CC News

জামায়াত ছাড়ার পরামর্শ তৃণমূল নেতাদের

 
 

ঢাকা, ০৪ আগষ্ট: ২০ দলীয় জোট থেকে জামায়াতে ইসলামীকে ছাড়তে বিএনপির হাইকমান্ডকে পরামর্শ দিয়েছেন তৃণমূল থেকে আসা নেতারা। তাঁরা বলছেন, সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনে জামায়াতের প্রার্থী মাঠে থাকার পরও বিএনপির মেয়র পদপ্রার্থী জয়ী হয়ে আসা প্রমাণ করে ভোটের রাজনীতিতে জামায়াত এখন আর বড় কোনো ‘ফ্যাক্টর’ নয়। বরং জামায়াতকে ত্যাগ করে সমমনা অন্য দলগুলোকে জোটে ভেড়ালে বিএনপি আরো শক্তিশালী হবে।

শুক্রবার গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে দুই দিনব্যাপী তৃণমূল নেতাদের সঙ্গে বিএনপির হাইকমান্ডের বৈঠকের প্রথম দিনে এই চিত্র উঠে এসেছে। প্রথম দফায় সকাল সাড়ে ৯টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের ১৯টি সাংগঠনিক জেলার সঙ্গে বৈঠক করেন দলটির সিনিয়র নেতারা। পরে বিকেল ৩টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত দ্বিতীয় দফায় খুলনা ও বরিশালের ২২টি সাংগঠনিক জেলার নেতাদের সঙ্গে বৈঠক হয়। বিএনপির ১০টি সাংগঠনিক বিভাগের মধ্যে বাকি ছয়টি সাংগঠনিক বিভাগের নেতাদের বৈঠক আজ শনিবার অনুষ্ঠিত হবে। সকাল ৯টা থেকে চট্টগ্রাম, সিলেট ও কুমিল্লা এবং বিকেল ৩টা থেকে হবে ঢাকা, ময়মনসিংহ ও ফরিদপুর সাংগঠনিক বিভাগের নেতাদের বৈঠক।

বৈঠকে প্রতিটি জেলার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বক্তব্য দেন। যে জেলার সভাপতি কিংবা সাধারণ সম্পাদক বক্তব্য দেননি সেই জেলার সিনিয়র সহসভাপতি কিংবা সাংগঠনিক সম্পাদক বক্তব্য দেন। এসব নেতা বক্তব্যের শুরুতে নিজ জেলার সাংগঠনিক চিত্র তুলে ধরেন। জেলা-উপজেলার কমিটির বর্তমান অবস্থান, গ্রুপিং-কোন্দল, নিষ্ক্রিয় নেতাদের অবস্থান, নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলার সংখ্যা, আহত-নিহতদের পরিসংখ্যান ছাড়াও সংগঠনকে শক্তিশালী করার পরামর্শ উঠে আসে তাঁদের বক্তব্যে। বৈঠকে নেতারা বলেছেন, এখনো অনেক জেলায় দলীয় কার্যালয়ে তাঁরা বসতে পারছেন না। কর্মসূচি পালন করতে হচ্ছে লুকিয়ে। মামলা-হামলার ভয়ে এলাকাছাড়া রয়েছেন। তাই এ ধরনের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি দিয়ে সরকারকে টলানো যাবে না। এ জন্য দরকার ‘ডু অর ডাই’ কর্মসূচি।

বৈঠকে দলের যুগ্ম মহাসচিব ও সাংগঠনিক সম্পাদকদের মতোই তৃণমূল নেতারা জোর দিয়ে বলেছেন, কারাবন্দি দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে বাইরে রেখে জাতীয় নির্বাচনে অংশ নিতে তাঁরা ইচ্ছুক নন। একই সঙ্গে ঢাকা মহানগর বিএনপির কার্যক্রম নিয়ে হতাশা প্রকাশ করেছেন তাঁরা। এ ছাড়া খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং একটি সুষ্ঠু, অবাধ, নিরপেক্ষ নির্বাচন আয়োজনের দাবিতে রাজপথে, বিশেষ করে ঢাকায় আন্দোলন জোরদারের পরামর্শ তাঁদের। জবাবে কেন্দ্রীয় নেতারা স্বল্পমেয়াদি ও কার্যকর আন্দোলনের জন্য প্রস্তুতি নেওয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন। আর এ জন্য নিজ নিজ জেলার ইউনিয়ন-ওয়ার্ড পর্যন্ত সংগঠনকে ঢেলে সাজানোর কথা বলেছেন।

বৈঠকে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সভাপতিত্বে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী ছাড়াও সংশ্লিষ্ট বিভাগের সাংগঠনিক ও সহসাংগঠনিক সম্পাদকরা উপস্থিত ছিলেন।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, বৈঠকে আগামী দিনের আন্দোলনসহ বিভিন্ন বিষয়ে তৃণমূল নেতারা মতামত দিয়েছেন। বিশেষ করে চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির প্রশ্নে তাঁরা জোর দিয়েছেন। তিনি বলেন, তৃণমূলের মতামত পর্যালোচনা করে পরে স্থায়ী কমিটির বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। এক প্রশ্নের জবাবে ফখরুল বলেন, শরিক দল জামায়াত সম্পর্কে অনেক কথা বলা হচ্ছে। কিন্তু তারা এখনো ২০ দলীয় জোটে আছে।

তৃণমূল নেতাদের মধ্যে জেলা ও মহানগর কমিটির সভাপতি, সিনিয়র সহ-সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, সিনিয়র যুগ্ম-সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদকরা উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকের আলোচ্য বিষয়টি গোপনীয় রাখতে নির্দেশ দেওয়া হয় অংশ নেওয়া নেতাদের।

জানতে চাইলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, তৃনমূলের নেতারা বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন। তাদের বক্তব্যে খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলন প্রধান বিষয় ছিল।

মেহেরপুর জেলা বিএনপির সভাপতি মাসুদ অরুন বলেন, সাংগঠনিক পুর্নগর্ঠন ও আগামী দিনের আন্দোলন সংগ্রাম নিয়ে পরামর্শ এসেছে বৈঠকে।

প্রথম দফা বৈঠকে থাকা কুষ্টিয়া জেলা বিএনপির জেলা পর্যায়ের শীর্ষ পদে থাকা এক নেতা জানান, বিএনপির রাজশাহী বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু জামায়াতকে সঙ্গে রাখা নিয়ে মত দিয়েছেন। তিনি বলেন, সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে জামায়াতের প্রার্থী থাকার পরও বিএনপির মেয়র প্রার্থী জয়লাভ করেছে। এতে প্রমাণিত হয় ভোটের রাজনীতিতে জামায়াত বিএনপির জন্য কোনো সমস্যা নয়। ফলে আগামী নির্বাচনের আগে খালেদা জিয়ার ডাক দেওয়া জাতীয় ঐক্য করতে জোট থেকে জামায়তকে বাদ দেওয়া দরকার। জাতীয় ঐক্যের প্রসঙ্গ টেনে দুলু বলেছেন, ড. কামাল হোসেন, একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরীসহ আরো অনেকে বিএনপির সঙ্গে স্বাধীনতা বিরোধী দল জামায়াতকে রাখায় জাতীয় ঐক্য করতে রাজি হচ্ছে। ফলে এখন দলের নীতিনির্ধারকদের উচিত হবে জামায়াতকে বাদ দিয়ে সরকারের বাইরে থাকা ডান-বাম সবদলকে নিয়ে জাতীয় ঐক্য করা।

জোট থেকে জামায়াতকে ছেড়ে দেওয়া নিয়ে দুলুর বক্তব্য সমর্থন করে বক্তব্য রাখেন রংপুর বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুল হাবিব দুলু। তিনি বলেন, জাতীয় ঐক্যের প্রয়োজনে এখন জোট থেকে জামায়াতকে বাদ দেওয়া যেতে পারে। তাদের এই বক্তব্য সমর্থন করে জেলার নেতারাও এই দুই সাংগঠনিক সম্পাদকের বক্তব্যকে সমর্থন রাখেন। রাজশাহী বিভাগের এক নেতা বলেন, রাজশাহী সিটি নির্বাচনে তাদের ঐক্য ছিল না। দলীয় প্রার্থীকে হারানোর জন্য কেউ কেউ তৎপর ছিলেন। যে কারনে কেন্দ্র দখল হলেও তা প্রতিরোধ সম্ভব হয়নি। ওই বিভাগের আরেক নেতা বলেন, বিগত দিনের আন্দোলনে সারাদেশ সফল হলেও শুধু ঢাকার ব্যর্থতার কারণে তারাও ব্যর্থ হয়েছেন। এবারও তারা ঢাকা মহানগর বিএনপির নেতৃত্বের প্রতি আস্থা রাখতে পারছেন না। সম্প্রতি ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির ঘোষিত কমিটি নিয়ে যে ধরণের নেতিবাচক তথ্য ছড়িয়ে পড়েছে তাতে সেই আস্থার জায়গা একেবারেই নেই। তিনি বলেন, ঢাকার নেতারা মাঠে না নামলে জেলার নেতারাও উৎসাহ হারিয়ে ফেলেন।

রংপুর বিভাগের এক নেতা বলেছেন, খালেদা জিয়া ছাড়া কোনো জাতীয় নির্বাচন হতে দেওয়া হবে না। এ জন্য আগামী দিনে তার মুক্তির এক দফার আন্দোলন হবে। তিনি মুক্তি পেয়ে জাতীয় নির্বাচনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত দেবেন। স্থানীয় নির্বাচনে অংশ নেওয়ার জন্য বিএনপিকে ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, এসব নির্বাচনে সরকারের মুখোশ জনগণের কাছে প্রকাশ পাচ্ছে।

দ্বিতীয় দফার বৈঠকে থাকা নেতারা বলেছেন, যেসব জেলায় কমিটি নেই তা দ্রুত করতে হবে। অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলো কেন্দ্র থেকে জেলা ও উপজেলার কমিটিগুলো করে দিচ্ছে। এতে আপত্তি জানিয়ে তারা বলছেন, এর ফলে আন্দোলন সংগ্রাম করতে গিয়ে নিজেদের লোক পেতে হিমশিম খাচ্ছেন তারা।

বৈঠকে পর যশোর জেলা বিএনপির সাধারণ অ্যাডভোকেট সৈয়দ সাবেরুল হক সাবু সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা আন্দোলেনর মাধ্যমে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে আনার কথা বলেছি। কারণ সরকার তার মামলাকে রাজনৈতিকভাবে নিয়েছে। তাই আইনিভাবে তাকে মুক্ত করা সম্ভব নয়। তবে আন্দোলনের শুরুটা করতে হবে ঢাকা থেকে। কারণ আন্দোলনে মূল কেন্দ্রবিন্দু হচ্ছে ঢাকা’।

চুয়াডাঙ্গা জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক খন্দকার আব্দুর জব্বার সোনা বলেন, ‘সংগঠনের মধ্য দ্বন্দ্ব আন্দোলনের সফলতা আসে না। এছাড়া বিএনপির অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের জেলা কমিটি দেওয়ার আগে জেলা বিএনপির নেতাদের সঙ্গে পরামর্শ করে দেওয়ার জন্য বলেছি’। মাগুরা জেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক আখতার হোসেন বলেন, অতীতে দেখা গেছে তৃণমূলে আন্দোলন সফল হলেও ঢাকা ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে। তাই এবার কঠোর আন্দোলনে নামার আগে ঢাকায় সাংগঠনিক শক্তি বৃদ্ধি করতে হবে।

Print Friendly, PDF & Email