CC News

পাকিস্তানে ইমরান খানের শিবিরে জয়োল্লাস

 
 

বুধবার দেশটিতে সাধারণ নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শেষে গণনা চলার মধ্যেই প্রাথমিক ফল দেখে জয়োল্লাস শুরু হয়ে গেছে ইমরান খানের দল পাকিস্তান তেহরিক-ই ইনসাফের (পিটিআই) শিবিরে।

মধ্যরাতে পিটিআইর অফিসিয়াল ফেইসবুক পাতায় ইমরান খানকে ‘উজিরে আজম’ হিসেবে অভিনন্দন জানিয়ে পোস্টও দিয়ে দেওয়া হয়েছে; যদিও ফল ঘোষণা তখনও শেষ হয়নি।

বর্তমানে ক্ষমতাসীন পাকিস্তান মুসলিম লীগ (নওয়াজ) এবং অন্যতম বড় দল পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি) অভিযোগ তুলেছে ভোট কারচুপির অভিযোগ তুললেও তাতে কান দেয়নি দেশটির নির্বাচন কমিশন।

পাকিস্তানের ৭১ বছরের ইতিহাসে এবার দ্বিতীয় বারের মতো নির্বাচনের মাধ্যমে একটি নির্বাচিত সরকার আরেকটি নির্বাচিত সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে যাচ্ছে। যদিও দেশটিতে বারবার রাষ্ট্র পরিচালনায় সেনা হস্তক্ষেপের ইতিহাস থাকায় ক্ষমতা হস্তান্তরের আগে কিছুই বলা যাচ্ছে না বলে মন্তব্য রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের।

বর্তমানে ক্ষমতায় থাকা নওয়াজ শরিফের দল পিএমএল-এন যেমন স্বস্তিতে দেশ পরিচালনা করতে পারেনি; তেমন পিপিপির হয়ে বেনজির ভুট্টোর সরকার পরিচালনাও নিষ্কণ্টক ছিল না।

ব্যাপক আলোচনার পাশাপাশি উদ্বেগের মধ্যেই বুধবার পাকিস্তানজুড়ে ২৭২টি পার্লামেন্টারি আসনে ভোটগ্রহণ হয়। ১০ কোটি ৬০ লাখ ভোটারের জন্য প্রস্তুত রাখা হয় ৮ হাজারের বেশি ভোটকেন্দ্র।

সারাদেশে রেকর্ড সংখ্যক প্রায় পৌনে ৪ লাখ নিরাপত্তাকর্মীর মোতায়েন করা হলেও সহিংসতা থেমে ছিল না। কোয়েটায় বোমাহামলায় নিহত হন অন্তত ৩১ জন। বেলুচিস্তান প্রদেশে একটি ভোটকেন্দ্রে গ্রেনেড হামলায় এক পুলিশ নিহত হন। মারামারি হয়েছে আরও অনেক এলাকায়।

পাকিস্তান জাতীয় পরিষদে সরাসরি নির্বাচনের মোট আসন সংখ্যা ২৭৪টি হলেও দুটি আসনে ভোট স্থগিত হওয়ায় ভোট দেন ২৭২ আসনের ভোটাররা। নারী ও সংখ্যালঘুদের জন্য নির্ধারিত বাকি ৭০টি আসন বিজয়ী দলগুলোর মধ্যে সংখ্যানুপাতে বণ্টন হবে।

সরকার গঠন করতে হলে যে কোনো দলকে ১৩৭টি আসনে জিততে হবে। কোনো সেই সংখ্যাটি অর্জন করতে পারবে না বলে প্রাথমিক ফলাফল আভাস দিচ্ছে; অর্থাৎ ঝুলন্ত পার্লামেন্টের দিকে যাচ্ছে পাকিস্তান।

দেশটির গণমাধ্যম মধ্যরাত পর্যন্ত ফলাফলের চিত্র দেখে যে আভাস দিচ্ছে, তাতে ইমরান খানের দল পিটিআই বেশি আসনে জয়ী হতে চলেছে। তবে তা একশ’র কাছাকাছি থাকবে। নওয়াজের দল জিততে পারে অর্ধশত আসন। বিলাওয়াল ভুট্টোর পিপিপি জিততে পারে ৩০টির মতো আসনে।

অর্থাৎ এগিয়ে থাকলেও ইমরান খানতে প্রধানমন্ত্রী হতে অন্য কোনো দলের দ্বারস্ত হতে হবে।

তবে সেই ভাবনায় এখনই না গিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে পিটিআইর কার্যালয়গুলোতে সমর্থকরা উল্লাসে ফেটে পড়েছেন। সকালে ইসলামাবাদে নিজের কেন্দ্রে ভোট দিতে যাওয়ার সময়ও ৬৫ বছর বয়সী ইমরানের চোখে-মুখে জয়ের যে রঙ লেগেছিল, তা এখন ছড়িয়ে পড়েছে সমর্থকদের মধ্যে।

পাকিস্তান ক্রিকেটের ‘বরপুত্র’ হিসেবে খ্যাত ইমরান রাজনীতিতে নেমে নিজেকে ইমেজ বদলে ফেলেন অনেকটাই; ধর্মকে বর্ম হিসেবে ব্যবহার এবং পাকিস্তানের রাজনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ সেনাবাহিনীর সঙ্গে সখ্য রাখার সমালোচনা তার বিরুদ্ধে রয়েছে। ভোটের প্রচার চলার মধ্যে সাবেক স্ত্রী রেহাম খান সরব হয়েছিলেন ইমরানের বিরুদ্ধে।

অভিযোগ উঠেছে, ইমরানকে পেছন থেকে মদদ দিচ্ছে সেনাবাহিনী; আর তাই পরিকল্পিতভাবে হয়রানি করা হয়েছে নওয়াজের পরিবারকে।

এই অভিযোগের সমর্থন পাওয়া গেছে পাকিস্তান হাই কোর্টের এক বিচারকের কথায়; তিনি গত রোববার বলেছিলেন, প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই বিচার বিভাগের কাজেও হস্তক্ষেপ করছে।

ভোটগ্রহণ শেষে পাকিস্তান সেনাবাহিনী আবার জনগণকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন ‘অপপ্রচারে’ কান না দেওয়ার জন্য। সেনাবাহিনীর মুখপাত্র মেজর জেনারেল আসিফ গফুর এক বিবৃতিতে বলেছেন, “পাকিস্তানের জনগণকে ধন্যবাদ। বিশ্ববাসী দেখল দেশের প্রতিরক্ষা বাহিনীর প্রতি আপনাদের ভালবাসা ও শ্রদ্ধা।”

এদিকে ভোটগ্রহণ শেষে ফল ঘোষণা শুরুর আগেই কারচুপির অভিযোগ তোলেন নওয়াজ শরিফের দলের মুখপাত্র মরিয়ম আওরঙ্গজেব।

তিনি সাংবাদিকদের বলেন, অধিকাংশ ভোটকেন্দ্র থেকে তাদের পোলিং এজেন্টকে বের করে দিয়ে ভোট গণনা চলছে। অর্থাৎ সাজানো ফল ঘোষণার প্রস্তুতি চলছে।

একই অভিযোগ তুলেছেন পিপিপি নেতা মওলা বক্স চান্দিও এবং আরও কয়েকটি দলের নেতা।

পাঞ্জাব নিয়ে এসব অভিযোগ বেশি উঠলেও প্রাদেশিক নির্বাচন কমিশনার তা নাকচ করে বলেছেন, কোনো ধরনের প্রমাণ ছাড়া এরকম ভিত্তিহীন অভিযোগ তোলা ঠিক নয়।

নির্বাচন কর্মকর্তারা বলছেন, প্রতিটি কেন্দ্রে একটি দলের কেবল একজন এজেন্টকেই থাকতে দেওয়া হচ্ছে।

অভিযোগ উঠেছে ভোট গ্রহণে দেরি করার, যাতে অনেক ভোটার তাদের ভোট দিতে পারেননি।

নওয়াজের দল পিএমএল-এন ভোটগ্রহণের সময় বাড়ানোর দাবি তুলেছিল, একই দাবি তুলেছিল পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগও। এমনকি ইমরানের দল পিটিআইও এই দাবি জানিয়েছিল।

তবে নির্বাচন কমিশন তাতে সাড়া দেয়নি। ফলে নির্ধারিত সময় সন্ধ্যা ৬টায়ই বন্ধ হয়ে যায় ভোটকেন্দ্রের দরজা। এরপর শুরু হয় গণনা, যা শেষ হওয়ার অপেক্ষায় এখন পুরো পাকিস্তান।

Print Friendly, PDF & Email