CC News

পেরুকে হারিয়ে দ্বিতীয় রাউন্ডে ফ্রান্স

 
 

খেলাধুলা ডেস্ক: অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে আসরে নিজেদের প্রথম ম্যাচে কষ্টের জয় পেয়েছিল ফ্রান্স। তারপরও তিন পয়েন্ট পেয়ে বেশ সুবিধাজনক অবস্থানে থেকেই আজ পেরুর মোকাবিলায় নেমেছিল তারা। লাতিন আমেরিকার দলটির বিপক্ষে সাবেক বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা শেষ পর্যন্ত জয় পেয়েছে ঠিক, তবে বেশ ঘাম ঝরাতে হয়েছে। একাটেরিনবার্গে এদিন তারা জিতেছে ১-০ গোলে।

দিনের প্রথম ম্যাচে ড্র করে গ্রুপপর্বের শেষ ম্যাচ পর্যন্ত দ্বিতীয় রাউন্ডের ভাগ্য ঝুলিয়ে রেখেছে অস্ট্রেলিয়া-ডেনমার্ক। ফ্রান্স হাঁটেনি সেপথে। ১৯৯৮ বিশ্বকাপ জয়ী দল ফ্রান্সের একমাত্র গোলটি করেন কাইলিয়ান এমবাপে ।

রাশিয়া বিশ্বকাপের সবচেয়ে দামি দল ফ্রান্স। অথচ অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে আগের ম্যাচে খুঁজেই পাওয়া যায়নি তাদের সেরাটা। পেরুর বিপক্ষে দেখা মিলল তারকাসমৃদ্ধ ফ্রান্সের সেই আসল খেলাটাই। ১২ মিনিটে ২৫ গজ দূর থেকে জোরাল একশট নিলেন পল পগবা। অল্পের জন্য লক্ষ্যে পৌঁছাল না।

পরে ১৬ মিনিটে শট ঠেকিয়ে গ্রিজম্যানকে হতাশ করেন পেরু গোলরক্ষক। ৩০ মিনিটে দারুণ এক সুযোগ ব্যর্থ না হলে ফ্রান্সকে টপকে যেতে পারত পেরুও। ফরাসি গোলরক্ষক হুগো লরিস বরাবর শট নিয়ে সুযোগ হাতছাড়া করেছেন গুয়েরো।

চার মিনিট বাদে প্রতিপক্ষকে আর কোনো সুযোগ না দিয়ে এগিয়ে যায় ফরাসিরা। আগের মিনিটেই সুযোগ কাজে কালাগে পারেননি এমবাপে। ৩৪ মিনিটে সেটার পুনরাবৃত্তি হতে দেননি। পেরু গোলরক্ষকের মাথার উপর দিয়ে অলিভিয়ে জিরুদের নেয়া শট ভলি করে জালে জড়িয়ে পরিসমাপ্তি ঘটিয়েছেন কাইলিয়ান এমবাপে।

তাতে ফ্রান্সের হয়ে সর্বকনিষ্ঠ গোলদাতার রেকর্ডটাও হয়ে গেছে ১৯ বছর বয়সী পিএসজি ফরোয়ার্ডের। ১৯৯৮ সালে ফরাসিদের একমাত্র বিশ্বকাপ জয়ের বছরই জন্ম তার! গোল করলেন ১৯ বছর ১৮৩ দিন বয়সে। বিশ বছরের কম বয়সে বিশ্বকাপ বা ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপের কোনো আসরে গোল নেই আর কোনো ফ্রেঞ্চম্যানের।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেই গোল শোধে মরিয়া হয়ে খেলেছে পেরু। ভাগ্যকে পাশে পেলে সমতায় ফিরতে পারত ৫০ মিনিটেই। ফ্রান্সের ডি-বক্সের বাইরে থেকে চোখ জুড়ান একশট নিয়েছিলেন জেফারসন ফারফান। প্রতিপক্ষ গোলরক্ষক ফাঁকি দিয়ে সেই শট লাগে পোস্টে!

এরপর আরও আক্রমণাত্মক খেলে পেরু। কিন্তু একজন যোগ্য ফরোয়ার্ড আর সঠিক ফিনিশিংয়ের অভাবটা শেষপর্যন্ত গোলবঞ্চিত রাখে সাউথ আমেরিকান দলটিকে। দুই ম্যাচে ন্যূনতম ব্যবধানে হেরে নিশ্চিত হয়ে গেল তাদের বিদায়ও। আর গ্রুপ ‘সি’ থেকে ফেভারিট হিসেবে সবার আগে দ্বিতীয় রাউন্ডে পৌঁছে গেল দিদিয়ের দেশমের ফ্রান্স।

Print Friendly, PDF & Email