CC News

ছিন্নমূল ১৪ পরিবার উচ্ছেদের চেষ্টা

 
 

।। এম আর মহসিন ।। জীবনে দয়া হিসেবে পাওয়া পৌনে দুই শতক বসতভিটা দখলে নিতে মরিয়া হয়ে উঠেছে দখলবাজরা। ওই শ্রেনীর লোকেরা মূল‌্যবান সম্পদ দখলে নেয়ার জন‌্য ১৪টি ছিন্নমুল পরিবারকে মারধর ও হত্যার হুমকি দেয়ার অভিযোগ মিলেছে। অসহায় ছিন্নমূল পরিবারগুলো নিজের সম্পদ আগলে রাখতে জনপ্রতিনিধিদের দ্বারে-দ্বারে ঘুরছে। এ ঘটনাটি ঘটেছে সৈয়দপুর শহরের পার্শ্ববর্তী চিরিরবন্দরের দেবীগঞ্জ এলাকায়।

জানা যায়, ১৯৯৬ সালে সৈয়দপুরের পৌরসভার মেয়র আমজাদ হোসেন সরকার ও স্থানিয় এনজিও লাইফ বাংলাদেশ মিলে সৈয়দপুর শহরের বিছিন্ন ভাবে বসবাস করা ১৬ ছিন্নমুল ভিক্ষুককে পুর্নবাসনের উদ‌্যোগ নেয়। স্বল্পমুল্যে সৈয়দপুরের অদুরে বোতলাগাড়ী ইউনিয়ন সংলগ্ন দিনাজপুরের চিরিরবন্দর থানার ফতেজংপুর ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডের দেবীগঞ্জ নামক এলাকায় ৪৪ শতক জমি কিনে প্রত্যেকে পৌনে দুই শতক স্ব-স্ব নামে মালিকানা হিসেবে প্রদান করেন। সেখানে ছিন্নমুল মানুষেরা জমি পেয়ে মনের আনন্দে খড়কুটোর ঘর বানিয়ে শুরু করে বসবাস। এখন এ ঘরেই তাদের পরিবার বেড়ে উঠে ভিন্ন পেশায় আত্বনিয়োগ করেছে। আবার অনেকের অভিভাবক বা সন্তান না থাকায় সৈয়দপুর শহরে ভিক্ষাবৃত্তি করেই জীবন নির্বাহ করছে।  এতে ভালই কাটছিল এ সকল অসহায় মানুষগুলোর জীবন প্রবাহ। তবে স্থানিয় বখাটেদের এ বস্তিতে নিয়মিত আনাগোনো বেড়ে যাওয়ায় অভিভাবকহীন যুবতি লাইলী বেগম, ছমিরন নেছা ও হেনা বেওয়া অন্যত্র চলে যায়। এতে তাদের বসতঘরগুলো দীর্ঘ দিন ফাঁকা পড়ে থাকায় নজরে পড়ে মাদকাসক্তদের।

ভিক্ষুক ছমিনা বেওয়া (৭০) জানান, এই এলাকার মকবুল হোসেন ছেলে একরামুল ও আলী মুদ্দিনের ছেলে আফজাল মিলে ঘরগুলো দখলে নিতে বিভিন্ন অপকৌশল করে। তারা ভিন্ন একটি পরিবারকে এনে প্রথমে দুটি ঘর দখলে নেয়। দখলকারীদের ভয়ে সকল ছিন্নমুলরা তটস্থ থাকলেও গত ২৪ আগষ্ট বিকেলে ৩য় ঘরটি দখলে নিতে গেলে তারা একত্রিত হয়ে প্রতিবাদ করে। এ সময় তারা বৃদ্ধাসহ অভুক্ত শিশুদের ওপর এলোপাথাড়ি হামলা চালায়।  এ ঘটনায় মামলা করলে হত্যার হুমকি দিয়ে শাসিয়ে যায় স্থানিয় ওই দুবৃত্তরা।
ভিক্ষুক কমলা বেওয়া (৮০) জানান, যৌবনেই বিধবা হয়েছি। দুই কুলে কেউ নেই। সৈয়দপুর শহরে ভিক্ষা করে অপরের দয়ায় ঘরের জমিটুকু পেয়ে সেখানে খেয়ে না খেয়ে রাত যাপন করছি। এই সুখটুকু তারা কেড়ে নিতে চায়। হাউ-মাউ করে কেঁদে শরীরের বিভিন্ন স্থানে মারধরের ক্ষত দেখায়।

বৃদ্ধা নুরুন্নাহার (৪৫),ময়জান (৫৫), রফিকা (৪৮) ন্যায় বিচারের আকুতি জানান দেশের সমাজপতিদের কাছে।
তবে এ নিয়ে একরামুল জানায়, আমার কাছে জমি ক্রয়ের কাগজ আছে। তাই আমি দখল ছাড়ব না। আর আমি কাউকে মারধর করি নাই। এটা আমাকে ফাঁসানোর চক্রান্ত।

Print Friendly, PDF & Email