CC News

জয়পুরহাটের ১৮ দিন ধরে নিখোঁজ গার্মেন্টস কর্মী

 
 

মোমেন মুনি, জয়পুরহাট , ০২ জুন: জয়পুরহাট সদর উপজেলার গঙ্গাদাসপুর গ্রামের মৃত তাজের উদ্দিনের মেয়ে ও গাজীপুরের জয়দেরপুর এলাকার একটি গার্মেন্টস কর্মী ফেন্সি খাতুন (২৮) গত ১৮ দিন ধরে নিখোঁজ রয়েছেন। গত ১৬ মে জয়দেবপুর উপজেলার নান্দুয়ান এলাকার ভাড়া বাড়ি থেকে বের হয়ে আর ফিরে আসেননি ফেন্সি। এ ব্যাপারে তার স্বামীর নিরব ভূমিকার কারনে তাকে সন্দেহ করে অজানা আশঙ্কায় দিন কাটছে ফেন্সির স্বজনদের।
জানা গেছে, গত ২০০৯ সালের ২৭ জানুয়ারী জয়পুরহাট সদর উপজেলার গঙ্গাদাসপুর গ্রামের মৃত তাজের উদ্দিনের মেয়ে ফেন্সির সাথে দিনাজপুর জেলার খানসামা উপজেলার বাসলি পাট্ট-জয়গঞ্জ গ্রামের নূরল ইসলামের ছেলে সাখাওয়াত হোসেনের সাথে তার বিয়ে হয়। বিয়ের কিছু দিনের মধ্যে সাখাওয়াত ও তার পরিবার যৌতুকের জন্য ফেন্সিকে শারীরিক ও মানষিক ভাবে নির্যাতন করত বলে ফেন্সির স্বজনরা অভিযোগ করেন।
ফেন্সির ছোট বোন বুলি খাতুন ও ভাই আব্দুল মান্নান এমন অভিযোগ করে আরো বলেন, এরই মধ্যে তাদের বাবা ও মা মারা গেলে ফেন্সির উপর নির্যাতন বাড়তে থাকে। এরই এক পর্যায়ে গার্মেন্টসে শ্রমিকের কাজ নিয়ে সাখাওয়াত ও ফেন্সি গাজীপুর যান। এর কিছিুদিন পরেই তাদের ঘরে এক কন্যা সন্তান জন্ম নেন যার বর্তমান বয়স ৯ মাস।
গার্মেন্টসে কাজ নেওয়ার পর কিছুটা স্বচ্ছলতা ফিরে আসলেও স্বামী সাখাওয়াত প্রায় ফেন্সিকে মারধর করতেন বলেও তারা অভিযোগ করেন তার স্বজনরা। বেশ কিছু দিন বোনের খোঁজ খবর না পেয়ে বুলি গত ১৭ মে থেকে ২/৩ দিন ধরেও ফেন্সিকে ফোন করলেও তা না ধরায় তাদের সন্দেহ হয়।
এ কারনে গত ২১ শে মে, বুলি ও তার স্বামী তারজুল ইসলাম বাবু জয়দেবপুর তাদের ভাড়া বাসায় গিয়ে শুধু সাখাওয়াত ও শিশু কন্যাকে দেখলেও ফেন্সিকে না দেখতে পেয়ে এ ব্যাপারে সাখাওয়াত কে জিজ্ঞাসা করে কোন সদুত্তোর না পাওয়ার তাদের সন্দেহ ঘনিভুত হয়। পরবর্তীতে তারা ওই দিনই জয়দেবপুর থানায় গিয়ে সাধারন ডায়েরী করেন (সাধারন ডায়েরী নং-১৪৭৫)
ফেন্সি’র বাবার বাড়ি গঙ্গাদাসপুর গ্রামের ফারুখ হোসেন, আব্দুর রাজ্জাক, রুহুল আমিন, মিজানুর রহমানসহ এলাকাবাসী জানান, সাখাওয়াত ও ফেন্সির দাম্পত্য কলহের খবর কমবেশী লেগেই থাকত। এরই এক পর্যায়ে ফেন্সির নিখোঁজ হওয়ার বিষয়টি তারা মেনে নিতে পারছেন না। এ ছাড়া ফেন্সির নিখোঁজের ১৮দিন পেরিয়ে গেলেও তার স্বামী নিশ্চুপ থাকায় তারা সন্দেহ করছেন তাকে হত্যা বা গুম করা হতে পারে বলে গ্রামবাসীদের আশঙ্কা এবং এ ব্যপারে দায়ভার তাকেই নিতে হবে বলে গ্রামবাসীদের অভিযোগ।
এ ব্যাপাারে কথা কলতে অভিযুক্ত সাখাওয়াত হোসেনের ০১৭১৭-১৭৮৬১৬ নম্বরে মোবাইল ফোনে বারবার ফোন করা হলেও তিনি ফোনটি ধরেন নি।
গাজীপুরের জয়দেবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আমিনুল ইসলাম জানান, এ বিষয়টি নিয়ে থানায় জিডি করা হয়েছে ও তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলেও জানান ওসি।

Print Friendly, PDF & Email