CC News

ভিজিএফ’র চাল বিতরণে অনিয়ম

 
 

|| এম আর মহসিন || ঈদুল আযহা উপলক্ষে নীলফামারীতে অসহায় ও দুস্থ্য পরিবারের মাঝে ভিজিএফ’র চাল বিতরণে ওজনে কম, সচ্ছল ও একই ব্যক্তিকে একাধিক কার্ড দিয়ে চাল উত্তোলন করছে। এ নিয়ে দুস্থরা প্রতিবাদ করলে তাদের এক মুষ্টি চাল অতিরিক্ত দিয়ে বিদায় করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

শুক্রবার সরেজমিন জেলার সৈয়দপুর উপজেলার বোতলাগাড়ী ইউপিতে দেখা যায়, মিটার স্কেলের মাধ্যমে চলছে চাল বিতরণ। বাকি ইউপিতে ডিজিটাল মিটার এর পরিবর্তে চাল মাপা হচ্ছে টিনের ডিব্বায় ভরে সাধারণ পাল্লায়। এতে ১৫ থেকে ১৬ কেজি চাল উঠছে। আবার অনেকের হাতে ৭ থেকে ৮টি কার্ড দেখা গেছে।  এদের মধ্যে অনেকে সচ্ছল পরিবারের লোকজনও রয়েছে।

কাশিরাম বেলপুকুর ইউপির পাকাধারা  গ্রামের কফিল উদ্দিন জানান, ইউপি চেয়ারম্যানের আত্মীয় ও দলের নেতাকর্মীরা  ৫ থেকে ৬টি করে কার্ডের চাল উত্তোলন করেছেন। এ নিয়ে প্রতিবাদ করলে এক মুষ্টি চাল বেশি দিয়ে তাড়ানো হচ্ছে দুস্থদের।

খাতামধুপুর ইউনিয়ন পরিষদের অবস্থা একই। এখানে চাল কম দেয়ার বিস্তর অভিযোগ করছেন দুস্থরা। কমলা(৪৩) নামে এক দুস্থ মহিলা জানান, চাল উত্তোলনের পর দোকানে গিয়ে মেপে দেখি সেখানে ১৫ কেজি চাল। এভাবে সকলকে দেওয়া হচ্ছে। এখানে কোন প্রতিবাদ করা যাচ্ছে না।

এ নিয়ে ওই এলাকার নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক দুস্থ ব্যাক্তি জানান, তারা বহন,মজুরি ও অন্যান্য ব্যয়ের অজুহাত দেখিয়ে চাল কম দিচ্ছে। এতে সবাই বিষয়টি নিরবে মেনেই চাল নিচ্ছে। এভাবে সবকটি ইউপিতে চলছে চাল বিতরণের অনিয়ম। তবে সৈয়দপুর পৌরসভায় দেখা গেছে এর ব্যাতিক্রম। পৌর কতৃপক্ষ আগে থেকেই ১০ কেজির করে দুটি প্যাকেটে মেপে রেখে দুস্থ পৌরবাসির মধ্যে সুশৃঙ্খল ভাবে বন্টন করেছেন।

তবে চাল কম দেওয়ার বিষয়ে সকল ইউপি চেয়ারম্যানের সাথে কথা বললে তারা এ অভিযোগ অস্বীকার করেন। একজনের হাতে এতো কার্ড কেন জানতে চাইলে? কাশিরাম বেল পুকুর ইউপির চেয়ারম্যান এনামুল হক চৌধুরী জানান, উপজেলা চেয়ারম্যান,মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন চেয়ারম্যানের মিলে কার্ড বিতরণ করায় হয়তো এ অবস্থা। তবে স্থানিয় ভাবে আইডি কার্ড দেখে প্রতিজনকে একটি কার্ড দেওয়া হয়েছে।

ডোমারে ৮৮ বস্তা ভিজিএফ চাল জব্দ

নীলফামারীর ডোমার উপজেলায় ৮৮ বস্তা ভিজিএফ চাল জব্দ করা হয়েছে। এসময় ছয়টি গোডাউন সিলাগালা করা হয়। বৃহস্পতিবার (১৬ আগস্ট) সন্ধ্যা ৭টা হতে রাত ১১টা পর্যন্ত উপজেলার জোড়াবাড়ি ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছা: উম্মে ফাতিমা ও পুলিশ যৌথভাবে অভিযান চালিয়ে এসব চাল জব্দ করে।
অভিযোগে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার (১৬ আগস্ট) জোড়াবাড়ি ইউনিয়নে কোন নিয়ম না মেনে ভিজিএফ চাল বিতরন করা হয়। এক জন ব্যাক্তি একটি কার্ডের চাল উত্তোলনের নিয়ম থাকলেও এক জন ব্যাক্তিকে পাঁচটি কার্ডের চাল দেওয়া হয়। চাল উত্তোলনকারীদের কাছে মাস্টাররোল খাতায় কোন টিপসইও নেওয়া হয় নাই। এ সুযোগে ইউপি সদস্য ও চেয়ারম্যানসহ কালোবাজারিরা বিভিন্ন জায়গায় চাল মজুদ করে রাখে বলে এলাকাবাসী অভিযোগ করে। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ইউএনও ও পুলিশ অভিযান চালিয়ে ওই ইউনিয়নের তিন নং ওয়ার্ডে গ্রাম পুলিশ আফজাল হোসেনের বাড়ির গোডাউনে ৫০ কেজি ওজনের ৪৬ টি বস্তা ও ৩০ কেজি ওজনের ১৯টি বস্তা মোট ৬৫ বস্তা, ইউনিয়ন পরিষদ সংলগ্ন তরিকুল ইসলাম বাবলুর গোডাউনে ৫০ কেজি ওজনের নয় বস্তা ও ইউপি চেয়ারম্যানের বাড়ি সংলগ্ন আলতাফ হোসেনর গোডাউনে ৫০ কেজি ওজনের আট বস্তা ও ৩০ কেজি ওজনের ছয় বস্তা চাল জব্দ করে ওই তিনটি গোডাউনে ও চাল বিতরনের জন্য মজুদ করে রাখা ইউনিয়ন পরিষদের তিনটি গোডাউনে সিলগালা করা হয়। অভিযান চলাকালীন সময়ে বিভিন্ন স্থানে মজুদ করে রাখা ভিজিএফ চাল সরিয়ে ফেলারও অভিযোগ উঠেছে।
এ ব্যাপারে জোড়াবাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হাসান জানান, চাল বিতরনে এখনো বাকি রয়েছে। সঠিক কত বস্তা চাল আছে তা বলা সম্ভব নয়। ইউনিয়নের তিনটি গোডউিনেই ইউএনও সিলগালা করেছে।
উপজেলা নির্বাহী মোছা: উম্মে ফাতিমা জানান, ভিজিএফ কমিটি ও উদ্ধত্বন কতৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

নাগেশ্বরীতে ভিজিএফ’র সাড়ে ৩০০ বস্তা চাল উদ্ধার

কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার কালিগঞ্জ ইউনিয়নের কালিগঞ্জ বাজারে সাড়ে ৩০০ বস্তা ভিজিএফ’র চাল উদ্ধার করা হয়েছে। সেসব চাল রাখার দায়ে ৬টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সিলগালা করে দিয়েছেন নাগেশ্বরী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শঙ্কর কুমার বিশ্বাস।

বৃহস্পতিবার বিকেলে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নাগেশ্বরী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সরেজমিনে কালিগঞ্জ বাজারে চাউল ব্যবসায়ীদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ভিজিএফ’র চাউলের বস্তা দেখতে পেয়ে নেসব প্রতিষ্ঠান সিলগালা করে দেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শঙ্কর কুমার বিশ্বাস জানান, আমি খবর পেয়ে সরেজমিনে ৬ জন চাল ব্যবসায়ীর গোডাউন ঘরে প্রায় সাড়ে ৩০০ বস্তা ভিজিএফ’র চাল দেখতে পেয়ে সে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো সিলগালা করে দিয়েছি। যেহেতু সরকারি রিলিফের চাল বিক্রি যোগ্য নয়, সেহেতু ভিজিএফ’র এসব চাউল যাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে পাওয়া গেছে আইন অনুযায়ী তাদের বিরুদ্ধে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ঈদুল আযহা উপলক্ষে হতদরিদ্র ও দুস্থদের জন্য ২০ কেজি করে চাউল বিতরণের জন্য জেলার প্রতিটি ইউনিয়নে চাল বরাদ্দ দেয় সরকার। গত ১০ ও ১১ আগষ্ট প্রতিটি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সেই চাউল সরকারি গোডাউন থেকে উত্তোলন করে ইউনিয়ন পরিষদের গোডাউনে মজুদ রেখে পর্যায়ক্রমে বিতরণ শুরু করে। অনেক ইউনিয়নে এখনও ভিজিএফ’র চাউল বিতরণ শেষ হয়নি।

এদিকে বিতরণের জন্য ২৯০০ বস্তা (৮৯ মেট্রিকটন) চাল উত্তোলন করেন কালিগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমান। এর মধ্যে গত ১২ আগষ্ট থেকে বিতরণ শুরু করলেও ২৫০ বস্তা চাল এখনও বিতরণ করতে পারেননি।

এ ব্যাপারে নাগেশ্বরী উপজেলার কালিগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আতিয়ার রহমান জানান, আমি গত ১০ ও ১১ আগষ্ট সরকারি গোডাউন থেকে ভিজিএফ’র চাউল উত্তোলন করে তা বিতরণ শুরু করেছি। আমার ইউনিয়নে চরাঞ্চল থাকায় এখনও ২৫০ বস্তা চাউল বিতরণ করতে পারিনি। তবে কালিগঞ্জ বাজারে ব্যবসায়ীদের প্রতিষ্ঠানে ভিজিএফ’র চাউল থাকার বিষয়টি আমি জানি না।

Print Friendly, PDF & Email