• সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০৩:০৯ অপরাহ্ন |

প্রভুর নৈকট্য লাভে ঘাস ভক্ষণ!

psgসিসি ডেস্ক: আমরা যা কখনো খাই না, তাও কখনো কখনো জরুরি প্রয়োজনে খেতে হয়। তেমনি কোন অসুস্থতা হলে জরুরি কারণে ঘাসও খাওয়ার প্রয়োজন হতে পারে। কারণ ঘাসের হয়ত অনেক ঔষুধি গুণ থাকতে পারে। তবে ‘প্রভুর নৈকট্য অর্জনের জন্য’ও যে ঘাস খেতে হয় সেটা সত্যিই বিরল ঘটনা।

অবিশ্বাস্য হলেও সত্য, দক্ষিণ আফ্রিকার একজন পাদ্রির নির্দেশে তার অনুসারীরা ঘাস খেয়ে প্রভুর নৈকট্য অর্জনের চেষ্টা করেছেন। মাত্র কয়েকদিন আগে এ ঘটনা ঘটেছে দেশটিতে। অবশ্য ঘাস খেতে গিয়ে তাদের অনেকেই বমি ও পেটের পীড়ায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ছুটে গেছেন চিকিৎসার জন্য।

৯ জানুয়ারি দি খ্রিস্টিয়ান পোস্টের এক প্রতিবেদন বলা হয়, দক্ষিণ আফ্রিকার রাজধানী প্রিটোরিয়ার উত্তরে গারানকুয়া অঞ্চলের ‘রেব্বনি সেন্টার মিনিস্ট্রিজ’ গির্জার পাদ্রি লেসেগো ড্যানিয়েল তার অনুসারীদের এ নির্দেশনা দেন। লেসেগো ড্যানিয়েল জানান, ঘাস খেলে তার অনুসারীরা প্রভুর নৈকট্য পাবেন। ড্যানিয়েলের এ কথা শোনার পরপরই তার অনুসারীরা তখন গির্জা প্রাঙ্গণের সবুজ চত্বরে ঝাঁপিয়ে পড়ে ঘাস খাওয়া শুরু করেন।

প্রভুর নৈকট্য লাভে ওই পাদ্রির এই বিতর্কিত সাধনা পদ্ধতির সমালোচনা করেছেন। তবে তার ভক্ত অনুসারীরা ধর্মীয় সমাবেশে এই পদ্ধতি অনুসরণের শপথ নেন। পাদ্রি লেসেগোও বলেছেন, “মানুষ তার শরীরের চাহিদা যোগাতে যে কোনো কিছু খেয়ে বেঁচে থাকতে পারে।”

লেসেগো বলেন, “এখানে অনেক শিষ্য ও অনুসারীই আছে। আপনি তাদের অনেককেই চেনেন না, জানেন না। আপনি প্রভুকে দেখান যে, তারা অনেকেই বাইবেলের প্রত্যাদেশে নিবেদিতপ্রাণ নয়। তবে প্রভু তো চান, তাদের কেউ কেউ নিবেদিত হবে, নতুন কিছু করবে। নাথানিল ছিল এমনি একজন অনুসারী। এখন পর্যন্ত নাথানিলের মতো কোন গ্রন্থ নেই। কি নেই তাতে? বিস্ময়, মিরাকল, পাপ, আর সব সুন্দর জিনিস থেকে শুরু করে অনেক কিছু আছে। নাথানিল অনেক শিক্ষা নিয়েছিলেন।”

একজন অনুসারী ঘাস খাওয়ার অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে বলেন, “আমরা ঘাস খাচ্ছি এবং আমরা এ জন্য গর্বও বোধ করছি। কারণ, এই কাজ দেখিয়েছে যে, প্রভুর শক্তির সুবাদে আমরা যে কোনো কাজ করতে পারি।” ২১ বছর বয়স্ক এক আইনের ছাত্রী দাবি করেছেন, তিনি এক বছরেরও বেশি সময় ধরে গলা ব্যথায় ভুগছিলেন। তবে ঘাস খাওয়ার পর তার এই রোগ সেরে গেছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ