• শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ০৭:৪৪ পূর্বাহ্ন |

জামায়াত-শিবির বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বে বিশ্বাস করেনা

Nilphamari  Nurনীলফামারী প্রতিনিধি: সংষ্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নুর বলেছেন, জামায়াত-শিবির বাংলাদেশের স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব ও উন্নয়নে বিশ্বাস করেনা। এরা শুধু সহিংসতা ও খুনাখুনির রাজনীতিতে বিশ্বাস করে। এই বাংলার মাটিতে পাকিস্থানী দোসর জামায়াত-শিবিরের রাজনীতি করার কোন অধিকার নাই। আজ দুপুরে নীলফামারী শহীদ মিনারে তাকে দেয়া জেলা আওয়ামী লীগের এক গণসংবর্ধনায় তিনি এসব কথা বলেন।
পাকিস্থান পার্লামেন্টের তোলা শোক প্রস্তাবের সমালোচনা করে এসময় তিনি আরো বলেন, কাদের মোল্লার ফাঁসির রায় কার্যকর হবার পর জামায়াত-শিবিরের জামায়াত-শিবির সারা দেশ ব্যাপী সহিংসতা করে অসংখ্য জানমালের ক্ষতি করেছে। স্কুল-কলেজ পুড়িয়ে দিয়েছে। রাস্তা-ঘাট ধ্বংস করেছে। রেল লাইন উপড়ে ফেলেছে। জামায়াতের পূর্বসুরী পাকিস্থানীরা তাদের পার্লামেন্টে যে শোক প্রস্তাব এনেছে তা বিশ্বে নজির বিহীন এবং নিন্দনীয় ঘটনা।
বিএনপি জামায়াত আন্দোলনের নামে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড শুরু করেছে মন্তব্য করে মন্ত্রী নুর বলেন, তাদের আন্দোলনে জনগণের অংশগ্রহণ নেই সেজন্য সফলও হতে পারেন নি। সাধারণ মানুষের আন্দোলনের কথা বলে সাধারণ মানুষকেই হত্যা করেছে তারা। গণতান্ত্রিক কর্মসুচীর নামে মানুষ হত্যা, গাড়ি পোড়ানো, লুটপাট, রাস্তা, গাছপালা কেটে ফেলা, সরকারী সম্পদ ধ্বংস, সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের উপর আক্রমন করে তারা পাকিস্তানী বাহিনীর মত কার্যক্রম শুরু করেছে।
যুদ্ধাপরাধীদের বিচার প্রসঙ্গে সংষ্কৃতি মন্ত্রী বলেন, জামায়াত বিদেশী, তারা বাংলাদেশের স্বাধীনতা, পতাকা, শহীদ মিনার এমনকি বাঙ্গালীর অর্জনগুলো কোন ভাবে বিশ্বাস করে না। তারা কখোনো আমাদের জাতীয় পতাকা হাতে নিয়ে মিছিল করেনি, পালন করেনি মহান স্বাধীনতা, বিজয়, আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবস এমনকি পহেলা বৈশাখও। কারণ তারা বাঙ্গালির অর্জনগুলো আজও মেনে নিতে পারেনি।
সংবর্ধণা অনুষ্ঠান সফল করতে কয়েকদিনের প্রস্তুতির পর শনিবার সকাল থেকে হাজার হাজার মানুষের পদচারণায় মুখোরিত হয়ে উঠে নীলফামারীর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার অঙ্গণ।
শুরুতেই আওয়ামী লীগের পক্ষে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান নুরকে বরণ করে নেন। এরপর নীলফামারী-১ আসনের সংসদ সদস্য আফতাব উদ্দিন সরকার, নীলফামারী-৩ আসনের সংসদ সদস্য অধ্যাপক গোলাম মোস্তফা মন্ত্রীকে বরণ করে নেন। এসময় আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গসংগঠন ছাড়াও, জাতীয় পার্টিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, স্থানীয় প্রেসক্লাব, উন্নয়ন সংস্থা, বিভিন্ন সামাজিক ও পেশাজীবি সংগঠনের পক্ষ থেকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়।
এসময় জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র দেওয়ান কামাল আহমেদ, সাবেক সংসদ সদস্য এ্যাডভোকেট জোনাব আলী, জেলা কৃষক লীগের সভাপতি এ্যাডভোকেট অক্ষয় কুমার রায়, জেলা যুবলীগের সভাপতি রমেন্দ্র বর্ধণ বাপী, জেলা স্বাধীনতা চিকিৎসা পরিষদের সভাপতি ডা. মমতাজুল ইসলাম মিন্টুসহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের প্রশাসক এ্যাডভোকেট মমতাজুল হক।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ