CC News

রাজারহাটে কালুয়া চরের ছিন্নমূল মানুষের সীমাহীন দূর্ভোগ

 
 

রফিকুল ইসলাম, রাজারহাট (কুড়িগ্রাম) : ‘মুই বাহে ২০বছর ধরি আবাসনত পড়ি আচং। যে ঘর কোণা দিছে, তাও জং ধরি ভাঙ্গি যায়া উপর দিয়া পানি ঝড় ঝড় করি পড়ে। কি আর করিম, কোন রকমে একনা প্লাস্টিক আনি উপরে দিয়া আছং। একনা ঝরি (বৃষ্টি) হইলে ঘরের ভিতর সইগ মোর ভিজি যায়। কোন রকমে নাতি-পুতি নিয়া জড়োসড়ো হয়া থাকং। সরকার হামাকগুলার দিকে চোখ তুলিয়াও দেখে না বাহে।’ কথাগুলো উপজেলার ছিনাই ইউনিয়নের বন্যাদূর্গত এলাকা কালুয়ার চর জয়কুমর সরকারী আবাসন প্রকল্পের ছিন্নমূল ভূমিহীন ষাটর্দ্ধো ফাতেমা বেগম আক্ষেপ করে বলেন। তার পরিবারের লোকসংখ্যা ৫ জন। আবাসনের বরাদ্দকৃত একটা রুমেই তাদের বসবাস। শুধু ফাতেমা বেগম নয়, এ রকম শতাধিক পরিবারের একই অবস্থা এই আবাসনের।
সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কুড়িগ্রামের রাজারহাট উপজেলাধীন ছিনাই ইউপির ধরলা নদীর তীরবর্তী জয়কুমর আবাসন প্রকল্পটির ঘরগুলো দীর্ঘদিন থেকে জরাজীর্ণ অবস্থায় রয়েছে। বসবাসের অনুপযোগী হলেও অনেকে ঘরের ওপর পলিথিন ছাউনি দিয়ে কোন রকমে পরিবার-পরিজন নিয়ে অতিকষ্টে মানবেতর জীবনযাপন করছে। জয়কুমর সরকারী আবাসন প্রকল্পের ২০টি লম্বা লম্বা ঘরের ব্লক করে দেয়া হয়েছে। সেখানে আবার প্রতিটি ব্লকে ১০টি করে রুম বের করে সহায়-সম্বলহীন ও ভূমিহীন পরিবারের জন্য একটি করে রুম বরাদ্দ দেয়া হয়। সেখানে প্রায় ২০০টি পরিবারের বসবাস। আবাসনের মানুষের জন্য খাদ্য, বিশুদ্ধ পানির গভীর-অগভীর নলকূপ, আলোর জন্য বৈদ্যুতিক ব্যবস্থাসহ নানা সুযোগ-সুবিধা দেয়া হয়। নদী তীরবর্তী আবাসন প্রকল্পটি হওয়ায় বন্যার হাত থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য তার পাশেই তিন তলা বিশিষ্ট জয়কুমর কমিউনিটি সাইক্লোন সেন্টার আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘর নির্মাণ করে দিয়েছে সরকার।
আবাসনের টিনগুলো মরিচা ধরে জরাজীর্ণ হয়ে ভেঙ্গে পড়েছে। আবাসনের বসবাসকারী হাসিনা বেগম (৪৫), মর্জিয়া বেগম (৪০), কাজলী বেগম (৩৫), বেগম (৫২), ফাতেমা বেগম (৫৬), শাহিদা বেগম (৪৫), হাসনা বেগম (৪০), মরিয়ম বেগম (৪৫), শাহিদা বেগম (৪২), বিউটি বেগম (৩৫), তাজুল ইসলাম (৪০), শাহিনা বেগম (৩২), আঃ হামিদ (৬০), শাহেব উদ্দিন (৫০) সহ অনেকে জানান, সামান্য বৃষ্টিপাত হলেই আবাসনের বসবাসকারী পরিবারগুলোর প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ভিজে নষ্ট হয়ে যায়। ফলে বসবাসের একবারে অনুপযোগী হয়ে পড়েছে ঘরগুলো। তারা আরো জানান, নলকূপগুলো নষ্ট হয়ে যাওয়ায় বিশুদ্ধ পানি সংগ্রহ করা সম্ভব হয় না। আবাসনে সঠিকভাবে তদারকি না থাকায় চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে ছিন্নমূল বৃদ্ধ ও শিশুরা। ফলে অপুষ্টিতে ভূগছে মা ও শিশুরা। আবাসনের ছিন্নমূল মানুষরা অভিযোগ করেন, সরকার ভূমিহীনদের বসবাসের জন্য ঘর, স্বাস্থ্য সম্মত পায়খানা, বিশুদ্ধ পানির জন্য টিউবয়েল, আলোর জন্য বিদ্যুৎ ব্যবস্থা দিয়েছিল। কিন্তু সরকারীভাবে কোন তদারকি না থাকায় সবকিছু নষ্ট হয়ে পড়ার উপক্রম হয়েছে। এখানে এখন আর স্বাস্থ্য সম্মত কিছুই নেই বললেই চলে। বছরের বেশীরভাগ সময়েই ছিন্নমূল মানুষজনের হাতে কাজ না থাকায় পরিবার-পরিজন নিয়ে তারা অভাব-অনটনে দিনাতিপাত করে। তাই তারা বিশুদ্ধ পানীয়ও খাদ্যের অভাব তাদের সারা বছরই লেগে থাকে। এছাড়া আবাসনের ছিন্নমূল মানুষ বেশীরভাগ সময় চিকিৎসার অভাবে এবং অপুষ্টিজনিত কারণে অসুস্থ্য হয়ে পড়ে। সবমিলিয়ে সরকারী এই জয়কুমর আবাসনটির পূর্ণ সংষ্কার দাবী করে ছিন্নমুল মানুষজনের চাহিদা পূরণের জন্য সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এলাকাবাসী। এ বিষয়ে রাজারহাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহ: রাশেদুল হক প্রধান বলেন, দ্রুত আবাসনটি পরিদর্শন পূর্বক সংস্কারের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ছিনাই ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ নুরুজ্জামান হক বুলু বলেন, জয়কুমর আবাসনটি বর্তমান বসবাসের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এটি দ্রুত সংষ্কারের দাবী জানাচ্ছি।

Print Friendly, PDF & Email