CC News

সৈয়দপুরে জমতে শুরু করেছে ঈদ বাজার

 
 

।। নওশাদ আনসারী।। মুসলিম সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল ফিতরের বাকি আরও বেশ কিছুদিন। তবে ঝামেলা এড়াতে এরই মধ্যে অনেকেই সেরে ফেলছেন ঈদের কেনাকাটা। বছরের এই একটি উৎসবকে কেন্দ্র করে ঘরে ঘরে শুরু হয়েছে কেনাকাটার ধুম। তাই ঈদকে সামনে রেখে ক্রেতাদের আগমনে জমতে শুরু করেছে সৈয়দপুরের বিভিন্ন মার্কেটগুলো। ফলে বেচাবিক্রিও জমেছে বেশ। দিন রাত যখনই সুযোগ হচ্ছে তখনই ঈদের কেনাকাটায় বেরিয়ে পড়ছেন নারী পুরুষরা। তবে সন্ধ্যা হলেই ভিড় বাড়ছে বেশি। সৈয়দপুর সুপার মার্কেট, নিউ ক্লোথ মার্কেট, সৈয়দপুর প্লাজা ও শিল্প সাহিত্য সংসদ মার্কেটের বিভিন্ন বিপনি বিতানগুলো সন্ধ্যার পরে ক্রেতাদের আগমনে সরগরম। দাম গত বছরের তুলনায় কিছুটা বেশি হলেও ঈদের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে ততই জমে উঠতে শুরু করেছে ঈদ বাজার।
শুক্র ও শনিবার সাপ্তাহিক ছুটির দিন হওয়ায় ক্রেতা সমাগম ও বিক্রিও বেড়েছে। তবে বিক্রেতাদের মতে ঈদের কেনাকাটা পুরোদমে জমবে ১৫ রোজার পর। বাজার ঘুরে দেখা গেছে এবার ভারতীয় কাপড়গুলোকে পিছনের ফেলে বাজার দখল করেছে দেশি সুতি কাপড়গুলো। গরমকাল থাকার কারনে দেশি সুতি থ্রিপিসগুলো পছন্দ ও বিক্রির শীর্ষে রয়েছে। সমানতালে বিক্রি হচ্ছে ইন্ডিয়ান গাউন ও কাজ করা লং ফ্রকগুলো। এছাড়া টুপার্ট, ফোরপার্ট, কুর্তি, জিপসি, সারারা, গারারা ফোরপিস অরগেন্ডিও বিক্রি হচ্ছে বেশ। বরাবরের মত এ বছরও হিন্দি সিনেমা আর সিরিয়ালের নামনুসারে বিক্রি হচ্ছে ভারতীয় পোশাকগুলো। এছাড়া বাজার ধরেছে পাকিস্তানী লংফ্রক।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে সৈয়দপুর নিউ ক্লথ মার্কেটের থ্যাংক্স ক্লোথ স্টোর, মিলন ক্লোথ স্টোর, আলহাজ্ব ক্লোথ স্টোর, সৈয়দপুর প্লাজার পিন্ধন, দর্শিনী, নিলম্বরী, হোয়াইট হাউজ, সাউদি ফ্যাশন, সৈয়দপুর নিউ সুপার মার্কেটের বাগদাদ ক্লোথ স্টোর, কোহিনুর ক্লোথ স্টোর, আসফাক ক্লোথ স্টোর, সাজু ক্লোথ স্টোর সহ বিভিন্ন বিপনী বিতানগুলোতে এ বছর মেয়েদের জন্য দোকানিরা এনেছেন দেশি কাপড় গোল, হার্ট বালিকা, লাসা, এছাড়া পাকিস্তানি লংফ্রক রাজমহল, ইন্ডিয়ান বিনয়, আভনি, গুজরাটি, কাশিশসহ রয়েছে বিভিন্ন ধরনের লেহেঙ্গা সারারা, গারারা। গত বছরের অরগেন্ডি, বাহুবালী, বাজিরা মাস্তানির মত এবার বিক্রির শীর্ষে দেশি সুতি থ্রিপিসগুলো। দেশি সুতি থ্রিপিসগুলো বিক্রি হচ্ছে ১২শ থেকে দুই হাজারের মধ্যে। অপর দিকে ভারতীয় গাউন, লাসা কাপড়সহ বিভিন্ন ধরনের থ্রি-পিস বিক্রি হচ্ছে ৩ হাজার থেকে ৫ হাজার টাকায়। লংফ্রক দুই হাজার থেকে আট হাজার টাকা। এদিকে চাহিদার শীর্ষে ছেলেদের ক্যাটলোক পাঞ্জাবি বিক্রি হচ্ছে ১২শ থেকে ১৮শ টাকার মধ্যে। এছাড়া জিন্স প্যান্ট, গ্যাবাডিং প্যান্টের পাশাপাশি কালার ফুল শার্ট, চেক শার্ট, এক কালার শার্ট রয়েছে পছন্দের তালিকায়। জিন্স প্যান্ট ৬শ থেকে দুই হাজার, এবং শার্ট ৪ শত থেকে পনেরোশো পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে। ৯শ থেকে ১৫শ টাকার মধ্যে বিক্রি হচ্ছে ছোটদের লেহেঙ্গা। এছাড়া টোপ,স্কাট, ফ্রোকও রয়েছে ছোটদের পছন্দের তালিকায়।
সৈয়দপুর নিউ সুপার মার্কেট বাগদাদ ক্লোথ স্টোরের সামদানী ও সাজু ক্লোথ স্টরের সাজু সিসি নিউজকে জানান, বিক্রির দিক দিয়ে দেশি সুতি থ্রিপিসগুলো ভালই বাজার ধরেছে। পাশাপাশি ইন্ডিয়ান গাউনের বিক্রিও ভাল। গরমকালে সুতি কাপড়ে আরাম বেশি বলে দেশিয় সুতি থ্রি-পিস পছন্দ করছে মেয়ে ক্রেতারা।
চিকলি তারাগঞ্জ থেকে কেনাকাটা করতে আসা কলেজ ছাত্রী রোকাইয়া ইসলাম বলেন, গাউন কাপড়ের পাশাপাশি দেশি সুতি থ্রিপিস নিয়েছি। দাম গত বছর থেকে কিছুটা বেশি মনে হলেও কাপড় পছন্দ হয়েছে বলে দাম বেশি হলেও নিয়েছি।
নতুন বাবুপাড়া থেকে আসা ক্রেতা জেসমিন তার ছোট মেয়ের জন্য নিয়েছেন লেহেঙ্গা। তিনি জানান, ভালো-সুন্দর কালেকশন শেষ হয়ে যাবে তাই আগে ভাগে শিশুদের পোশাক কিনে নিচ্ছেন। এছাড়া ভারতীয় কাপড়ের ডিজাইন ও রং ভাল লাগলেও দাম কিছুটা বেশি মনে হয়েছে বলে তিনি নিয়েছেন পাকিস্তাানি গাউন কাপড়।
থ্যাংকস ক্লোথ স্টরের স্বত্বাধিকারী একরামুল হক ও আসফাক ক্লোথ স্টোরের রকি জানান, দেশি কাপড়ের পাশাপাশি ভারতীয় ও পাকিস্তানি কালেকশনও ভালো চলছে। তবে বিক্রি বেশি দেশি সুতি কাপড়ের। ক্রেতার চাহিদানুসারে আমরা দেশি-বিদেশি দুই ধরনের পোশাকই বিক্রি করছি। সন্ধ্যার পর থেকে ক্রমে ক্রেতা বাড়ছে। এবার টাঙ্গাইল শাড়ি ৬০০ টাকা থেকে ৯০০ টাকা, জর্জেট শাড়ি ১২০০ টাকা থেকে ২০০০ হাজার টাকা, সিল্ক শাড়ি দেড় হাজার থেকে পাঁচ হাজার টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে বলে তিনি জানান। এছাড়া এমব্রয়ডারি, ব্লক, হাতের কাজ, স্ক্রিন প্রিন্স ও কারচুপির কারুকাজ এসব শাড়িতে এনেছে অন্যান্য সৌন্দর্য।

Print Friendly, PDF & Email