CC News

নীলফামারীর বিলুপ্ত ছিটমহলবাসী স্মরণ করলো জাতির জনককে

 
 

নীলফামারী প্রতিনিধি, ১৫ আগষ্ট: নীলফামারীর ডিমলায় বিলুপ্ত চার ছিটমহলে প্রথম বার পালিত হলো মহান স্বাধীনতার স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানে ৪৩তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস।
আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নীলফামারী-১(ডোমার-ডিমলা) আসনে আওয়ামী লীগ দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী ব্যারিষ্টার ইমরান চৌধুরী জনির সার্বিক সহযোগীতায় বুধবার সূর্যদ্বয়ের সাথে সাথে বিলুপ্ত ছিটমল নয়াবাংলায় (সাবেক ছোটখানকি ছিটমহল) শহীদ স্মৃতি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে অর্ধনমিত জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে দিন ব্যাপী কর্মসূচি শুরু হয়।
সকাল সাড়ে আট থেকে ওই বিদ্যালয় মাঠে জড়ো হতে শুরু করে সাবেক চার ছিটমহলের নারী, পুরুষ ও শিশুরা।
সকাল ৯টার দিকে সকলে কালো ব্যাজ ধারণ করে শোক র‌্যালী বের করে। র‌্যালীটি নয়াবাংলার বিভিন্ন রাস্তায় পদক্ষিণ করে। পরে নীলফামারী-১(ডোমার-ডিমলা) আসনে আওয়ামী লীগ দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী ব্যারিষ্টার ইমরান চৌধুরী জনির নেতৃত্বে বিদ্যালয়ের শহীদ মিনার চত্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পূষ্পমাল্য অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন সাবেক ছিটমহলবাসী।
এরপর সেখানে আলোচন সভা, দোয়া মাহফিল ও বঙ্গবন্ধুর জীবনী নিয়ে শিশুদের রচনা লিখন ও চিত্রাংকন প্রতিযোগীতা এবং পুরস্কার বিতরন অনুষ্ঠিত হয়।
সাবেক ছিটমহল আন্দোলন কমিটির নেতা ফরহাদ হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ব্যারিষ্টার ইমরান চৌধুরী জনি।
এসময় বক্তব্য রাখেন মুক্তিযোদ্ধা নূর মোহাম্মদ, আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল আউয়াল, আবুল হোসেন, শহীদ স্মৃতি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মনির উদ্দিন, শিক্ষিকা বাছিরন বেগম প্রমূখ।
সাবেক ছিটমহল আন্দোলন কমিটির নেতা ফরহাদ হোসেন জানান,‘বিলুপ্ত ছিটমলবাসী এই প্রথম বার জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালন করলো। তিন বছর আগে ছিটমহল বিলুপ্ত হয়েছে। আমরা এখন বাংলাদেশের নাগরিক। বিগত তিন বছরে কেউ এখানে জাতির জনকের শাহাদত বার্ষিকী কিংবা জাতীয় শোক দিবস পালনের উদ্যোগ নেয়নি। কিন্তু এবার ব্যারিষ্টার ইমরান চৌধুরী জনি সাহেব সার্বিক সহযোগীতায় আমরা সাবেক ছিটমহল বাসী জাতীয় শোক দিবসে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্মরণ করতে পারলাম।’
ব্যারিষ্টার ইমরান চৌধুরী জনি বলেন, ‘ছিটমল বিলুপ্ত হয়েছে তিন বছর আগে। ছিটমহলের মানুষ তিন বছর আগে বাংলাদেশের নাগরিক হয়েছে। অথচো এই তিন বছরে এক বারের জন্যে বাংলাদেশের নতুন এই ভূখন্ডে দলীয় কিংবা সরকারি ভাবে বাংলাদেশের স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদত বার্ষিকী কিংবা জাতীয় শোক দিবস পালনের উদ্যোগ নেয়নি কেউ। তবে এখন থেকে প্রতিবছর সাবেক এই ছিটমহলে জাতীয় শোক দিবস পালন হবে এবং এই এলাকার মানুষ মহান স্বাধীনতার স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে গভীর ভাবে স্মরণ করবে।’

Print Friendly, PDF & Email