CC News

সৈয়দপুরে নীলসাগর ট্রেনের টিকেট আছে, কোচ নাই!

 
 

সিসি নিউজ, ১৪ অক্টোবর॥ সৈয়দপুরে ঢাকাগামী আন্তনগর নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেনের ‘ঞ’ কোচের টিকেট বিক্রি হলেও কোচটি নেই। এতে ওই কোচ খুঁজতে হুড়োহুড়িতে আহত হয়েছে অন্তত ২০ যাত্রী । আর গত তিনদিন ধরে নীলসাগর এক্সপ্রেসে বিকল্প কোচ যুক্ত না করায় চরম ভোগান্তিতে পড়েছে সৈয়দপুর থেকে ঢাকাগামী ওই কোচটির যাত্রী।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার (১১ অক্টোবর) ঢাকা থেকে নীলসাগর এক্সপ্রেস টেনটি চিলাহাটি গমন করে। সেখানে ট্রেন পরিক্ষক ট্রেনটি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেন। এ সময় ট্রেনটির পিছনের ৭৬৬ নং ঞ কোচের ৪ নং এক্সেল কয়েল স্প্রিং ভাঙ্গা পেয়ে সাথেই তা ড্যামেজ ঘোষনা করেন। এবং ওই কোচ ছাড়াই ঢাকার উদ্দেশ্যে ট্রেনটি রওয়ানা দেয়।
ওই দিন রাত ১০ টায় এ কোচের আসনে টিকেট ক্রয় করা যাত্রীরা হাজির হয় ষ্টেশনে। ট্রেনটি চিলাহাটি থেকে সৈয়দপুর পৌছলে যাত্রীরা টিকেটের আসন পেতে উল্লেখিত কোচ খুজতে ছুটোছুটি করে কোচটি সামনে বা পিছনে কোথাও খুজে পান না। এ সময় হুড়োহুড়িতে ট্রেনে ওঠার সময় আলম আখন্দ (৪০) নামের এক যাত্রীর পকেট থেকে পুরো টাকাই খোয়া গেছে। এতে ২০ জন  যাত্রী আহত হয়েছে।
নাজমুল আহসান নামের এক যাত্রী জানান, তিনি ওই ট্রেন ধরে পরের দিনই ঢাকার বেসরকারি একটি ফার্মে যোগ দেবেন। তাই আসনের টিকেট নিয়ে দাড়িয়েই ৪শত কিলোমিটারের পথ ভ্রমন করেছেন।
সরফরাজ মুন্না নামের অপর এক যাত্রী জানান, ট্রেনটি সৈয়দপুর ষ্টেশনে নির্ধারিত সময়ে পৌঁছালে আমাদের টিকেট এ উল্লেখিত কোচ খুজে পাচ্ছিলাম না। তাৎক্ষণিক আমরা ট্রেন পরিচালক (গার্ড) এর সাথে যোগাযোগ করি তিনি বলেন ‘ঞ’ কোচটি পিছনে।
অনেক কষ্টে পিছনে গিয়ে দেখি ওই বগি নেই। যখন ট্রেন ছেড়ে দিচ্ছে তাই অন্য একটি বগিতে উঠে যাই। পরে পার্বতীপুর স্টেশনে পৌছালে আবার গার্ড এর সাথে কথা বললে তিনি রাগান্বিত হয়ে খারাপ ব্যবহার করেন। তবে এ কোচটি কেন নেই তা তিনি বলতে পারেনি।

এ নিয়ে ওই কোচের আসনের টিকেটধারী ২০ থেকে ২৫ জন যাত্রী ক্ষিপ্ত হয়ে বলেন, ট্রেনের আসনের টিকেট পাওয়া সোনার হরিণ পাওয়ার মত অবস্থা। তার ওপর বাড়তি ঝামেলা। এটা কতৃপক্ষ আগে জানালে কষ্ট হতনা। তার ওপর অসৌজন্যমূলক আচরণ এটা আমরা আশা করিনি। মাহমুদ নামে একজন যাত্রী বলেন, ফ্যামিলি নিয়ে দাড়িয়ে ৪ শত কিলোমিটার যাওয়া। এতে কি পরিমাণ ভোগান্তি হয়েছিল। তা প্রকাশ করতে পারবো না।

এ নিয়ে সৈয়দপুর ষ্টেশন মাষ্টার মোঃ শওকত আলী বলেন, ওই দিন চিলাহাটি ষ্টেশনে ট্রেন পরীক্ষক ওই কোচের যান্ত্রিক ত্রুটি পেয়ে কোচটি ড্যামেজ ঘোষনা করেন। পরে মাইকিং করে জানানো হয় যাত্রীদের।

চিলাহাটি ষ্টেশনের ট্রেন পরীক্ষক আবুল হাসনাত মোঃ সাশশুল হুদা জানান, আমরা প্রতি ১ হাজার কিঃমিঃ পর ট্রেনের ফিটনেস পরীক্ষা করি। সেই দিন ‘ঞ’কোচের ৪ নং এক্সেল কয়েল স্প্রিং ভাঙ্গা পেয়ে সাথেই তা ড্যামেজ ঘোষনা করেন। এটি একটি দুর্ঘটনা। তাই আমাদের করার কিছুই নেই।

Print Friendly, PDF & Email