CC News

সৈয়দপুর সিটি কর্পোরেশন : সম্ভাব্যতা রয়েছে, প্রয়োজন ‌ঐক্যমত

 
 

॥ সাব্বির আহমেদ সাবের ॥

 

সর্বত্র আলোচনায় ‘সৈয়দপুর সিটি কর্পোরেশন’ প্রসঙ্গ। এ সংক্রান্ত একটি পোষ্ট ভাইরাল হয়ে ছড়িয়ে পড়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে। আর এতেই অনুপ্রাণিত শহরের বর্তমান প্রজন্মের অনেক তরুণ। পোষ্টটিতে উল্লেখ করা হয়েছে, একটি শহর সিটি কর্পোরেশনে উন্নীত হওয়ার যেসব শর্ত পূরণ হওয়া প্রয়োজন, তার সবই অনুকূলে রয়েছে সৈয়দপুর পৌরসভায়। এসব তুলে ধরে জনমত গঠন করে যথাযথ কর্তৃপক্ষের বরাবরে দাবি উত্থাপন করলেই সৈয়দপুর পৌরসভাকে সিটি কর্পোরেশনে উন্নীত করা সম্ভব। ফেসবুকে এ বিষয়ে কিছু দালিলিক প্রমাণপত্র সংযুক্ত করেছেন তামিম রহমান নামের এক তরুণ।
স্থানীয় সরকার সূত্র মতে, দেশের পুরাতন ১৯টি জেলার মধ্যে ৮টিসহ বর্তমানে ১২টি সিটি কর্পোরেশন রয়েছে। এছাড়াও ৫টি সিটি কর্পোরেশন বাস্তবায়ন প্রক্রিয়াধিন।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারের আমলে বৃহত্তর রংপুর-দিনাজপুরের ৮ জেলা নিয়ে রংপুর বিভাগ এবং রংপুর মহানগরীকে সিটি কর্পোরেশনে উন্নীত করা হয়।
স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় সূত্র মতে, নতুন সিটি কর্পোরেশন প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে বিদ্যমান পৌরসভার আয়ের উৎস, এলাকার অর্থনৈতিক গুরুত্ব, অবকাঠামোগত সুবিধাদি, পৌরসভার আয়তন, সম্প্রসারণের সুযোগ, পৌরসভার আয় ও ব্যয় এবং জনমত খতিয়ে দেখা হয়। এ সব মানদন্ডের ভিত্তিতেই একটি পৌরসভাকে সিটি কর্পোরেশনে উন্নীত করা হয়।
স্থানীয় সূত্র মতে, সৈয়দপুর তদানিন্তন পাকিস্তান আমলে সিটির মর্যাদা পেত। এর আগে বৃটিশ ভারতে রেলওয়ে বিভাগীয় শহর হিসাবে গড়ে তোলা হয় সৈয়দপুর শহরকে। সৈয়দপুরে রয়েছে সেনানিবাস, বিমানবন্দরসহ রেলওয়ে ও সড়কপথে উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা। একাধিক বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র, রেলওয়ে পুলিশ সুপারের কার্যালয়, পুলিশ লাইন, পানি উন্নয়ন বোর্ডের বিভাগীয় কার্যালয়, আর্মি ইউনিভার্সিটি, বিসিক শিল্প নগরী, সহ¯্রাধিক ক্ষুদ্র গার্মেন্টস কারখানা প্রভৃতি। এছাড়াও দেশের অষ্টম বৃহত্তম পৌরসভা ও মিশ্র সংস্কৃতির শহর হিসাবে দেশজুড়ে সৈয়দপুরের রয়েছে ভিন্ন পরিচিতি।
রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যে সৈয়দপুর উপজেলা হলেও এখানে রয়েছে উপ-কর কমিশনার, কাস্টমস্ এন্ড ভ্যাট সুপারের কার্যালয়, অধিক যানবাহন ও জন চলাচল নিয়ন্ত্রণের জন্য রয়েছে ট্রাফিক পুলিশ ইন্সপেক্টরের কার্যালয়।
ভৌগলিক অবস্থান ও বন্যামুক্ত অঞ্চল হওয়ায় ব্রিটিশ ভারতে উপমহাদেশের অন্যতম বৃহৎ রেলওয়ে কারখানা গড়ে উঠেছে সৈয়দপুরে। আবার ভারতীয় ঋণে আরও একটি রেলওয়ে কারখানা নির্মাণ প্রক্রিয়াধিন থাকায় সৈয়দপুর শহর নিয়ে আলাদা গুরুত্ব রয়েছে রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে। একইভাবে শিল্প-বাণিজ্যের প্রসারে উত্তরাঞ্চলের বেশিরভাগ আমদানী-রপ্তানীকারক প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে সৈয়দপুরে। এখানকার অর্থনৈতিক গুরুত্ব ও সম্ভাবনায় ব্যবসায়িক সুবিধার্থে সৈয়দপুর শহরে বিভিন্ন বাণিজ্যিক ব্যাংকের ৩০টি শাখা সফলতার সাথে তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করছে।
সূত্রটি আরও জানায়, সৈয়দপুর ৩৪ বর্গকিলোমিটার আয়তনের একটি পৌরসভা। ক্রমবর্ধিষ্ণু শহর হওয়ায় প্রতিদিন এর সম্প্রসারণ ঘটছে। সিটি কর্পোরেশন হলে শহর সংলগ্ন বোতলাগাড়ী, কামারপুকুর ও বাঙ্গালীপুর ইউনিয়ন সৈয়দপুর মহানগরীর সাথে যুক্ত করা সম্ভব হবে।
সূত্র জানায়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এর আগের সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে বলেছিলেন, জেলার চেয়েও অধিক সুযোগ-সুবিধা দেয়া হবে সৈয়দপুরে। সৈয়দপুরের ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রীর মনোভাব সব সময় ইতিবাচক।
ফেসবুকে সৈয়দপুর সিটি কর্পোরেশন প্রসঙ্গ উত্থাপনকারী তামিম রহমান বলেন, অনেক সম্ভাবনার শহর সৈয়দপুর। অতীতে রাজনৈতিক নেতৃত্বের ব্যর্থতায় সৈয়দপুরের কাঙ্খিত উন্নয়ন সম্ভব হয়নি। সৈয়দপুর এক সময় সিটির মর্যাদা পেতো। কিন্তু রাজনৈতিক নেতৃত্বের অদূরদর্শিতায় সে মর্যাদা হারিয়েছে শহরটি। হারানো মর্যাদা ফিরে পেলে সৈয়দপুর শহর সারা দেশের মধ্যে অনন্য উচ্চতায় পৌঁছে যাবে।

এ প্রসংগে বাংলাদেশ যুবমৈত্রী নীলফামারী জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল আলম বলেন, ব্যবসা-বাণিজ্য, ভৌগলিক অবস্থান ও অন্যান্য অবকাঠামোগত দিক বিবেচনা করলে সৈয়দপুর সিটি কর্পোরেশন হওয়ার যোগ্য। এলাকার নেতৃবৃন্দসহ সবাই মিলে এক হয়ে সরকারের কাছে দাবী উত্থাপন করলে সৈয়দপুরকে সিটি কর্পোরেশন করা সম্ভব।

সৈয়দপুর পৌরসভার সাবেক মেয়র আখতার হোসেন বাদল বলেন, সিটির মর্যাদা হারানো আমাদের রাজনৈতিক নেতৃত্বের ব্যর্থতা। তবে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা যে কোন জনদাবী বাস্তবায়নে আন্তরিক। সৈয়দপুরের ক্ষেত্রে তার দৃষ্টিভঙ্গি পজেটিভ। শহরটি সিটি কর্পোরেশন বাস্তবায়নে ঐক্যমত্য হলে সরকার এক্ষেত্রে সাড়া দিবেন বলে মনে করেন সাবেক এই পৌর মেয়র।

Print Friendly, PDF & Email