CC News

লালমনি এক্সপ্রেসে ইরানী কোচের এলার্ম সিগনাল পাইপে ত্রুটি

 
 

সিসি নিউজ, ২৫ জুন: ঈদে অতিরিক্ত যাত্রীর চাপ সামলাতে ৬ জুন লালমনির এক্সপ্রেস ট্রেনটিতে মেরামতকৃত ১২টি কোচ সংযোজন করা হয়। কিন্তু চালু করার ছয়দিনের মাথায় দুটি কোচে ত্রুটি দেখা দেয়ায় বন্ধ করে দেয়া হয়েছে লালমনিরহাট-ঢাকা রেলপথে চলাচলকারী ট্রেনটি।

পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের সৈয়দপুর কারখানার বিভাগীয় তত্ত্বাবধায়কের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ১৯৯৮ সালে ইরান থেকে আমদানী করা হয় প্রায় ৬৬টি কোচ। একযুগ পরে তা অচল হয়ে পড়ে থাকে চট্টগ্রামের পাহাড়তলীতে। চলতি বছর জানুয়ারী মাসের প্রথম সপ্তাহে ওইসব অচল কোচের মধ্যে ১৮টি কোচ সৈয়দপুর কারখানায় নেয়া হয় চলার উপযোগী হিসেবে গড়ে তোলার জন্য। কারখানার শ্রমিকরা মিটারগেজ রেলপথে চলাচলের উপযোগী ১২টি কোচ মেরামত সম্পন্ন করে। ওই ১২টি কোচের সাথে চায়না থেকে আমদানি করা আরো দুটি কোচ সংযুক্ত করে মোট ১৪টি কোচে এয়ার ব্রেক সম্বলিত লালমনি এক্সপ্রেস ট্রেনটি গত ৬ জুন থেকে ঢাকা-লালমনিরহাট রেলপথে চলাচল শুরু করে। এ সময় ট্রেনটির মেরামতকৃত ইরানী কোচের ডব্লিউইসি ৫০১০ ও  ৫০১৪ নম্বর কোচ দুটি এলার্ম সিগনাল পাইপে ত্রুটি দেখা দেয়।  এতে লালমনিরহাট বিভাগীয় রেলওয়ের মেকানিক্যাল বিভাগ ১৩ জুন কোচগুলি চলাচলের অনুপযোগি ঘোষণা দিয়ে রেলপথে চলাচল বন্ধ করা হয়।

সূত্রটি জানায়, পরিত‌্যক্ত ইরানী কোচগুলোতে বগি ঠিক রেখে দেশীয় কাঁচামাল দিয়ে মেরামত করা হয়। এতে প্রতিটি কোচে ৮০ ভাগ পরিবর্তন করা হয়েছে। ফলে প্রতিটি কোচে মেরামত বাবদ খরচ হয় ৭০ লাখ টাকা। অথচ বর্তমানে একটি কোচ আমদানীতে খরচ হবে প্রায় ৪ কোটি টাকা। সূত্রটি সিসি নিউজকে আরো জানান, এলার্ম সিগনাল পাইপটি প্রতিটি বগির নীচ দিয়ে থাকে। যা পরিবর্তন বা মেরামত করা হয়নি। এটি ট্রেন চলাচলে কোন বিপত্তি ঘটে না। এটি দ্বারা যাত্রী সাধারনে বা বিশেষ প্রয়োজনে ট্রেন দাঁড় করানোর কাজে ব‌্যবহার করা হয়।

এসব বিষয়ে লালমনিরহাট সহকারী ট্রাফিক সুপারিনটেনডেন্ট সাজ্জাদ হোসেন বলেন, ইরানি কোচগুলো দিয়ে নতুন সাজে লালমনি এক্সপ্রেস ৬ জুন আনুষ্ঠানিকভাবে পরিচালনা শুরু করা হয়। ১২ জুন কোচগুলোর এয়ার ব্রেকে ত্রুটি ধরা পড়লে ১৩ জুন সবগুলো ‘ড্যামেজ’ ঘোষণা করা হয়। এখন লালমনিরহাট বিভাগীয় রেলওয়ের খোলা ইয়ার্ডে কোচগুলো রাখা আছে। সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানা কর্তৃপক্ষ এরই মধ্যে এগুলো মেরামতের উদ্যোগ নিয়েছে।

সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার বিভাগীয় তত্ত্বাবধায়ক (ডিএস) মুহাম্মদ কুদরত-ই-খুদা বলেন, লালমনি এক্সপ্রেসে নতুনভাবে সংযোজন করা ইরানি কোচগুলো ড্যামেজ ঘোষণার বিষয়টি আমাদেরকে অবগত করা হয়েছে। আমরা কোচগুলো মেরামত করেছি এবং আগামী শনিবার থেকে পূর্নবায় চলাচল করবে।

Print Friendly, PDF & Email