• মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ০৬:৩৯ অপরাহ্ন |

আগামী মাসে রোডমার্চ করবে ১৮ দল!

BNP Flagসিসি ডেস্ক: আগামী মাসে ‘রোড মার্চ’ করবে ১৮ দলীয় জোট। দেশের অন্তত ডজন খানেক জেলা অভিমুখে এ রোড মার্চ হবে। ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝিতে রাজধানী থেকে শুরু হওয়া এ রোড মার্চে নেতৃত্ব দেবেন বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া। তার সঙ্গে বিএনপি ও জোটের শীর্ষ নেতারাও থাকবেন।

সম্প্রতি ১৮ দলীয় জোটের এক বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত হয় বলে জোটের শরীক তিনটি দলের শীর্ষ নেতারা জানান।

৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পর খালেদা জিয়ার সঙ্গে গত সোমবার রাতে ১৮ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতাদের প্রথম বৈঠক হয়। বৈঠকে নির্বাচন প্রতিহতের আন্দোলন ও নির্বাচন পরবর্তী করণীয় বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়। ওই বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী গত বুধবার সংবাদ সম্মেলনে জোটের পক্ষ থেকে শান্তিপূর্ণ কর্মসূচির ঘোষণা দেন খালেদা জিয়া। তবে রোড মার্চের বিষয়ে তিনি সরাসরি কিছু না বললেও বিভিন্ন জেলা সফরে যাওয়ার ইঙ্গিত দেন।

বিএনপির দলীয় সূত্রে জানা গেছে, ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে যে জেলাগুলোর অধিকাংশ আসনে নির্বাচন হয়নি কিংবা মানুষ ভোট দিতে যায়নি সেই সব জেলা অভিমুখে রোড মার্চের কথা ভাবা হচ্ছে। এছাড়া নির্বাচনের আগে ও পরে যৌথবাহিনীর আক্রমনে যে সব জেলায় ১৮ দলের নেতাকর্মীরা আক্রান্ত হয়েছেন সেই সব জেলা অভিমুখেও রোড মার্চ হবে। এক্ষেত্রে ঢাকা থেকে ১৮ দলের রোড মার্চ যাওয়ার তালিকায় খুলনা, চট্রগ্রাম, রাজশাহী, বরিশাল, সিলেট, সাতক্ষীরা, যশোর, মেহেরপুর, বগুড়া, লক্ষীপুর, চাঁদপুর, চাঁপাইনবাবগঞ্জ ও গাইবান্ধা জেলার নাম আলোচনার পর্যায়ে রয়েছে বলে জোটের শরীক একটি দলের নেতা জানান।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই নেতা বলেন, জেলা অভিুমখে না বিভাগ অভিমুখে রোড মার্চ হবে তা এখনো চূড়ান্ত হয়নি। তবে ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে যে যে জেলায় ১৮ দলের নেতাকর্মীরা বেশি আক্রান্ত হয়েছেন সেই সব জেলায় খালেদা জিয়া সমাবেশ করবেন। এক্ষেত্রে বিভাগ অভিমুখে রোড মার্চ হলে কয়েকটি জেলায় পথসভা ও জনসভাও হবে।

উল্লেখ্য, নির্দলীয় সরকারের দাবিতে এর আগে ২০১১ সালের ১০ অক্টোবর থেকে ২০১২ সালের ২৯ জানুয়ারি পর্যন্ত দেশের চারটি বিভাগ অভিমুখে রোড মার্চ করে বিএনপির নেতৃত্বাধীন জোট। হরতাল অবরোধের পরিবর্তে সে সময়কার ওই রোড মার্চে ব্যাপক সাড়া পান খালেদা জিয়া। রাজধানী থেকে যাত্রা শুরু করা প্রত্যেকটি রোড মার্চে পথে পথে তিনি নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষের ফুলের শুভেচ্ছায় সিক্ত হন।

বিভিন্ন পথসভায় সে সময় স্থানীয় নেতারা তাকে স্বর্ণের তৈরী ধানের শীষ দিয়ে শুভেচ্ছা জানান। ওই রোডমার্চের সফল পরিণয় হিসেবে খালেদা জিয়া ‘চলো চলো….ঢাকা চল’ কর্মসূচি দিলে সরকার কর্মসূচির দিন তিনেক আগ থেকে থেকেই সারা দেশ অচল করে দেয়। এবারও ১৮ দল সেই টার্গেট নিয়ে এগুচ্ছে বলে জানা গেছে। তবে এবারের রোড মার্চে আগের মতো বিভাগীয় শহরকেই কেবল গুরুত্ব না দিয়ে ১৮ দলের ঘাটি হিসেবে পরিচিত জেলাগুলোকে গুরুত্ব দেয়া হবে বলে জোটের নেতারা জানিয়েছেন।

তারা বলছেন, যেসব জেলায় আন্দোলন করতে গিয়ে নেতাকর্মীরা প্রাণ দিয়েছেন তাদের পরিবারের সদস্যদের হাতে খালেদা জিয়া আর্থিক সহযোগিতা দেবেন ও ক্ষমতায় গেলে ১৮ দলের পক্ষ থেকে নিহতের পরিবারের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করে দেয়া হবে বলেও প্রতিশ্রুতি দেবেন। একই সঙ্গে সাংগঠনিকভাবে বিএনপির অপেক্ষাকৃত দুর্বল ও অগোছালো জেলাগুলোতেও খালেদা জিয়া সফর করবেন। তবে তা রোড মার্চের আওতায় পড়বে কি না সে ব্যাপারে বিএনপির নেতারা এখনো নিশ্চিত নন।

অবশ্য বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মাহবুবুর রহমান বলেন, ১৮ দলের রোড মার্চে বিভিন্ন জেলায় জনসভা হবে ও পথসভাও হবে। এছাড়া বিএনপির সাংগঠনিক শক্তি বৃদ্ধির জন্য কিছু বাছাইকৃত জেলায় দলের চেয়ারপারসনের আলাদা সফর করার কথা রয়েছে।

গত সোমবার রাতে খালেদা জিয়ার সভাপতিত্বে জোটের বৈঠকের পরই যোগাযোগ করলে ১৮ দলের শরীক ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ নেজামী বলেন, বৈঠকে নির্বাচন প্রতিহতের জন্য জোটের নেতাকর্মী ও দেশের মানুষের প্রতি সন্তোষ প্রকাশ করা হয়। পাশাপাশি ঢাকা মহানগরীতে কিভাবে আরো শক্ত আন্দোলন গড়া যায় সে ব্যাপারে আলোচনা হয়। এছাড়া নির্বাচন পরবর্তী জনসম্পৃক্ততামূলক কর্মসূচির ব্যাপারেও সবাই মতামত দেন। আপাতত হরতাল অবরোধ বাদ দিয়ে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিল জাতীয় কর্মসূচির প্রস্তাব দেওয়া হয়। একই সঙ্গে দেশের বিভিন্ন জেলা অভিমুখে ঢাকা থেকে রোড মার্চ করার ব্যাপারেও আলোচনা হয়।

লতিফ নেজামী বলেন, নির্বাচন যে অবাধ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হয়নি তা জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে তুলে ধরাই এখন ১৮ দলের প্রধান কাজ।

ন্যাপ-ভাসানীর চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গাণি বলেন, খালেদা জিয়াসহ ১৮ দলের শীর্ষ নেতারা জেলায় জেলায় সফর করবেন। ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে মানুষ ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত হয়েছে- তা জনসাধারণের সামনে তুলে ধরা হবে।

কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মুহাম্মদ ইব্রাহিম বলেন, এখন এমন কর্মসূচি দেয়া হচ্ছে যাতে সরকার ক্ষমতায় থাকা অবস্থায়ও নিজেরা বিব্রতবোধ করে। এছাড়া শান্তিপূর্ণ কর্মসূচির মাধ্যমে সরকারের তীব্র জনঅসন্তোষ সৃষ্টি করা হবে। যাতে সরকার বাধ্য হয়ে দ্রুততম সময়ের মধ্যে সবার অংশগ্রহণে একটি নির্বাচনের ব্যবস্থা করে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ