CC News

সেঞ্চুরি করেও হতাশ তামিম ইকবাল!

 
 

খেলাধুলা ডেস্ক।। হ্যামিল্টন টেস্টে প্রথম ইনিংসে ২৩৪ রানেই অলআউট হয়েছে বাংলাদেশ। এরমধ্যে তামিম ইকবাল একাই করেছেন ১২৬। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে শুরুটা ভালোই ছিল সফরকারীদের। কিন্তু দুপুর গড়াতেই হুড়মুড় করে ভেঙে পড়ে ব্যাটিং লাইন। দারুণ শুরুর পরও স্কোরবোর্ডে তাই বড় রান তুলতে না পারার হতাশা তামিমের কণ্ঠে।

কলিন ডি গ্র্যান্ডহোমের হাত ফসকে ৬৫ রানে জীবন পাওয়া তামিম পেয়েছেন নবম টেস্ট সেঞ্চুরি। তার ইনিংস সেরা স্কোরে রয়েছে ২১টি চার আর ১টি ছয়। তামিম ক্রিজে ছিলেন দলের ব্যাটিং আস্থার প্রতীক হয়ে। কিন্তু দলের ১৮০ রানে পঞ্চম ব্যাটসম্যান হিসেবে তামিম আউট হতেই গুঁড়িয়ে যায় বাংলাদেশ। শেষ ৫ উইকেট তারা হারায় ৫৪ রানে।

নিউজিল্যান্ডের কঠিন কন্ডিশনে শুভ সূচনার পরও হতাশার দিন কাটায় তামিম বলেন, এই ধরনের কন্ডিশনে এমন শুরু করা আমাদের জন্য অনেক বড় ব্যাপার। প্রথম দিনে এমন সবুজ উইকেটে শুরুতেই ২ থেকে ৩টা উইকেট পড়ে গেলে খেলা কঠিন। আজ এত ভালো শুরুর পরও এটাকে ধরে না রাখা হতাশাজনক। কেবল আমিই না, ড্রেসিংরুমের প্রত্যেকেই হতাশ।

লেগ স্ট্যাম্পের উপর শর্ট বলে প্রলুব্ধ করে মুমিনুল হককে আউট করেন নেইল ওয়াগনার। অন্যদিকে অফ স্ট্যাম্পের খানিকটা বাইরে টিম সাউদির বলটি শেষ মুহূর্তে হালকা সুইং করে সৌম্য সরকারের গ্লাভস ছুঁয়ে বেরিয়ে যায়। ওয়ানডে সিরেজে ভালো করা মোহাম্মদ মিঠুনও আউট হন বাজে শটে। বুকের উপরে তাক করা বাউন্সারে সহজ ক্যাচ দিয়ে বিদায় নেন তিনি। এরপর মাহমুদউল্লাহ ও মেহেদী হাসান মিরাজও আউট হয়েছেন বাজে শট খেলে।

বাংলাদেশের বাটিং বিপর্যয়ে উইকেটের কোনো ভূমিকা ছিল কি না প্রশ্নের জবাবে তামিম বলেন, আমি যখন ব্যাটিংয়ে নামি, তারপর একটি-দুটি বাউন্ডারি মারার পর উইকেট খুব সহজ মনে হচ্ছিল। তারাও (নিউজিল্যান্ড) ভালো বোলিং করেছে। কিন্তু আমাদের আউটগুলো দেখলেই বোঝা যাবে, দারুণ কোনো বলে আমরা উইকেট হারায়নি। প্রতিপক্ষ পরিকল্পনা অনুযায়ী বল করেছে। আমরাই ভুল শট খেলে তাদের পরিকল্পনা সফলে সহায়তা করেছি।

সারাদিন ব্যাটিং করতে না পারার আক্ষেপের সূরে তামিম বলেন, উইকেট ব্যাটিং করার জন্য যথেষ্ট ভালো ছিল। আগামী দুইদিনও একই থাকবে। সারাদিন ব্যাটিং করলে হয়তো ৩৫০ রানের বেশি হতো। তাহলে প্রথম দিনের হিসাবে আমরা শক্ত অবস্থানে থাকতাম।

Print Friendly, PDF & Email