CC News

সৈয়দপুরে তিনশত ভুমিহীনের স্বপ্নেরনীড়

 
 

।। এম আর মহসিন ।। শেখের বেটি হামাক বাড়ি বানে দিছে, আল্লাহ তাক হাজার বছর বাছি থুক”। স্বপ্নেরনীড় প্রাপ্তির আনন্দে আত্বহারা হয়ে প্রার্থনাময় এমন অভিব্যাক্তি প্রকাশ করেন সৈয়দপুর উপজেলার খাতামধুপুর ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের বালাপাড়া গ্রামের ভিক্ষুক বিধবা ছপিয়া বেওয়া(৬১)। কারণ ‘আসমানি” এর মত বসতঘরে খড়তাপ, বৃষ্টি ভেজা রাত আর শীতের প্রকোপে কুকড়িয়ে কেটেছে তার কয়েক যুগের জীবন প্রবাহ। এটি পরিবর্তনের স্বপ্ন থাকলেও সম্ভব ছিলনা। তবে আজ সেই সাধ পুরণের পথে। সরকারের দেয়া আশ্রায়ন প্রকল্পের মাধ্যমে তারমত প্রায় তিনশত গৃহহীন দরিদ্রের পরিবার ঘর পাওয়ায় সকলেই বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর মঙ্গলময় জীবনের প্রার্থনা করেন।

জানা যায়, বর্তমান সরকারের বিশেষ প্রতিশ্রুতিতে ২০১৭-১৮অর্থ বছরের আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের অধিনে জমি আছে যার, ঘর নাই তার’ শীর্ষক প্রকল্পে গৃহহীনদের গৃহনির্মান বাস্তবায়নের উদ্যগ নেয়। এই প্রকল্পের অওতায় সৈয়দপুর উপজেলায় দরিদ্র ভুমিহীন পরিবার বাছাই করে একটি ঘর ও একটি ল্যাট্রিন নির্মানের জন্য ১লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। এতে উপজেলার ৫ ইউনিয়নের ৩শত জনকে বাছাই করা হয়। এই প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছেন সংশ্লিষ্ট উপজেলার নির্বাহী অফিসার এবং প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসার।

এতে সরজমিনে তদন্ত করে গৃহহীনদের তালিকা তৈরী করেন ইউনিয়ন পরিষদের সকল চেয়ারম্যানগন।
সূত্র জানায়,যাদের এক শতাংশ থেকে ১০শতাংশ জমি রয়েছে, কিন্তু ঘর নেই বা থাকলেও তা বসবাসের অনুপযোগী এমন ব্যক্তিরা এই প্রকল্পের সুবিধা ভোগ করবেন। এছাড়া দুঃস্থ্য, অসহায় মুক্তিযোদ্ধা, বিধবা মহিলা, স্বামী পরিত্যক্তা, প্রতিবন্ধি,উপার্জনে অক্ষম, ভিক্ষুক ও অতি বার্ধক্য এবং পরিবারের আয় উপার্জনক্ষম সদস্য নেই তারা কেবল এমন সুবিধা পাবেন। এতে সৈয়দপুর উপজেলায় ২০১৭-১৮ অর্থবছরে তিন কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। যা ৩ শতটি পরিবারের ঘর নির্মাাণে বরাদ্দ দেওয়া হয় প্রতিটির জন্য এক লাখ টাকা। এতে এক ইউনিয়নে ৬০টি করে ৫ ইউনিয়ন মিলে ৩ শত ঘর নির্মাণ করা হবে। যার নির্মান কাজ চলমান রয়েছে। এর তদারকিতে রয়েছেন পিআইও (সদস্যসচিব), উপজেলা প্রকৌশলী, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও পিআইসিসহ ৫ সদস্যর কমিটি।

সরেজমিনে দেখা যায়, এ প্রকল্পের আওতায় উপজেলার খাতামধুপু ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ডের সরকার পাড়ার রমজান আলী(৫০)র স্ত্রী আকিমন নিছা। ৪ সদস্য নিয়ে বসবাস করছেন জরাজির্ণ একটি কুড়েঘরে। এতেই কাটে তাদের কয়েক যুগের দাস্পত্য জীবন। আকিমন নিছা স্থানিয় চেয়ারম্যানের মাধ্যমে এমন একটি ঘর পেয়ে আনন্দিত। তিনির বলেন, শেখ হাসিনা আমাদের দিকে নজর দেয়ায় এমন একটি ঘর পেয়েছি। এজন্য কাউকে কোন টাকা দিতে হয়নি। ওই ওয়ার্ডের পাইকার পাড়া গ্রামের এ প্রকল্পের সুবিধাভোগি সদস্য আজহারুল ইসলামের অনুপস্থিতিতে তার ছেলে এরশাদের স্ত্রী মনোয়ারা বেগম বলেন, ঘরের অবোকাঠামোগুলো উন্নত ইতিমধ্যে পিলার স্থাপন,ইটের সিমানা প্রাচির,বালু সিমেন্ট খোয়া দিয়েছে। সেগুলো দিয়ে ঘর নির্মানের কাজ করছে সরকার। এরজন্য কোন ব্যায় হয়নি। তারমত গৃহহীন সদস্য নেবরু রায়,মোছাঃ রাবেয়া,মুক্তা বেগম,হৈমন্ত চন্দ্র, চেলু মামুদসহ সকল সুবিধা ভোগি ৩ শতাধিক সদস্য একই বলেন। এরজন্য দোয়া করেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রীকে।

খাতামধুপুর ইউপির চেয়ার‌্যান মোঃ জুয়েল চৌধুরী জানান, এর আওতায় ৬০ জন গৃহহীনকে ২৯৭ বর্গফুটের সেমি পাকা ঘর, প্রতিটি পরিবার টিন শেডের চারচালার একটি ঘর, একটি ল্যাট্রিন তৈরী করে দেওয়া হচ্ছে।
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ও ঘর নিমার্ণ কমিটির সদস্য সচিব মোফাখখারুল ইসলাম বলেন, উপজেলায় ৩শত গৃহহীনকে পুর্নবাসন করা হচ্ছে। যার জন্য পরিবার প্রতি ১ লাখ টাকা বরাদ্দ এসেছে। কমিটির মাধ্যমে ঘর নিমার্ণ কাজ ইতোমধ্যে সম্পন্ন করা হচ্ছে। আমরা দফায় দফায় গৃহহীনদের এ নিয়ে মতবিনিময়ও করেছি।
উপজেলা আশ্রায়ন-২ প্রকল্প বাস্তবায়ন টাক্সফোর্স এর সভাপতি ও সৈয়দপুর উপজেলার নির্বাহী অফিসার মোঃ বজলুর রশীদ বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি প্রকল্পের গৃহহীনদের গৃহ নির্মাণ বাবদ ৩ কোটি টাকা বরাদ্দ পেয়েছি। প্রেরিত প্লান, ডিজাইন ও প্রাক্কলন মোতাবেক গুনগত মান বজায় রেখে গৃহহীনদের ঘর নির্মান করা হচ্ছে।
এ নিয়ে গত ২৮ জুলাই নীলফামারী জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুর রহীম খাতামধুপুর ইউনিয়নের নির্মাণাধীন ঘরগুলো পরিদর্শন করে সন্তোষ প্রকাশ করেন।

Print Friendly, PDF & Email