CC News

আদালত বর্জন করতে জাফরুল্লাহ ও সানাউল্লাহর ফোনালাপ ফাঁস

 
 

সিসি ডেস্ক: দুর্নীতি মামলায় কারাগারে আটক বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মামলায় নিশ্চিত পরাজয় জেনে আদালত ও দেশের বিচার ব্যবস্থাকে প্রশ্নবিদ্ধ করে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য আদালত বর্জন করতে পারেন বেগম জিয়া এবং তার আইনজীবীরা। দুর্নীতির বিষয়গুলো মিথ্যা প্রমাণে ব্যর্থ হওয়ায় সরকার ও বিচার ব্যবস্থার ওপর দায় চাপিয়ে দেশে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করতেই খালেদা জিয়ার নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্য বিবেচনায় কারাগারে গঠিত বিশেষ আদালতকে অনৈতিক ও অসাংবিধানিক তকমা দিতে আদালত ও রায়কে বর্জন করবেন খালেদা জিয়া এবং তার আইনজীবীরা। বিতর্কিত আইনজীবী ড. কামাল হোসেনের পরামর্শে ইতোমধ্যে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও জাতীয় ঐক্যের নেতা ডাঃ জাফরুল্লাহ চৌধুরী ও খালেদা জিয়ার আইনজীবী এডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়ার ষড়যন্ত্রের ফোনালাপ ফাঁস হওয়ায় রাজনৈতিক অঙ্গনসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়েছে।

সূত্র বলছে, তারেক রহমানের পরামর্শে ড. কামাল হোসেন জাফরুল্লাহ চৌধুরীকে খালেদা জিয়ার আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়ার সাথে আদলত বর্জনের ষড়যন্ত্র করার পরামর্শ দেন। এছাড়া খালেদা জিয়াকে মিথ্যা অসুস্থ না দেখিয়ে বরং বিষয়টিকে বেআইনী বলে প্রচার করারও কথা বলেন। তবে অত্যন্ত সতর্কতা অবলম্বন করতে বলা হলেও ভুলক্রমে সেটি ফাঁস হয়ে যায়। ষড়যন্ত্রের ফোনালাপ ফাঁস হয়ে গেলে বিব্রতকর অবস্থায় পড়েন জাফরুল্লাহ চৌধুরী ও সানাউল্লাহ মিয়া।

সূত্র বলছে, খালেদা জিয়ার প্রমাণিত দুর্নীতি মামলায় নিশ্চিত পরাজয় জেনে তার পক্ষে মামলা লড়তে রাজি হননি ড. কামাল হোসেন। তবে পয়সার বিনিময়ে চুক্তিভিত্তিক পরামর্শক হওয়ায় জাফরুল্লাহ চৌধুরীকে খালেদা জিয়ার আইনজীবী এডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়াকে আদালত বর্জন করে বিচার ব্যবস্থার প্রতি অনাস্থা প্রকাশ করার ম্যাসেজ পাঠান ড. কামাল হোসেন। ড. কামালের বক্তব্য ছিল যে, দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়ার মুক্তি পাওয়ার কোনো রাস্তা নেই। আদালতে প্রমাণিত হয়েছে যে খালেদা জিয়া দুর্নীতির সাথে সরাসরি জড়িত ছিলেন। তার সরাসরি হস্তক্ষেপে দুর্নীতি হয়েছে। সুতরাং এই দুর্নীতির দায় খালেদা এড়িয়ে যেতে পারবেন না। খালেদা জিয়ার চরম পরিণতি উপলব্ধি করে মামলাটিতে সরাসরি আইনজীবী হওয়ার বিপক্ষে ছিলেন ড. কামাল হোসেন। তবে মাঝে মধ্যে পরামর্শ দেওয়ার জন্য রাজি ছিলেন।

এদিকে সরকার খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তার বিষয়টি নিশ্চিত করতেই কারাগারের অভ্যন্তরে আদালত বসিয়ে তার বিচারের ব্যবস্থা করে। যাতে বয়স্ক একজন নারীর হাজিরা দিতে কষ্ট না হয়। অথচ সরকারের এই মহৎ উদ্যোগকে বিতর্কিত করতে এবং দেশের স্বাধীন বিচার ব্যবস্থাকে প্রশ্নবিদ্ধ করে দেশে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরি করতেই ড. কামালের পরামর্শে জাফরুল্লাহ চৌধুরী এবং এডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া আদালত বর্জন করে সরকারকে চাপে ফেলার ষড়যন্ত্র নিয়ে গোপনে কথা-বার্তা বলেন। তাদের ষড়যন্ত্র ও মিথ্যাচারের অডিও ক্লিপটি ফাঁস হয়ে যাওয়ায় বিএনপির স্বাধীন বিচার বিভাগের প্রতি অনাস্থার বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে আসে। বিএনপি এবং খালেদা জিয়া যে দেশের স্বাধীন বিচার ব্যবস্থা তথা রাষ্ট্রের প্রতি প্রতিক্রিয়াশীল। বিএনপি যে বরাবরই রাষ্ট্র বিরোধী শক্তিদের হাতে অবরুদ্ধ ও চক্রান্তকারীদের দল, বিতর্কিত এই অডিও ক্লিপটি ফাঁস হয়ে যাওয়ায় সেটি আবারও প্রমাণিত।

Print Friendly, PDF & Email