকায় লিখে কোন কিছুই হবে না। আমাদের কাজ চলবেই। কেমন লাভ হয় জিজ্ঞেস করলে জানায়, আমরা মাসে ৩০ থেকে ৩৫টি ইঞ্জিনভ্যান, ব্যাটারি চালিত অটো ভ্যান, করিমন, আলমসাধূ ও লাটাহাম্বার তৈরী করে থাকি। মালিকরা মাস চুক্তি মোটা অঙ্কের অর্থের বিনিময়ে প্রশাসনের কিছু কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করে অবৈধ কারখানা গড়ে তোলার সুযোগ দিয়েছে।

নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে, একটি ইঞ্জিনভ্যান তৈরি করতে সকল খরচ বাদে মালিকের লাভ হয় প্রায় ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা। শহরের এত কাছাকাছি সরকারের অনুমতি ছাড়াই এসব অবৈধ নসিমন, করিমন, ইঞ্জিনভ্যান, ব্যাটারি চালিত অটো ভ্যান তৈরি হলেও পুলিশ প্রশাসনের কোনো মাথা ব্যথা নেই। এ সব অবৈধ কারখানায় দিনে দিনে বৃদ্ধি পাচ্ছে শিশু শ্রমিকের সংখ্যা। আর এ কারনে প্রতিনিয়ত মহাসড়কগুলোতে দুর্ঘটনা ঘটছে অহরহ। ফলে অকালে প্রাণ হারাচ্ছে অসংখ্য পথচারীসহ সব বয়সী মানুষ। এসকল অবৈধ স্যালো ইঞ্জিন চালিত গাড়িগুলোর নেই কোনো হর্ন, ব্রেক ও গিয়ার। তাছাড়া অবৈধ ইঞ্জিন ভ্যান, নছিমন, করিমন, আলমসাধু, লটাহাম্বার, ব্যাটারি চালিত আটো ভ্যানের চালকরা অধিকাংশ অপ্রাপ্ত বয়স্ক শিশু ও অদক্ষ চালক। সরকারি নিয়ম অনুযায়ী এসব অবৈধ যান তৈরি ও চলাচলে বিধি নিষেধাজ্ঞা থাকলেও প্রশাসনের কর্তা ব্যক্তিরা না দেখার ভান করে রমরমা ভাবে চালাতে সাহায্য করছে অবৈধ যান তৈরির কারখানা। অভিজ্ঞ মহলের অভিমত, এসব অবৈধ যান তৈরির কারখানা বন্ধসহ অনতি বিলম্বে সড়কে এসব যান চলাচল বন্ধের ব্যবস্থা না হলে দুর্ঘটনার পরিমান বেড়েই চলবে। এর ফলে পাল্লা দিয়ে অকালে পথচারীদের প্রাণ হানি বেড়েই চলবে। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে সদও উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাম্মি ইসলাম বলেন, এগুলো এভাবে তৈরী করার কোন নিয়ম নেই। এটা সম্পূর্ণ অবৈধ এর বিরুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আগামী আইন শৃংখলা মিটিংয়ে আমি অবশ্যই এ ব্যাপারে আলোচনা করে ব্যবস্থা গ্রহন করবো।

চেম্বার অব কমার্স ইন্ডাস্ট্রি’র ইফতার মাহফিল
ঝিনাইদহ চেম্বার অব কর্মাস এন্ড ইন্ডাস্ট্রি’র আয়োজনে দোয়া ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার শহরের হামদহে কমার্স ভবনে ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। এসময় ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হাই এমপি, জেলা প্রশাসক সরোজ কুমার নাথ, পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান, ঝিনাইদহ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাম্মী ইসলাম, চেম্বার অব কর্মাসের সহ-সভাপতি রেজাউল ইসলাম, নাছিম প্রমুখ। অনুষ্ঠানের সার্বিক তত্বাবধানে ছিলেন ঝিনাইদহ চেম্বার অফ কর্মাসের সভাপতি ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক পৌর মেয়র আলহাজ সাইদুল করিম মিন্টু। পরিচালনা করেন জেলা বাস-মিনিবাস মালিক সমিতির সভাপতি রোকনুজ্জামান রানু, ও চেম্বার অব কর্মাস এন্ড ইন্ডাস্ট্রি’র সহ-সভাপতি নাসিম উদ্দিন। ইফতার মাহফিল দোয়া পরিচালনা করেন ঝিনাইদহ কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের পেশ ইমাম মাওলানা মোঃ দেলোয়ার হোসেন।

Print Friendly, PDF & Email