• বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ০৭:৩৬ পূর্বাহ্ন |

ট্রাংক থেকে বের হলো জীবন্ত স্কুলছাত্রী, আটক- ২

pic-22_41706_39081ঢাকা: ঢাকা থেকে শেরপুর যাচ্ছিল ড্রিমল্যান্ড পরিবহনের একটি বাস। পথে স্থানে স্থানে দাঁড়িয়ে সেই বাসে যাত্রীও তোলা হচ্ছিল। দুপুরে ভালুকার সিড স্টোর থেকে বাসটিতে ওঠে দুই ভাই। তাদের সঙ্গে ছিল একটি বড় আকারের ট্রাংক। দুই ভাই যাত্রী আসনে বসলেও ট্রাংকটি রাখা হয় বাসের নিচের অংশে থাকা বক্সে। কিন্তু ময়মনসিংহ শহর হয়ে ব্রহ্মপুত্র নদ অতিক্রম করে চায়না মোড়ে আসার পরই উন্মোচিত হয় রহস্য। বাসটি সেখানে দাঁড়ানোর পর বক্স থেকে আসা শব্দে যাত্রীদের মনে সন্দেহ জাগে। বক্সটি খুলে নামানো হয় ট্রাংক। বোঝা যায়, ট্রাংকটিই শব্দের উৎপত্তিস্থল। ডাকা হয় ট্রাংকের মালিক দুই ভাইকে। তাদের উপস্থিতিতে খোলা হয় ট্রাংকের তালা। দেখা যায়, ট্রাংকের ভেতর জীবন্ত এক মেয়ে। তার হাত-পা বাঁধা, মুখেও লাগানো হয়েছে স্কচটেপ। সঙ্গে সঙ্গে বাসের যাত্রী ও স্থানীয় লোকজন দুই ভাইকে আটক করে পুলিশে খবর দেয় এবং মেয়েটিকে উদ্ধার করে। পরে পুলিশ-র‌্যাব এসে অপহরণকারী দুই ভাই মনির (১৮) ও মোর্শেদকে (১২) কোতোয়ালি থানায় নিয়ে যায়।
ভালুকার সিড স্টোরে গতকাল বুধবার দুপুর ১২টার দিকে ঘটনার সূত্রপাত। ওই খানেই অপহরণ হওয়া মেয়েটির বাসা। কোতোয়ালি থানাপুলিশ ও মেয়েটির পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, দুই ভাই মনির ও মোর্শেদ দশম শ্রেণীর ছাত্রীটিকে অপহরণের উদ্দেশ্যে তাদের বাসায় যায়। সেখানে গিয়ে তারা প্রথমে বাসার কাজের মেয়ের মুখে টেপ লাগিয়ে হাত-পা বেঁধে রাখে। এর ঠিক ১৫ মিনিট পর মেয়েটি বাসায় এলে তাকেও হাত-পা বেঁধে মুখে টেপ লাগিয়ে অজ্ঞান করা হয়। এরপর তারা মেয়েটিকে একটি ট্রাংকে ঢুকিয়ে তা নিয়ে আসে সিড স্টোর বাজারে। সেখান থেকেই দুই ভাই ওঠে ড্রিমল্যান্ড পরিবহনের বাসে। মেয়েটিকে তারা শেরপুরের ঝিনাইগাতী নিয়ে যাচ্ছিল।
অপহরণের মূল হোতা মনির জানায়, সে ঢাকার একটি গার্মেন্টে কাজ করে। কয়েক বছর আগে ওই মেয়ের বাসায় তার বোন ভাড়া থাকত। সে সময় আসা-যাওয়ার সূত্র ধরে ওই মেয়েটিকে তার পছন্দ হয়। তাই সুযোগ বুঝে সে মেয়েটিকে অপহরণ করে তাদের গ্রামের বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা করে। মনির জানায়, তাদের গ্রামের বাড়ি শেরপুরের ঝিনাইগাতীর হলদীভাটা গ্রামে। তার বাবার নাম মঞ্জুরুল হক। বাবা মারা গেছেন কয়েক বছর আগে। ছোট ভাই মোর্শেদ জানায়, সে তার ভাইয়ের কথায় সব কাজ করেছে।
মেয়েটির বাবা জানান, অপহরণের পরই তিনি ফোনে জানতে পারেন, তাঁর বাসায় ডাকাতি হয়েছে ও মেয়েকে পাওয়া যাচ্ছে না। পরে খোঁজাখুঁজির একপর্যায়ে তাঁর কাছে খবর আসে, তাঁর মেয়ে ময়মনসিংহে উদ্ধার হয়েছে। এরপর তিনি কোতোয়ালি থানায় আসেন।
কোতোয়ালি থানার ওসি গোলাম সারওয়ার বলেন, ‘এটি খুবই চাঞ্চল্যকর ঘটনা। আমরা বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে তদন্ত করছি।’ তিনি জানান, প্রাথমিক চিকিৎসার পর মেয়েটি এখন অনেকটাই সুস্থ।কা.কণ্ঠ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ