CC News

ফুটবল জাদুকর সামাদের সেই অবিশ্বাস্য ঘটনাটি

 
 

সিসি ডেস্ক, ৩ সেপ্টেম্বর: কয়েকজনকে কাটিয়ে শট নিলেন পোস্টে। বল জালে জড়াল না, ফিরল ক্রসবারে লেগে। মাথা নাড়িয়ে বিস্ময় জানাচ্ছেন ফরোয়ার্ড সৈয়দ আব্দুস সামাদ। দ্বিতীয়বারও বল ক্রসবারে লেগে ফিরলে রেফারির কাছে জানালেন অভিযোগ। তাঁর দৃঢ় বিশ্বাস পোস্টের উচ্চতা কম আছে। কারণ সামাদের শটের মাপ ভুল হতে পারে না কখনো! রেফারি হতবাক। বাঁশি বাজাতে নেমে জীবনে শোনেননি এমন অভিযোগ। সিদ্ধান্ত নিলেন গজ ফিতা দিয়ে মাপা হবে পোস্ট। মাপা হলোও। সত্যি সত্যিই ৪ ইঞ্চি ছোট পোস্ট! সৈয়দ আব্দুস সামাদের নাম এমনি এমনিই তো আর জাদুকর সামাদ হয়নি। তাঁকে ঘিরে চালু থাকা অজস্র জনশ্রুতির এটিও একটি।

ঘটনাটি ঘটেছিল ইন্দোনেশিয়ায়। সর্বভারতীয় দলের অধিনায়ক ছিলেন জাদুকর সামাদ। দলের হয়ে সফর করেছেন মিয়ানমার, শ্রীলঙ্কা, হংকং, চীন, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, ব্রিটেন ও ইন্দোনেশিয়া। ইন্দোনেশিয়ায় খেলেছিলেন জাভা ও সুমাত্রায়। তাঁর আন্তর্জাতিক শেষ ম্যাচটি এই ইন্দোনেশিয়াতেই খেলেছিলেন। এ জন্য পশ্চিম জাভায় বাংলাদেশের ফুটবল ম্যাচ কাভার করার সময় খোঁজ চলল কেউ শুনেছেন কি না সামাদের নাম। সমুদ্রে সুই খোঁজার মতো ব্যাপারটা। বর্তমান প্রজন্মের বাংলাদেশি তরুণরাই যেখানে সামাদের নাম ভালোভাবে জানেন না, সেখানে কয়েক হাজার মাইল দূরের জাভায় জাদুকর সামাদের স্মৃতি হাতড়ানো কঠিন। ৫৩ হাজার বর্গমাইল আর ১৫০ মিলিয়ন মানুষের জাভায় মাঠ আছে কয়েক শ। কোথায় খেলেছিলেন সামাদ? বিস্ময়করভাবে পাওয়া গেল ২০ বছর বয়সী ডেইজি নামের এক স্বেচ্ছাসেবককে। বাংলাদেশ আর সামাদ নাম শুনে জানালেন, ‘আমার দাদা কিউরেটর ছিলেন। দাদা আর বাবা দুজনই দেখেছেন জাভায় ভারতের খেলা। তাঁদের কাছ থেকে শুনেছিলাম সামাদের নাম। তিনি নাকি জাদু দেখাতে পারতেন বল নিয়ে।’ এর বেশি কিছু ডেইজির কাছ থেকে আশা করাও কঠিন। জাকার্তার ৪০ বছর বয়সী ঘাজা দওয়ি-ও নাকি শুনেছেন সামাদের নাম, ‘পোস্টের মাপ কম বলে সামাদের অভিযোগের গল্প শুনেছি বাবার কাছ থেকে। বাবা বলেছিলেন অনেক বড় মাপের খেলোয়াড় ছিলেন সামাদ।’

পেলের খেলা দেখার পর কলকাতার ঐতিহ্যবাহী দল মোহনবাগানের কিংবদন্তি উমাপতি কুমার ১৯৭৭ সালে বলেছিলেন প্রায় একই কথা, ‘পুরো দুনিয়া পেলে বলতে পাগল। তাদের দুর্ভাগ্য সামাদের খেলা দেখেনি কখনো। বল নিয়ে যা খুশি করতে পারত সামাদ। একবার যাঁরা সামাদের খেলা দেখেছেন, তাঁরা কখনই ভুলতে পারবেন না তাঁকে।’

১৯১৫ থেকে ১৯২০ পর্যন্ত রংপুরের তাজহাট ফুটবল ক্লাবের হয়ে খেলেন সামাদ। ১৯২১ থেকে টানা দশ বছর খেলেছেন ইস্টবেঙ্গল রেলওয়ে দলে। ১৯৩৩ থেকে ১৯৩৮ সাল পর্যন্ত খেলেছেন কলকাতা মোহামেডান স্পোর্টিংয়ে। এই পাঁচবারই কলকাতার লিগে চ্যাম্পিয়ন মোহামেডান। ১৯৪৭ সালে ভারতের স্বাধীনতার সময় সামাদ চলে আসেন দিনাজপুরের পার্বতীপুরে। ১৯৬৪ সালের ২ ফেব্রুয়ারি মৃত্যুর পর তিনি সমাহিত হয়েছেন পার্বতীপুরেই। তাঁর থাকার রেলের বাসাসহ বেশ কিছু স্মৃতিচিহ্ন রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে হারিয়ে যেতে বসেছে দেশেই। সেখানে জাভায় এসে সামাদের নাম শুনেছেন, এমন কজনকে খুঁজে পাওয়াটা সৌভাগ্যেরই।

উৎস: কালেরকন্ঠ

Print Friendly, PDF & Email