CC News

“কোটা সংস্কার আন্দোলনের সাথে জঙ্গি কর্মকাণ্ডের মিল আছে”

 
 

ঢাকা, ০৮ জুলাই: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেছেন, কোটা সংস্কার আন্দোলনের সাথে জঙ্গি কর্মকাণ্ডের মিল আছে। এ আন্দোলনকে ঘিরে ক্যাম্পাস অস্থিতিশীল করতে লন্ডন থেকে উস্কানি দেয়া হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেছেন তিনি।

রবিবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য কার্যালয়ে কোটা সংস্কার আন্দোলন নিয়ে ক্যাম্পাসে উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে কথা বলেন ঢাবি উপাচার্য।

উপাচার্য বলেন, তালেবান জঙ্গিরা বিভিন্ন গোপন আস্তানা থেকে যে রকম উস্কানিমূলক ভিডিও বার্তা পাঠায়, তার অবিকল উগ্র চরমপন্থী মতাদর্শী প্রচারণামূলক ভিডিও এ আন্দোলনেও পাঠানো হচ্ছে

রাতের বেলা বিভিন্ন হল থেকে নারী শিক্ষার্থীদের মিছিল করার সমালোচনা করে উপাচার্য বলেন,জঙ্গিরা যেভাবে শেষ অস্ত্র হিসেবে নারীদের ব্যবহার করে, সেভাবে কোটা আন্দোলনেও ছাত্রীদের ব্যবহার করা হচ্ছে।

তিনি জানান, বিশ্ববিদ্যালয় এসব মেনে নেবে না। ফৌজদারি অপরাধ করলে আইনের শাসন কার্যকর হতে হবে।

শিক্ষার্থীরা ক্লাস-পরীক্ষায় অংশ নিতে চায় উল্লেখ করে উপাচার্য বলেন, অশুভ শক্তির তৎপরতায় ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন চলছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অশুভ শক্তি ঢুকতে চাচ্ছে।

তার প্রমাণ হিসেবে তিনি বলেন, লন্ডন থেকে ফোন করে তাঁদের এক সহকর্মীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। ফায়দা নেয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে।

আখতারুজ্জামান বলেন, শিক্ষার্থীদের শাস্তি দেয়ার ক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয় শিথিলতা দেখিয়েছে। প্রক্টর অফিস ভাঙচুর ও উপাচার্য বাসভবনে হামলা হয়েছে। ভবিষ্যতে এ ধরনের হামলায় অপরাধীদের ধরতে উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করা হবে।

তিনি শিক্ষার্থীদের দায়িত্বশীল আচরণ করার জন্য বলেন। কোনো শিক্ষার্থী আক্রান্ত হলে তাঁরা ব্যথিত হন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ ভালো। তবে অশুভ তৎপরতা আছে। কোনো অশান্ত পরিবেশ বরদাশত করা হবে না।

এ সময় উপাচার্যের সঙ্গে আরো উপস্থিত ছিলেন, সহ-উপাচার্য মোহাম্মদ সামাদ ও প্রক্টর গোলাম রব্বানী।

এর আগে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের ওপর হামলা ও গ্রেফতারের প্রতিবাদে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ সমাবেশ করে প্রগতিশীল ছাত্রজোট। সমাবেশ থেকে কোটা সংস্কার কর্মীদের নির্যাতন ও আটকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন স্লোগান দেন তারা।

পরে একটি মিছিল নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের কাছে স্মারকলিপি পেশ করেন প্রগতিশীল ছাত্র জোটের নেতাকর্মীরা। আর এ স্মারকলিপিতে চারটি দাবি পেশ করা হয়। এরমধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো সন্ত্রাস-সহিংসতা, দখলদারি মুক্ত শিক্ষায় গণতান্ত্রিক পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে। শিক্ষার্থীদের ওপর হামলাকরী সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় পুলিশি হয়রানি ও গ্রেফতার বন্ধে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে। আটক শিক্ষার্থীদের মুক্তির জন্য আইনি পদক্ষেপ নিতে হবে।

স্মারকলিপির ব্যাপারে উপাচার্য বলেন, তিনি এসব বিবেচনা করবেন। তবে স্মারকলিপির ভাষার ব্যাপারে আরো যত্নশীল হওয়া উচিত বলে মন্তব্য করেন তিনি।

Print Friendly, PDF & Email