CC News

মেসি যাদু বনাম ফরাসি চমক

 
 

সিসি ডেস্ক, ৩০ জুন: মস্কোর স্পার্তাক স্টেডিয়ামের সামনে রয়েছে স্পার্তান যোদ্ধার মূর্তি। নাইজেরিয়ার বিপক্ষে সর্বশেষ ম্যাচে আর্জেন্টিনার কাছে দাবি ছিল সেই যোদ্ধার মতো লড়াইয়ের। ঠিকই সেই যুদ্ধজয়ে নকআউট পর্বে নাম লিখিয়েছে আর্জেন্টিনা।

আজ শেষ ষোলোর সেই মহারণের প্রতিপক্ষ ফ্রান্স। ভেন্যু কাজান এরেনা। তাতারস্তানের রাজধানী এই কাজান। যে তাতার যোদ্ধাদের খ্যাতি ইতিহাসের পাতায় পাতায়। আজ লিওনেল মেসির দলের কাছে আবারও সময়ের সেই অভিন্ন দাবি। প্রতিপক্ষ প্রবল—তাতে কী! লিওনেল মেসির মতো এক জাদুকর থাকলে কোনো কিছুই যে অসম্ভব নয়!

শেষ ষোলোর বাধা টপকে আর্জেন্টিনার কোয়ার্টার ফাইনালে উত্তরণও তেমনি অলৌকিক কল্পনা নয় মোটেও।

মস্কোর ৮০০ কিলোমিটার পূর্বে এই কাজান; সভ্যতার এক তীর্থ ভোলগা নদীর পাড়ে। মস্কো-সেন্ট পিটার্সবার্গের চেয়ে বিশ্বকাপের আমেজ এখানে বেশি। রাস্তার পাশে বড় বড় হোর্ডিং দেখা যায় বিশ্বকাপের। প্রতিটি বাসস্ট্যান্ডের যাত্রী ছাউনিতে কাজানে খেলতে আসা দলগুলোর বড় বড় পোস্টার সাঁটা। শহরের মাঝখানে ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর তিন তলা বাড়ির দেয়ালজুড়ে বিশাল ওই ছবিটাও রয়েছে এখনো। গেল বছর কনফেডারেশন কাপের সময় তৈরি করা হয়েছিল যা। সেই শহরেই মেসির আজ অমরত্বের পথে আরেক পদক্ষেপ ফেলার চ্যালেঞ্জ। আর্জেন্টিনার ৩২ বছরের অপ্রাপ্তি আর নিজের ক্যারিয়ারের একমাত্র হাহাহার বিশ্বকাপ ট্রফি জয়ের পথে আরেকটু এগোনোর উপলক্ষ।

ফ্রান্স অবশ্য এবারের বিশ্বকাপ জয়ের অন্যতম দাবিদার। ফুটবলারদের ব্যক্তিগত নৈপুণ্য বিবেচনায় সম্ভবত টুর্নামেন্টের সেরা দল। ‘সি’ গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েই নকআউট পর্বে এসেছে তারা; তবে নজরকাড়া পারফরম্যান্স তেমন ছিল না। কাল কাজানের সংবাদ সম্মেলনে অধিনায়ক-কোচ বারবারই তাই আওরে যান একই বুলি—বিশ্বকাপ শুরু হচ্ছে এখান থেকেই।

‘বিশ্বকাপ শুরু হচ্ছে নকআউট পর্ব থেকে। এটি আমাদের জন্য বাড়তি প্রেরণা। প্রতি খেলোয়াড়ের জন্য প্রতিটি পাস, প্রতিটি থ্রো ইন, প্রতিটি বল দখলের লড়াই হতে পারে এই বিশ্বকাপের শেষ। আর প্রতিপক্ষ যখন আর্জেন্টিনার মতো দল, তখন নিজেদের সামর্থ্য ছাড়ানো কিছুই আমাদের করতে হবে। সে জন্য আমরা প্রস্তুত’—বলেছেন ফ্রান্স অধিনায়ক লরি। কোচ দেশম বলেছেন তাই, ‘নতুন বিশ্বকাপ শুরু হচ্ছে এখন। ইউরোতে আমরা দেখেছি, প্রথম রাউন্ডে খুব ভালো খেলেও নকআউট পর্বে এসে ছিটকে গেছে কোনো কোনো দল। আমরা তাই সতর্ক আছি। মনোযোগ দিচ্ছি আর্জেন্টিনার বিপক্ষে ম্যাচে।’

একইভাবে মেসি বন্দনাও দুজনের অভিন্ন সুরে। কোচ দেশম ১৯৯৮ বিশ্বকাপে অধিনায়ক হিসেবে ফাইনালে খেলেছেন ব্রাজিলের রোনালদোর বিপক্ষে। তাঁর সঙ্গে মেসিকে মিলিয়ে করা প্রশ্নে দেশমের জবাব, ‘সেবারের রোনালদো এবং এবারের মেসির মধ্যে অবশ্যই মিল রয়েছে। দলে ওদের প্রভাবের দিক বিবেচনায়। তবে সেটি ছিল ফাইনাল, এটি শেষ ষোলোর এক ম্যাচ। আমরা এখন মনোযোগ দিচ্ছি কাল কিভাবে মেসিকে সামলানো যায়।’ সেই কাজ যে সহজ নয়, তা আবার মেনে নিচ্ছেন লরি। সে জন্য নিজেদের করণীয়ও বলেছেন তিনি, ‘আর্জেন্টিনার গ্রুপ পর্বের তিনটি ম্যাচ খেয়াল করলে দেখবেন, ওদের আরো অনেক ভালো ফুটবলার রয়েছে। মেসি নিজেও দলের গুরুত্বপূর্ণ সময়ে ঝলসে ওঠে। সেটি আর্জেন্টিনায় যেমন, তেমনি বার্সেলোনাতেও। আমাদের তাই ব্যক্তিগত লড়াইগুলোতে জিততে হবে; সম্মিলিতভাবেও মেসি ও আর্জেন্টিনাকে সামলাতে হবে।’

হোর্হে সাম্পাওলির সময়ে কোনো সময়ই পর পর দুই ম্যাচ একই একাদশ নিয়ে খেলেনি আর্জেন্টিনা। আজ প্রথমবারের মতো তা হতে পারে। নাইজেরিয়ার বিপক্ষে একাদশ নিয়েই মাঠে নামবে হয়তো দুবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নররা। আর ১৯৯৮-এর চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স গেল ম্যাচের বিশ্রাম দেওয়া তারকাদের ফিরিয়ে নামবে পূর্ণশক্তিতে।

এমনিতে লাতিন আমেরিকার দলের বিপক্ষে ফ্রান্সের সাম্প্রতিক বিশ্বকাপ পারফরম্যান্স দুর্দান্ত। ওই মহাদেশের দলের কাছে সর্বশেষ আট মুখোমুখিতে হারেনি তারা। সর্বশেষ হার? আর্জেন্টিনার কাছে ১৯৭৮ বিশ্বকাপে। লাতিন আমেরিকান দলে বিপক্ষে সর্বশেষ সাত ম্যাচে কোনো গোল খায়নি। সর্বশেষ গোল করেছিলেন ব্রাজিলের কারেকা, ১৯৮৬ বিশ্বকাপে। বিশ্বকাপে ফ্রান্স-আর্জেন্টিনার দুই মুখোমুখিতে দুবারই অবশ্য জয় আলবিসেলেস্তেদের। আর দুবারই ফাইনাল খেলে আর্জেন্টিনা। ইতিহাসের প্রেরণা তাই ফ্রান্সের মতো তাদেরও রয়েছে।

আরেকটি অনুপ্রেরণা হতে পারে ‘বজ বুলদ্রাবাস’। এটি তাতারস্তানের আন-অফিসিয়াল স্লোগান। যার বাংলা ‘আমরা পারি’। সেই মন্ত্র জপেই তো আজ মাঠে নামবে আর্জেন্টিনা। এবং অতি অবশ্যই লিওনেল মেসি!

রোনালদো আর লুই সুয়ারেস, একজনের বিদায় নিশ্চিত

আজ শনিবার দুই দলই বিশ্বকাপ থেকে হারাতে পারে তাদের গুরুত্বপূর্ণ দুই ফুটবলারকে। রিয়ালের ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো আর বার্সেলোনার লুই সুয়ারেস, একজনের বিদায় নিশ্চিত। কারণ শেষ ষোলোর ম্যাচে সোচিতে যে মুখোমুখি উরুগুয়ে ও পর্তুগাল।

ইউরোপের চ্যাম্পিয়নরা রুশ দেশে এসে ঘাঁটি করেছেন ক্রাতোভায়। গতকাল অনুশীলন করে কাটিয়ে বিকেলে তাঁরা রওনা হয়েছেন সোচির পথে। উরুগুয়ের বিপক্ষে ম্যাচের আগে, শেষ অনুশীলন দেখতে হাজির হওয়া পর্তুগিজ সাংবাদিকদের সঙ্গে ফ্রেমবন্দি হয়েছিলেন কোচ ফের্নান্দো সান্তোস। জমে ওঠা আড্ডায় একটা সময় সান্তোস বলেই ফেললেন, ‘আমার কেন জানি মনে হচ্ছে আর বিশ্বাস করতে ইচ্ছে হচ্ছে, এখানে রবিবারটা আমার খুব শান্তিপূর্ণভাবে কাটবে। আমার বোধ হয় এখানে আরো খানিকটা বেশি সময় থাকা হবে। অমি ভবিষ্যৎ বলতে পারি না, আমি কোনো জাদুকরও নই। আমার কোনো জ্যোতিষীও নেই। এসবের কিছুই আমার নেই, কিন্তু আমার আত্মবিশ্বাস আছে।’ আসলেই তো! সান্তোসের কাছে আত্মবিশ্বাস আর রোনালদো ছাড়া কোনো অস্ত্র নেই। এ দুই নিয়েই পর্তুগালের সোনালি প্রজন্ম যা পারেনি, সেটাই করে দেখিয়েছেন। ইউরো চ্যাম্পিয়ন করেছেন পর্তুগালকে। অথচ পর্তুগালের তুলনায় কাগজে-কলমে উরুগুয়ে দলটাই তো ভারী!

গোল করেন বলে লুই সুয়ারেস আর এদিনসন কাভানির কথাটাই আসে সবার আগে, কিন্তু এই দলের সবচেয়ে বড় ভরসার নাম তো দিয়েগো গোদিন। অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদের এই ডিফেন্ডারই উরুগুয়ের অধিনায়ক। দিয়েগো সিমিওনি যে বজ্র আঁটুনির পরিকল্পনা নিয়ে দল মাঠে নামান, সেটা বাস্তবায়নের অন্যতম কারিগর তো গোদিনই। সঙ্গে হোসে হিমেনেসও। মাদ্রিদ শহরের ‘ছোট’ দলটার এই দুজন মিলেই হয়তো আটকে দেওয়ার চেষ্টা করবেন একই শহরের ‘বড়’ দলটার সবচেয়ে বিখ্যাত ফুটবলারটিকে। উরুগুয়ে-পর্তুগাল ম্যাচের পকেটে তো ছোটখাটো মাদ্রিদ ডার্বিও হয়ে যাবে সোচিতে! আবার রোনালদো ও সুয়ারেস আছেন বলে এল ক্লাসিকোরও অদৃশ্য আঁচ। অবশ্য দলের অভিজ্ঞ ফুটবলার ব্রুনো আলভেস ম্যাচের আগে ফিফা ডটকমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন, লড়াইটা ব্যক্তিপর্যায়ের নয়, ‘আমরা যেভাবে প্রতিটি ম্যাচ খেলছি, তাতে মনে হচ্ছে আমরাই জিততে পারি। আমাদের দলীয় সংহতি খুবই শক্ত। পর্তুগাল যেকোনো প্রতিপক্ষের মুখোমুখি হতে প্রস্তুত।’ দলের মাঝমাঠের খেলোয়াড় সেড্রিকও শোনালেন একই কথা, ‘আমাদের দলে অনেক ভালো খেলোয়াড় আছে, বিশ্বের সেরা খেলোয়াড়ই তো আমাদের। আমরা প্রতিপক্ষকে পর্যবেক্ষণ করব। ওরা শক্তিশালী দল, তবে আমরাও কম শক্তিশালী নই। আমরা চেষ্টা করব ম্যাচটা জিততে।’

উরুগুয়ে সব শেষবার বিশ্বকাপের নক আউট পর্বে কোনো ইউরোপিয়ান দলের মুখোমুখি হয়েছিল ১৯৯০ সালের ইতালি বিশ্বকাপে। সেবার স্বাগতিকদের কাছে ২-০ গোলে হেরে শেষ ষোলো থেকে বিদায় নিয়েছিল ‘লা সেলেস্তে’রা। সেই দলেও কোচ ছিলেন অস্কার তাবারেস। আজও তিনিই কোচের আসনে, তবে দলটা বদলে গেছে। সেই সঙ্গে ভাগ্যটাও কি বদলাবে? যেন বদলে যায়, সেই চেষ্টাটা বেশি করে করতে হবে গোদিনকেই। কারণ নক আউট ম্যাচে গোল করার চেয়ে গোল হজম না করাটাই যে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। আর কে না জানে, বছরজুড়ে সিমিওনের এই দর্শনকেই তো বাস্তবায়ন করেন অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদের এই ডিফেন্ডার। যাঁর আছে ডিয়েগো ম্যারাডোনার প্রশংসাপত্র, ‘গোদিন নিজেই তো তারকা। সে রক্ষণ করে, মাঠে নেতৃত্ব দেয়, গোল করে, শিরোপা জেতায় আর নিজে কোনো ম্যাচ মাঠে বসে থাকে না।’ এই অঘটনের বিশ্বকাপেও যে কোনো গোল হজম না করে দ্বিতীয় পর্বে উঠে এলো উরুগুয়ে, এর পেছনে গোদিনের ভূমিকাটা কম নয়। তাই তো তাদের সমঝে চলছেন সান্তোসও, ‘ওরা প্রথাগত লাতিন আমেরিকান দল। ওরা যে শুধু গ্রুপ পর্বেই গোল হজম করেনি তা নয়, মনে হচ্ছে গোটা ২০১৮ সালেই ওরা এখনো গোল খায়নি। তাবারেস সবচেয়ে বেশি সময় ধরে আন্তর্জাতিক দলের দায়িত্ব সামলানো ফুটবল কোচ। যার মানে হচ্ছে খেলোয়াড়দের সঙ্গে তার বোঝাপড়াটা খুব ভালো।’

একটা জায়গায় অবশ্য উরুগুয়ে আর পর্তুগালের বেশ মিল। দুই দলেই একই দলে বা লিগে খেলা একাধিক ফুটবলার যেমন আছেন, তেমনি মিল আছে ভূগোলেও। বড় প্রতিবেশীর পাশে, দুটি দেশই অল্প জনসংখ্যার ছোট দেশ। কিন্তু ফুটবলের মানদণ্ডে, দুটি দলেরই জনসংখ্যার অনুপাতে সাফল্য অনেক বেশি। তবে আজ এক দলের সফল আর অন্য দলের যে ব্যর্থ হওয়ারই পালা।

Print Friendly, PDF & Email