CC News

রংপুরে বাস দুর্ঘটনা: বেপরোয়া গতিই কারণ

 
 

রংপুর, ১১ সেপ্টেম্বর: দুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে আটজন নিহত হওয়ার ঘটনায় বাসের বেপরোয়া গতিকে দায়ী করেছে তদন্ত কমিটি। সোমবার তদন্ত কমিটির প্রধান ও অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট রশিদুল মান্নাফ কবির এই প্রতিবেদন জমা দিয়েছেন।

জেলা প্রশাসক এনামুল হাবীবের কাছে প্রতিবেদনটি জমা দিয়ে রশিদুল মান্নাফ কবির সাংবাদিকদের বলেন, ”বেপরোয়া গতিতে চালানোর কারণে ওই দুর্ঘটনা ঘটে। রুবি পরিবহনের চালক বেপরোয়া গতিতে বাসটি চালান। ব্যাটারী চালিত একটি ইজিবাইককে ওভারটেক করতে গিয়ে বিপরীত দিক থেকে বিআরটিসির বাসের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। ফিটনেসবিহীন বিআরটিসির বাসটি সড়কে চলাচলের উপযোগী ছিল না। বাসটির বডি ছিল খুবই দুর্বল। এ কারণে মুখোমুখি সংঘর্ষে বাসটি দুমড়ে-মুচড়ে যায়।”

তিনি জানান, দুর্ঘটনার পর দ্রুত বেগে গাড়ি চালিয়ে যাত্রী সাধারণের মৃত্যু ঘটানোর অপরাধে কোতয়ালি থানার এসআই মনোয়ার হোসেন বাদী হয়ে দুই বাসের চালক, সহকারী, রুবি পরিবহনের মালিক ফারুক মন্ডল ও বিআরটিসির বগুড়া ডিপোর তত্ত্বাবধায়ককে আসামি করে মামলা করেন। বিআরটিসির বাসটি ওই দিন বগুড়া থেকে পঞ্চগড় যাওয়ার পথে দুর্ঘটনায় পড়ে।

প্রতিবেদনটিতে সড়ক-মহাসড়কে ফিটনেসবিহীন ভারী যান চলাচল বন্ধ করার পাশাপাশি অটোরিকশা, ভটভটি, নসিমন, করিমন ও ট্যাম্পো চলাচল নিষিদ্ধ করার সুপারিশ করা হয়েছে।

এদিকে, দুর্ঘটনার আট দিন পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত কোনো আসামিকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই সাইফুর রহমান বলেন, আসামিরা গা ঢাকা দেওয়ায় গ্রেফতারে বিলম্ব হচ্ছে। তবে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ২ সেপ্টেম্বর রংপুর মহানগরীর সিওবাজার বিজিবি সদর দপ্তর বাজারের সম্মুখে রংপুর-দিনাজপুর মহাসড়কে বিআরটিসির বাসের সঙ্গে রুবি পরিবহন নামে অপর একটি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে একই পরিবারের তিনজনসহ নারী ও শিশু মিলে আটজন মারা যায়। ওই দুর্ঘটনা তদন্তে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করে জেলা প্রশাসন।

Print Friendly, PDF & Email