• শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ১০:৪৮ অপরাহ্ন |

মোবাইল ব্যাংকিংয়ে নজরদারির নির্দেশ

62785_1অর্থ-বাণিজ্য ডেস্ক: সন্ত্রাসী কাজে অর্থায়ন প্রতিরোধে মোবাইল ব্যাংকিং কার্যক্রমের ওপর জোর নজরদারির নির্দেশ দেয়া হয়েছে। মোবাইল ব্যাংকিংয়ের লাইসেন্সপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানগুলো নিয়মনীতি অনুসরণ করছে কিনা তা মনিটরিং করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে। অবৈধ হুন্ডি তৎপরতা, বিদেশে অর্থ পাচার এবং মানিলন্ডারিং তৎপরতা প্রতিরোধ ও দমনের কার্যক্রম জোরদার সংক্রান্ত কেন্দ্রীয় টাস্কফোর্স কমিটি এই নির্দেশ দিয়েছে। কমিটির বৈঠকে ‘অবৈধ ব্যাংকিং, এমএলএম ব্যবসা ও কুরিয়া সার্ভিসের’ কার্যক্রমের ঝুঁকিপূর্ণ সম্পর্কে সচেতনতা বাড়াতে ইউনিয়নের তথ্য ও সেবা কেন্দ্রগুলোকে প্রচারণার কাজে লাগানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা ও সহিংস তায় দেশের ভেতর ব্যাপক সন্ত্রাসী কার্যক্রমে অর্থায়ন হচ্ছে। নতুন ভাবে দেশে শুরু হয়েছে মোবাইল ব্যাংকিং। ধারণা করা হচ্ছে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে মোবাইল ব্যাংকিংয়ে অর্থায়ন বেশি হচ্ছে। ফলে মোবাইল ব্যাংকিং কার্যক্রমের ওপর মনিটরিং জোরদার করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।
এছাড়া দেশের অস্থিতিশীলতার সুযোগ নিয়ে বিদেশে অর্থ পাচার বেড়েছে। বিশেষ করে দেশে একদিকে বিনিয়োগ ও ব্যাংক ঋণ হ্রাস পেয়েছে। অন্যদিকে বেড়েছে মূলধনী যন্ত্রাংশ আমদানি। অর্থনীতিবিদদের মতে মূলধন যন্ত্রাংশ আমদানি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বিনিয়োগ ও ব্যাংক ঋণের প্রবৃদ্ধি বৃদ্ধি পাবে। কিন্তু শুধু মূলধনী যন্ত্রাংশ আমদানি বৃদ্ধি পেলে এটি অস্বাভাবিক। এই যন্ত্রাংশ আমদানির নামে বাইরে টাকা পাচারের আশংকা রয়েছে।
সূত্র মতে, সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে অর্থায়ন বন্ধ করতে নজরধারির আওতায় আনা হচ্ছে মোবাইল ব্যাংকিং কার্যক্রমকে। বিশেষ করে মোবাইল ব্যাংকিং গ্রাহক এবং তার ব্যবহৃত সেলফোন সিম রেজিস্ট্রেশন যাচাই ও কেওয়াইসি নিশ্চিত করতে পেমেন্ট সিস্টেম বিভাগ, বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট, বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন রেগুলেটরি কমিশন (বিটিআরসি), সব মোবাইল অপারেটর ও মোবাইল ব্যাংকিং লাইসেন্সপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দ্রুত আলোচনা ও বৈঠকের সিদ্ধান্ত হয়েছে। এছাড়া মোবাইল ব্যাংকিংয়ের লাইসেন্সপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানগুলো বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশ মানছে কিনা সে বিষয়ে মনিটরিং আরও জোরদার করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয় ওই বৈঠকে। এদিকে অবৈধ ব্যাংকিং, এমএলএম ব্যবসা ও কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে ঝুঁকিপূর্ণভাবে লেনদেন হচ্ছে। অনেক গ্রাহক এসব ব্যবসার ফাঁদে পড়ে সবকিছু হারাচ্ছে। এসব ব্যবসার মাধ্যমে লেনদেন ঝুঁকিপূর্ণ তা সাধারণ মানুষকে অবহিত করতে উপজেলা পর্যায়ে ইউনিয়নের তথ্য ও সেবা কেন্দ্রের মাধ্যমে জনসচেতনতামূলক প্রচারণার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এ সংক্রান্ত একটি প্রস্তাব কেন্দ্রীয় ব্যাংক তৈরি করে অর্থমন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করেছে। অর্থমন্ত্রণালয়ের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান তা অনুমোদনের জন্য তথ্য ও যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করেছে। বিদেশে অর্থ পাচারের ব্যাপারেও ব্যাপক নজরধারির কথা বলা হচ্ছে। সংস্থার কার্যক্রম বিশেষ করে অ্যাটর্নি জেনারেল অফিস, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, আইন বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয়, সিকিউরিটি অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন, বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষ, বাংলাদেশ ব্যাংক, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, সিআইডি ও বাংলাদেশ পুলিশ, অর্থ বিভাগ, দুর্নীতি দমন কমিশন, সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয়, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জাতীয় সংঘ বিভাগ, যৌথ মূলধন কোম্পানি ও ফার্মগুলোর পরিদফতর, মাইক্রেডিট রেগুলেটরি অথরিটি, এনজিওবিষয়ক ব্যুরো, বাংলাদেশ সমবায় অধিদফতর ও বাংলাদেশ ডাক বিভাগের কার্যক্রম বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের সঙ্গে অনলাইন কানেকটিভিটি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।
জানা গেছে, সম্প্রতি আন্তর্জাতিক মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ সংস্থা এপি-আরআরজি গ্র“পের প্রতিনিধি দল বাংলাদেশ সফর করে। মানিলন্ডারিং ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন প্রতিরোধে বাংলাদেশের পদক্ষেপের অগ্রগতি পর্যবেক্ষণ করে ওই গ্র“প। গ্র“পের প্রতিবেদনের ওপর ভিত্তি করে আন্তর্জাতিক মানদণ্ডে বাংলাদেশ অর্থপাচার ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন কার্যক্রমের কালো তালিকা থেকে বেরিয়ে আসতে পারবে।
এ প্রসঙ্গে মান্ডিলন্ডারিং সংক্রান্ত কেন্দ্রীয় টাস্কফোর্স কমিটির এক সদস্য জানান, অর্থ পাচার প্রতিরোধ সম্পর্কে সাধারণ মানুষকে সচেতন করতে টেলিভিশন, রেডিও, সিনেমা হলের মাধ্যমে ব্যাপক প্রচার এবং মোবাইল ও বিলবোর্ডের মাধ্যমেও প্রচারের কৌশল গ্রহণ করা হবে। এ বিষয়ে দ্রুত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলে জানান তিনি।
উৎসঃ   যুগান্তর


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ