CC News

রংপুরে মইনুলের জামিন নামঞ্জুর

 
 

রংপুর, ০৪ নভেম্বর।। মানহানির মামলায় ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের জামিন মেলেনি রংপুরের আদালতে। তার জামিন আবেদন না মঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন রংপুরের চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত।

রবিবার দুপুর দেড়টার দিকে রংপুর চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক আরিফা ইয়াসমিন মুক্তা এ আদেশ দেন।

এদিকে মইনুল হোসেনকে রংপুরের আদালতে হাজির করা ও তার জামিনের আবেদন ঘিরে আদালত চত্বরে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ হয়। এতে উভয়পক্ষের বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। মইনুলকে আদালতে নেয়ার সময় আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা জুতা, ঝাড়ু প্রদর্শন ছাড়াও তাকে লক্ষ্য করে ডিম নিক্ষেপ করেন।

শনিবার ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে ব্যারিস্টার মইনুলকে কড়া পুলিশ পাহারায় রংপুর নেওয়া হয়। রংপুরের বাসিন্দা ও মানবাধিকার কর্মী মিলি মায়া বেগমের করা এক মানহানির মামলায় তাকে রংপুর আদালতে তোলা হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মইনুলকে আদালতে আনার আগে সকাল থেকে আদালত চত্বরে উত্তেজনা বিরাজ করে। বেলা দেড়টার দিকে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা-ধাওয়া ও সংঘর্ষ হলে পুলিশ টিয়ারসেল নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

রংপুর মেট্রোপলিটনের সহকারী পুলিশ কমিশনার আলতাব হোসেন জানান, পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে আছে। সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

গত ১৬ অক্টোবর বেসরকারি একটি টেলিভিশন চ্যানেলের টকশোতে সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টিকে এক প্রশ্নের জেরে ‘চরিত্রহীন’ বলে মন্তব্য করেন ব্যারিস্টার মইনুল। এ মন্তব্যের কারণে সমালোচনার মুখে পড়েন তিনি।

এরপর ব্যারিস্টার মইনুলকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাওয়ার দাবি জানিয়ে বিবৃতি দেন নারী সাংবাদিকরা। বিভিন্ন গণমাধ্যমের সম্পাদক ও জ্যেষ্ঠ সাংবাদিকরাওে তার বিরুদ্ধে বিবৃতি দেন। এছাড়া দেশের বিশিষ্ট নাগরিকরাও বিবৃতি দেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও সৌদি সফর শেষে গণভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ব্যারিস্টার মইনুলের সমালোচনা করেন।

পরে ব্যারিস্টার মঈনুল তার মন্তব্যের জন্য প্রেস বিজ্ঞপ্তি পাঠিয়ে ক্ষমা প্রার্থনা করেন। কিন্তু প্রকাশ্যে ক্ষমা না চাওয়ায় ২১ অক্টোবর ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে মানহানির মামলা দায়ের করেন মাসুদা ভাট্টি। এ মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানাও জারি হয় তার নামে। পরে কুমিল্লা ও কুড়িগ্রামেও মামলা হয় তার নামে। এর মধ্যে ঢাকা ও জামালপুরের মামলায় পাঁচ মাসের এবং কুড়িগ্রামের মামলায় ছয় সপ্তাহের আগাম জামিন পান ব্যারিস্টার মইনুল।

তবে রংপুরে মানবাধিকারকর্মী মিলি মায়ার করা মানহানির মামলায় গত ২২ অক্টোবর ঢাকার উত্তরা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। আদালত সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের এ উপদেষ্টাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

Print Friendly, PDF & Email