CC News

সেনাবাহিনীকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে মিথ্যাচার!

 
 

সিসি ডেস্ক, ২৮ জুন : বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অজস্র অর্জনকে ম্লান করতে এবং সেনাবাহিনীকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে নাশকতার অভিযোগে আটক বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য মেজর (অব.) মিজানুর রহমানকে নিয়ে মিথ্যাচার করছে দেশের কিছু বেনামী গণমাধ্যম। গণমাধ্যমে ঢালাওভাবে প্রচার করা হচ্ছে যে মেজর (অব.) মিজানুরকে বিনা দোষে আটক করা হয়েছে, যা সম্পুন্ন মিথ্যা ও বানোয়াট। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নিশ্চিত হয়ে, সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাকে আটক করে।

দেশের আস্থা ও গর্বের প্রতীক বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। মাতৃভূমির সার্বভৌমত্ব সমুন্নত রাখতে জীবনবাজী রেখে কাজ করছে সেনাবাহিনী। বঙ্গন্ধুর লালিত স্বপ্নের ধারাবাহিকতায় বহু চড়াই-উৎরাই পেরিয়ে সেনাবাহিনী আজ কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌঁছেছে। সেনাবাহিনীর সদস্যরা দেশের চৌকস, সুশৃঙ্খল ও দুঃসাহসী সেনানী। জঙ্গিবাদ দমনে প্যারা কমান্ডো ব্যাটালিয়নের গুরুত্ব অপরিসীম। সেনাবাহিনী দেশের যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় সর্বদা প্রস্তুত থাকে। শন্তিরক্ষা মিশনে সুনামে সাথে একাদিক দেশে কাজ করছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর গর্বিত সদস্যরা।

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর কোনো কর্মকর্তা যখন অবসরে যান। তখনও নিজের যোগ্যতা অনুযায়ী পেশা বেছে নেন। কেউ হন রাজনীতিবিদ আবার কেউ হন ব্যবসায়ী। প্রথমে বলা যাক প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা মেজর জেনারেল হিসেবে আমজাদ খান চৌধুরীর কথা। তিনি ১৯৮১ সালে তিনি রংপুরে টিউবওয়েল তৈরির কারখানা হিসেবে রংপুর ফাউন্ড্রি লিমিটেড (আরএফএল) প্রতিষ্ঠা করেন। প্রাণ-আরএফএল আজ দেড় শতাধিক দেশে ব্যবসা করছে।

এরপর বলা যাক, অবসরপ্রাপ্ত ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মাসুদ আলী খানের কথা। যার দেশের বাড়ি দিনাজপুর। মহাখালী ডিওএইচএস এ একটি কনসালটেন্সি ফার্ম দিয়ে স্বাচ্ছন্দে জীবন যাপন করছেন। পাশাপাশি সমাজের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছেন দীর্ঘদিন ধরে।

কর্ণেল (অব.) শওকত আলী এমপি। ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর তারিখে অনুষ্ঠিত সাধারণ নির্বাচনে নবম সংসদের সদস্য নির্বাচিত হন এবং ২০০৯ সালের ২৫ জানুয়ারী তিনি সর্বসস্মতিক্রমে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার নির্বাচিত হন।

আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক বাণিজ্য এবং বেসামরিক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী লে: কর্ণেল (অব:) মুহাম্মদ ফারুক খান এমপি, মেজর জেনারেল (অব) সুবিদ আলী ভূইয়া মত অনেক সেনাবাহিনীর উচ্চ পর্যায়ের অফিসাররা অবসরের পর রাজনীতিতে যোগদান করে বিরামহীনভাবে দেশের সেবা করে যাচ্ছেন।

সেনাবাহিনীতে কর্মরত যে কোনো ব্যক্তিকেই সমাজে পায় উচ্চ মর্যাদা। তবে এর মধ্যে সেনাবাহিনী থেকে অবসর নেয়া কোনো ব্যক্তি যদি পথভ্রষ্ট হয়ে যায়, সে ক্ষেত্রে তার অন্যায়-অবিচারের দায়ভার পুরো সেনাবাহিনী নিবে না। এ ধরনের ঘটনাকে ব্যক্তি নৈতিক স্থলনের ঘটনা হিসেবে বিবেচনা করা যেতে পারে। একজনের জন্য সুসংগঠিত ও সুনাম অর্জনকারী একটি বাহিনীকে দায়ী করাটা যৌক্তিক হবে না।

এ বিষয়ে কথা হয়, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর এক উর্ধ্বতন কর্মকর্তার সঙ্গে। তিনি বলেন, সোমবার ২৫ জুন গাজীপুর নির্বাচনে নাশকতার ষড়যন্ত্রের অভিযোগের ভিত্তিতে বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য মেজর (অব.) মিজানুর রহমান মিজানকে জিজ্ঞাসাবাদের উদ্দেশ্যে আটক করা হয়। রাজনীতি নিয়ে বিভিন্ন সময়ে ষড়যন্ত্র করায় তার বিরুদ্ধে রয়েছে একাধিক মামলা। তবে তাকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয় নি। শুধু মাত্র জিজ্ঞাসাবাদের উদ্দেশ্যে আটক করে। এর বেশি কিছুই নয়। এ ব্যাপারটি অত্যন্ত স্বাভাবিক বিষয়। যা অতিরঞ্জিত করে দেখিয়েছে কিছু বেনামী সংবাদ মাধ্যম। যা মোটেও সত্যি নয়। মূলত সেনাবাহিনীকে বদনাম করার উদ্দেশ্যে এসব অপপ্রচার চালানো হচ্ছে। উপযুক্ত তদন্তের মাধম্যে এ সব বিভ্রান্তিমূলক সংবাদ পরিবেশনকারী সংবাদ মাধ্যমের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email