CC News

রাজশাহীতে বিএনপির পথসভায় হাতবোমা বিস্ফোরণ

 
 
রাজশাহী, ১৭ জুলাই: রাজশাহীর সাগরপাড়া বটতলার মোড়ে বিএনপির মেয়র প্রার্থীর পথসভার কাছে হাতবোমার বিস্ফোরণ ঘটানো হয়েছে। আজ মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকের এ ঘটনায় একজন সাংবাদিকসহ ৫ জন আহত হয়েছেন। আহতদের রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।
আহতরা হলেন, বাংলাভিশনের রাজশাহী ব্যুরো প্রধান পরিতোষ চৌধুরী আদিত্য, স্থানীয় দোকানদার স্বপন কুমার। এছাড়া বিএনপির পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে, তাদের কর্মী হাবিবুর রহমান, খোকন ও কালু আহত হয়েছেন।
এদিকে, বিএনপির পথসভায় বোমা বিস্ফোরণের খবর পেয়ে দ্রুত রামেক হাসপাতালে ছুটে যান মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও দলীয় মেয়র প্রার্থীর প্রধান নির্বাচনী সমন্বয়কারী ডাবলু সরকার এবং বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা সাবেক সংসদ সদস্য ও মেয়র মিজানুর রহমান মিনু। তারা উভয়ে ঘটনার জন্য পরস্পরকে দোষারোপ করেন।
বিএনপি নেতা মিজানুর রহমান মিনু বলেন, স্বেচ্ছাসবেক লীগ নেতা আবেদ এই বোমা হামলায় জড়িত। এসময় সেখানে উপস্থিত আওয়ামী লীগ নেতা ডাবলু সরকার প্রতিবাদ করে বলেন, ছাত্রদল নেতা জাবেদ এই বোমা হামলা চালিয়েছে। তবে পুলিশ বলছে, কে বা কারা ওই হাত বোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে তা জানতে অনুসন্ধান চলছে।
প্রসঙ্গত, ছাত্রদল নেতা জাবেদ এবং স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা আবেদ দুই সহোদর। তারা সাগরপাড়ার বাসিন্দা ও সাবেক কমিশনার আব্দুল লতিফের ছেলে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বিএনপির মেয়র প্রার্থী মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের নির্বাচনী প্রচারের অংশ হিসেবে গণসংযোগের উদ্বোধন উপলক্ষে মঙ্গলবার সকাল ১০টায় জেলা ছাত্রদল ওই পথসভার আয়োজন করে। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন বিএনপির রাজশাহী বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু।
এছাড়া বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান ও বিএনপির রাজশাহী বিভাগের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ শাহীন শওকত খালেক উপস্থিত ছিলেন।
সকাল সাড়ে ১০টায় পথসভা শেষের দিকে ও প্রধান অতিথি রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুর বক্তব্য চলাকালে মোটরসাইকেল যোগে আসা কয়েক যুবক পথসভার পাশে ৩টি হাতবোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়ে টিকাপাড়ার দিকে দ্রুত পালিয়ে যায়। এতে পথসভাটি পণ্ড হয়ে যায়। বোমার স্পিন্টারের আঘাতে বাংলা ভিশনের ব্যুরো প্রধান সাংবাদিক পরিতোষ চৌধুরী আদিত্য ও স্থানীয় দোকানদার স্বপন কুমার দাস আহত হন। তাদের রামেক হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। পরে বিএনপি নেতাকর্মীরা ঘটনাস্থলে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে।খবর পেয়ে পুলিশ ও র‌্যাব কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।
এ ব্যাপারে বিএনপি নেতা রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু সাংবাদিকদের বলেন, ‘ভোটারদের মধ্যে যে আতংক ছিল, তা কাটানোর চেষ্টা করছে বিএনপি। এরই মধ্যে ভোটাররা যেন ভোট কেন্দ্রে না যায় এ কারণে সরকার তাদের নির্বাচনী পথসভায় বোমা হামলা করেছে।’
বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা, সাবেক মেয়র ও সংসদ সদস্য মিজানুর রহমান মিনু বলেছেন, আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসীরা এই বোমা হামলা চালিয়েছে। তবে মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক রেজাউল ইসলাম বাবুল বলেছেন, আওয়ামী লীগের জন্ম মাটি ও মানুষ থেকে। বোমা, আগুন সন্ত্রাসের কাজ আওয়ামী লীগ করে না। বিএনপিই পরিকল্পিতভাবে বোমা বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আওয়ামী লীগ, সরকার ও নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে দোষ চাপানোর অপচেষ্টা করছে।
বোয়ালিয়া মডেল থানার ওসি আমানউল্লাহ বলেন, এ ঘটনায় জড়িতদের চিহ্নিত করতে পুলিশি অনুসন্ধান চলছে।
আরএমপির মুখপাত্র ও সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার ইফতেখায়ের আলম জানান, পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। জড়িতদের খুঁজে বের করতে পুলিশি তদন্ত চলছে।
Print Friendly, PDF & Email