• রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ০১:৪৭ পূর্বাহ্ন |

পরীক্ষা বন্ধ করতে শিবিরের হুমকি

Sibirচট্টগ্রাম: চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়কে (চবি) অস্থিতিশীল করার হুমকি দিল ইসলামী ছাত্রশিবির। একই সঙ্গে শিবির নিয়ন্ত্রিত আমানত হল সিলগালা করায় সব বিভাগের পরীক্ষা স্থগিত করতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে স্মারকলিপির মাধ্যমে জানিয়ে দিয়েছে। বুধবার চবি উপাচার্য বরাবরে চবি শিবিরের সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান স্বাক্ষরিত স্মারকলিপি দিয়ে পাঁচ দফা দাবি জানায় শিবির।

পাঁচ দফা দাবির মধ্যে রয়েছে, শিবির নেতা মামুনের হত্যাকারী চিহ্নিত ছাত্রলীগ ক্যাডারদের গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান, শাহ আমানত ও শাহজালাল হলের সব বৈধ শিক্ষার্থীকে তুলে দিতে হবে, বৈধ ছাত্রদের হলে তুলে দেয়ার আগ পর্যন্ত সব বিভাগের পরীক্ষা স্থগিত করতে হবে, আহত শিক্ষার্থীদের চিকিৎসার সব ব্যয়ভার বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে বহন করতে হবে।

স্মারকলিপিতে আরো উল্লেখ করা হয়, গত ১২ জানুয়ারি বিনা উস্কানীতে ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীরা পুলিশ ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের প্রত্যক্ষ মদদে ন্যাক্কারজনক হত্যাকাণ্ডের জন্ম দেয়। ছাত্রলীগ শাহ আমানত হলে আগ্নেয়াস্ত্র, রামদা, চাপাতি দিয়ে বৈধ আবাসিক ছাত্রদের উপর হামলা করে। মুহুর্মুহু গুলিতে গুলিবিদ্ধ হয় অসংখ্য ছাত্র। এ সময় গুলির আঘাতে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে মামুন হোসাইন, সাইদুল ইসলাম, রাহাত, মুমিন, শরিফসহ অন্তত ১৫ জন গুরুতর আহত হয়। ধারালো অস্ত্রের উপর্যপুরি আঘাতে ঘটনাস্থলেই নিহত হন ইসলামী ছাত্রশিবির আমানত হল সেক্রেটারি মামুন হোসাইন।

চবি ছাত্রলীগের চার নেতার নাম উল্লেখ করে শিবির স্মারকলিপিতে জানায়, চার ছাত্রলীগ নেতার নেতৃত্বে প্রায় দেড় শতাধিক ছাত্রলীগ সন্ত্রাসী এই হত্যাকাণ্ড চালায়। পুরো ঘটনায় পুলিশ সক্রিয় সহযোগীর ভূমিকা পালন করে। ছাত্রলীগকে হামলার সুযোগ করে দেয়ার জন্য এর আগে পুলিশ হলে তল্লাশির নামে ১৮ জন নিরীহ শিক্ষার্থীকে আটক করে।

স্মারকলিপিতে বলা হয়, ঘটনা চলাকালীন সময়ে ছাত্রশিবিরের পক্ষ থেকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সঙ্গে একাধিক বার যোগাযোগ করা হলেও তারা কোনো ধরনের সাড়া দেয়নি বরং আমানত হলের প্রভোস্ট ও আবাসিক শিক্ষকদের সামনে ছাত্রলীগের ক্যাডাররা এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে। অথচ হল প্রভোস্ট গভীর রাতে হাটহাজারী থানায় যে এজাহার দায়ের করেছেন। তাতে ছাত্রলীগের কাউকে দায়ী করা হয়নি। যা প্রকারান্তরে হত্যাকাণ্ডকে প্রত্যক্ষ সহযোগিতা করার সামিল।

কোনো কারণ ছাড়াই অবৈধভাবে হল দখলের উদ্দেশ্যে নিরীহ শিবিরকর্মীদের উপর স্বশস্ত্র ছাত্রলীগ ক্যাডাররা এ বর্বর হামলা চালিয়েছে। স্বয়ং বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এ ঘটনার বৈধতা দিতে সিলেটে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের দপ্তর সম্পাদক জালাল আহমদের উপর হামলার ঘটনাকে দায়ী করেছেন। যা অনলাইন মিডিয়াসহ বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। অথচ কে বা কারা এই হামলা চালিয়েছে তা জানা যায়নি। জালাল আহমেদের উপর হামলার ঘটনায় শিবিরের কোনো সম্পৃক্ততা নেই।

স্মারকলিপিতে শিবির হুমকি দিয়ে বলা হয়, ছাত্রশিবির সহাবস্থানে বিশ্বাসী। বিভিন্ন সময় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা গায়ে পড়ে সংঘর্ষ বাঁধাতে চাইলেও শিবির তা নিরবে সহ্য করে গেছে। যার ফলে ক্যাম্পাসে শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় ছিল। কিন্তু তারপরও তাদের অপতৎপরতা বন্ধ হয়নি। ছাত্রশিবির বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার পরিবেশ বজায় রাখতে প্রশাসনকে সবসময় সহযোগিতা করে আসছে। কিন্তু এর প্রতিদানে গত পাঁচ বছরে ছাত্রশিবির পেয়েছে পাঁচটি লাশ। শিবিরের পাঁচ দফা দাবি যদি মেনে নেয়া না হয় কঠোর আন্দোলনের মাধ্যমে দাবি আদায়ে প্রস্তুত রয়েছে ছাত্রশিবির। পরবর্তীতে ক্যাম্পাসের পরিস্থিতির অবনতি ঘটলে এর দায়ভার সম্পূর্ণভাবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে বহন করতে হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ