CC News

অর্থনৈতিক উন্নয়নে ইতিবাচক: তিন বিমানবন্দর চালুর উদ্যোগ

 
 

সিসি ডেস্ক, ২৩ এপ্রিল।। পরিত্যক্ত তিন বিমানবন্দর চালু করতে ইনভেস্টমেন্ট ডেভেলপমেন্ট অথরিটি-বিডার প্রস্তাবের সক্ষমতা যাচাইয়ে মাঠে নেমেছে বেসামরিক বিমান চলাচল মন্ত্রণালয়। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বিমানবন্দরগুলো পুনরায় চালু করা গেলে পর্যটন ও অর্থনৈতিক উন্নয়নে ইতিবাচক হবে।
সূত্রমতে, ১৯৪০ সালে ৫৫০ একর জমির উপর স্থাপিত হয় ঠাকুরগাঁও বিমানবন্দর। ১৯৭৭ সাল পর্যন্ত নিয়মিতই বাণিজ্যিক ফ্লাইট ওঠা নামা করেছে এই বিমানবন্দরটিতে। পর্যাপ্ত যাত্রী না পাওয়ায় ১৯৮০ সালে পুরোপুরি বন্ধ করে দেয়া হয় বিমানবন্দরটি। মাঝে কয়েকবার চালুর উদ্যোগ নেয়া হলেও বাস্তবায়ন হয়নি।
১৯৬০ সালে প্রতিষ্ঠিত ইশ্বরদী বিমানবন্দরে সর্বশেষ বাণিজ্যিক ফ্লাইট ওঠানামা করেছে ২০১৪ সালের মে মাসে। বর্তমানে বাণিজ্যিক উড়োজাহাজ ওঠানামার উপযোগী রানওয়ে না থাকায় কোনো বিমান সংস্থাই ফ্লাইট পরিচালনা করতে পারছে না। একই অবস্থা লালমনিরহাট বিমানবন্দরেরও।
এভিয়েশন অপারেটরস এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান বলেন, আমাদের ভারতের ওখানে যে বর্ডার ক্রসিংটা, এ বর্ডার ক্রসিং দিয়ে প্রচুর ব্যবসা হয়, প্রচুর লোকজন যাতায়াত করে। তো সেই প্রেক্ষিতে এক যে সৈয়দপুর বিমানবন্দরের একটা প্রেসার কমে গেলো। আর ওদিক থেকে ঠাকুরগাঁও এবং দিনাজপুর, এই বেল্টের মানুষের জন্য একটা কমিউনিকেশন হলো।
সম্প্রতি এই তিনটি বিমানবন্দর পুনরায় চালু এবং পটুয়াখালির পায়রা ও রাঙামাটিতে দুটি নতুন বিমানবন্দর তৈরির প্রস্তাব দিয়েছে বিডা।
বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মহিবুল হক বলেন, এটা আমাদের নিরাপত্তাসহ আমাদের পর্যটন খাতে একটা বিরাট প্রভাব বিস্তার করবে। আমরা একটু যাচাই করে দেখছি, আমরা বিডার যে প্রস্তাবটা এটা গুরুত্ব সহকারে দেখে এটা নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবো।
এভিয়েশন বিশেষজ্ঞ এটিএম নজরুল ইসলাম বলেন, যখন এয়ারপোর্টগুলো হবে তখন এটা অর্থনীতিতে বিরাট একটা ভালো সম্ভাবনা আছে। কারন মানুষ যতো দ্রুত মুভমেন্ট করতে পারবে, তার পন্য যতো দ্রুত মুভমেন্ট করতে পারবে ততোই কিন্তু অর্থনীতিতে একটা প্রভাব থেকে যায়।
বিশেষজ্ঞরা আরোও বলছেন, সড়ক ও রেলপথের জটিলতা আর সময় বাঁচাতে আকাশপথেই আস্থা বাড়ছে সাধারণের। বর্তমানে আভ্যন্তরিণ রুটে যাত্রী প্রবৃদ্ধির হার সাত ভাগেরও বেশি।

Print Friendly, PDF & Email