CC News

জাপার এমপিরা জনবিচ্ছিন্ন, নতুন মুখ চান নেতাকর্মীরা

 
 

সিসি ডেস্ক: বর্তমান সংসদে জাতীয় পার্টির (জাপা) ৪০ জন সাংসদ রয়েছেন। তাদের মধ্যে অধিকাংশই জনবিচ্ছিন্ন বলে অভিযোগ দলটির তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের। তাই রংপুরের তিনটি আসন ছাড়া বাকি সব আসনেই প্রার্থী পরিবর্তনের দাবি করছেন তারা। যদিও নেতাকর্মীদের এমন দাবির বিষয়ে চিন্তিত নন জাপা এমপিরা। তারা মনে করেন, দলীয় প্রার্থী মনোনয়ন দেবেন জাপা চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ, নেতাকর্মীরা নন। ফলে নিজ-নিজ আসনের জনগণ ও নেতাকর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখার চেয়ে দলের চেয়ারম্যানকে তুষ্ট রাখার দিকে তাদের অধিকতর দৃষ্টি।জাপার বেশ কয়েকজন এমপির সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে গণমাধ্যমে নাম উদ্ধৃত করে তাদের কেউই এ বিষয়ে কথা বলতে সম্মত হননি। প্রত্যেকেই জানান, দলের চেয়ারম্যানের নিষেধ আছে। অবশ্য জাপা মহাসচিব এবিএম রহুল আমীন হাওলাদার তৃণমূল নেতাকর্মীদের অভিযোগের বিষয়টি স্বীকার করেছেন। তিনি বলেন, জনবিচ্ছিন্ন কাউকে আগামীতে দলীয় মনোনয়ন দেওয়া হবে না। তবে তিনি এও বলেছেন যে, তৃণমূল নেতাকর্মীদের অভিযোগের সত্যতা যেমন আছে, কারণও তেমন আছে। জাপার এমপিদের তাদের নিজ আসনভুক্ত এলাকায় কাজ করার পথ মসৃণ নয়, অনেক প্রতিবন্ধকতা আছে। কাজ করতে গেলেই আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতানৈক্য হয়; দ্বন্দ্ব তৈরি হয়। তাই ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও সব সময় কাজ করাটা সম্ভব হয়ে ওঠে না।

আওয়ামী লীগের দপ্তরে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, জাপা নেতাকর্মীদের সঙ্গে তাদের নেতাকর্মীদের মতে অনৈক্য কিংবা ঝগড়া-বিবাদ হয়েছে- জাপা থেকে কখনো আমাদের কাছে এমন অভিযোগ আসেনি।নাম প্রকাশ না করার শর্তে তিনটি জেলার গুরুত্বপূর্ণ পদে থাকা জাতীয় পার্টির এক নেতা আমাদের সময়কে বলেন, গত ৩ আগস্ট দলে একটা অদ্ভুত সিদ্ধান্ত হয়েছে যে, দলের চেয়ারম্যানের অনুমতি ছাড়া গণমাধ্যমে কেউ বক্তব্য দিতে পারবেন না। এটা মূলত কেন্দ্রীয় নেতা থেকে শুরু করে স্থানীয় নেতা পর্যন্ত অনেকের মধ্যে যে ক্ষোভ রয়েছে, তা দমিয়ে রাখার জন্য। তবে ক্ষোভ দমিয়ে রাখা যাবে না, সময়মতো ঠিকই বিস্ফোরিত হবে।জাপা সভাপতিম-লীর দুই সদস্য আমাদের সময়কে বলেন, আমাদের দলের এমপিরা মনে করছেন, আগামী নির্বাচনও ৫ জানুয়ারির মতোই হবে এবং তারা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জিতে যাবেন। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে, নির্বাচন যদি প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হয় তবে এসব প্রার্থীর নির্মম পরাজয় ঘটবে। তাই প্রার্থী মনোনয়নে পুনর্বিবেচনা খুবই জরুরি।জাপা এমপিদের জনবিচ্ছিন্নতার কারণ সম্পর্কে একটি ব্যাখ্যা দিয়েছেন স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ ড. তোফায়েল আহমেদ। তিনি বলেন, এই দলটি কখনই জনগণের সঙ্গে ছিল না। এরা বাংলাদেশের রাজনীতিতে বড় ফ্যাক্টরও নয়। ফ্যাক্টর শুধু তখনই, যখন বিএনপি নির্বাচনে অংশ না নেয়। বিএনপি অংশ নিলে জাপা থাকবে আওয়ামী লীগের সঙ্গে। আর আওয়ামী লীগের সঙ্গে থাকলে যেখানে জাপা থেকে প্রার্থী দেওয়া হবে, সেখানে আওয়ামী লীগের একজন প্রার্থী মনোনয়নবঞ্চিত হবেন। স্বভাবতই তিনি ও তার অনুগতরা জাপা প্রার্থীকে ভোট দিতে চাইবেন না। তিনি আরও বলেন, আরেকটি বিষয় হচ্ছে, জাতীয় পার্টিতে গণতান্ত্রিক চর্চা নেই। দলটির এমপিরা এসব জানেন। এক্ষেত্রে সংসদ সদস্য হওয়ার সমীকরণ কী, তা-ও তাদের কাছে পরিষ্কার। সঙ্গত কারণেই তারা জনবিচ্ছিন্ন।

আমাদের সময়

Print Friendly, PDF & Email