• শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ১১:৩০ অপরাহ্ন |

সোয়া ৬ লাখ একর ভূমির খাজনা আদায় বন্ধ

imagesসিসি ডেস্ক: অর্পিত সম্পত্তির ‘খ’ তফসিলভুক্ত ছয় লাখ ২০ হাজার একর জমির খাজনা আদায় হচ্ছে না। ‘খ’ তফসিল বাতিল হলেও নির্দেশনা না পাওয়ার অজুহাতে নামজারি করছেন না ভূমি কর্মকর্তারা। একই কারণে বিশাল পরিমাণ জমির খাজনাও আদায় করছে না সহকারী কমিশনার (ভূমি) কার্যালয়। এতে করে সরকারের কয়েক শ কোটি টাকার রাজস্ব আদায় আটকে গেছে। ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর, মুন্সীগঞ্জ, টাঙ্গাইলসহ বিভিন্ন জেলার ভুক্তভোগীদের অভিযোগ অনুসন্ধানে এ তথ্য জানা গেছে।
ভূমি মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, সরকার অর্পিত সম্পত্তির তালিকা থেকে ব্যক্তিগত দখলে থাকা সম্পত্তি ‘খ’ তালিকার তফসিল বাতিল করে গত ২০ নভেম্বর পরিপত্র জারি করে সরকার। যুগান্তকারী এ সিদ্ধান্তের ফলে ‘খ’ তালিকাভুক্ত ৬১ জেলার ছয় লাখ ২০ হাজার একর জমির বিদ্যমান মালিকরা স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেন। নানামুখী জটিলতায় নিপতিত হয় ভূমি খাত। অর্পিত সম্পত্তি প্রত্যর্পণ ট্রাইব্যুনাল গঠনের পর সেখানে মামলা করতে গিয়ে প্রায় দেড় কোটি মানুষ প্রত্যক্ষভাবে জমি-সংক্রান্ত ঝামেলায় জড়িয়ে পড়েন। পরোক্ষভাবে জড়িয়ে পড়েন প্রায় আড়াই কোটি মানুষ।
অন্যদিকে মামলাজট সামাল দিতে হিমশিম খেতে হয় ৬১ জেলায় স্থাপিত অর্পিত সম্পত্তি প্রত্যর্পণ ট্রাইব্যুনালগুলোকে। যুগ্ম জেলা জজদের নিয়মিত কার্যভারের সঙ্গে অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসেবে দেওয়া হয় অর্পিত সম্পত্তি প্রত্যর্পণ মামলার বিচার কার্যক্রম পরিচালনার। অর্পিত সম্পত্তি মামলার শুনানি করতে গিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয় অন্যান্য বিচার কার্যক্রম। হ্রাস পায় দেওয়ানি ও ফৌজদারি মামলার  নিষ্পত্তির হার। অন্য বিচার কার্যক্রম পরিচালনায় বিরূপ প্রভাব ফেলায় বিচারকরাও সন্তুষ্টচিত্তে কাজ করতে পারছিলেন না অর্পিত সম্পত্তির  মামলা নিয়ে।
এ ছাড়া ক্ষতিগ্রস্ত ভুক্তভোগী এমনকি সংখ্যালঘুরাও ‘খ’ তফসিল বাতিলের দাবিতে আন্দোলনে নামে। এ প্রেক্ষাপটে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ নির্দেশে ‘খ’ তফসিল বাতিল আইন পাস করে আইন মন্ত্রণালয়। পরে সংশোধিত আইনের ভিত্তিতে ভূমি মন্ত্রণালয় পরিপত্র জারি করে। এর ফলে জটিল অবস্থায় নিপতিত সকল পক্ষই স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেন।
গত ২০ নভেম্বর জারীকৃত পরিপত্রে বলা হয়, ‘‘২৮ক। ‘খ’ তফসিল বিলুপ্তি, ইত্যাদি সম্পর্কিত বিশেষ বিধান। (১) অর্পিত সম্পত্তি প্রত্যর্পণ (দ্বিতীয় সংশোধন) আইন, ২০১৩ কার্যকর হইবার সঙ্গে সঙ্গে অর্পিত সম্পত্তি সম্পর্কিত ‘খ’ তফসিল বাতিল হইবে এবং উহা এমনভাবে বাতিল হইবে যেন, উক্ত তফসিলভুক্ত সম্পত্তি কখনোই অর্পিত সম্পত্তির তালিকাভুক্ত হয় নাই।’’
পরিপত্রে বলা হয়, ‘২। উপরিউক্ত আইনের বিধান মোতাবেক অর্পিত সম্পত্তি সম্পর্কিত বাতিলকৃত ‘খ’ তফসিলভুক্ত সম্পত্তির বিষয়ে জনস্বার্থে দ্রুত পরবর্তী আইনানুগ কার্যক্রম গ্রহণের জন্য অনুরোধ করা হলো।’
পরিপত্রে পরিষ্কার উল্লেখ করা হলেও নানা অজুহাতে ‘খ’ তফসিলভুক্ত জমির নামজারিতে টালবাহানা করছে এসি ল্যান্ড অফিস। বিষয়টি স্বীকারও করা হয় ভূমি মন্ত্রণালয়ের একটি তাগিদপত্রে।
ভূমি মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব (আইন) ইব্রাহিম হোসেন খান জেলা প্রশাসন বরাবর তাগিদপত্রে বলা হয়, ‘পর পর দুটি পরিপত্র জারি করে তা বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসন, এসি ল্যান্ডসহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দফতরে পাঠানো হলেও মাঠপর্যায়ে যথাযথভাবে তার কার্যক্রম গ্রহণ করা হচ্ছে না। কোনো কোনো ক্ষেত্রে বাতিলকৃত ‘খ’ তালিকাভুক্ত জমির মালিকরা অযথা হয়রানির শিকার হচ্ছেন।’
তাগিদপত্রে ‘খ’ তালিকাভুক্ত সম্পত্তির বিষয়ে মন্ত্রণালয় থেকে জারি করা পরিপত্রের আলোকে প্রকৃত ভূমির মালিকরা যাতে দ্রুত সুফল পান এবং কোনোক্রমেই তারা যেন অহেতুক হয়রানির শিকার না হন, সে ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের লক্ষ্যে জেলা প্রশাসককে অনুরোধ করা হয়। একই সঙ্গে এসি ল্যান্ডদের বিশেষ সভার মাধ্যমে বিষয়টি নিষ্পত্তি করার জন্য প্রয়োজনীয় নির্দেশনা ও তা তদারকির জন্য জেলা প্রশাসকদের নির্দেশ দেওয়া হয়। গত ১ জানুয়ারি মন্ত্রণালয় থেকে চিঠি পাঠানোর পর গত ১৩ জানুয়ারি জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এসি ল্যান্ডদের নিয়ে একটি বিশেষ সভার আহ্বান করা হলেও অনিবার্য কারণবশত তা বাতিল করা হয়।
নারায়ণগঞ্জ সদর এসি ল্যান্ড অফিসের ভুক্তভোগী আবদুল ওয়াদুদ অভিযোগ করেন, তিনি অর্পিত সম্পত্তি প্রত্যর্পণ তালিকা থেকে ‘খ’ তফসিল বাতিলের গেজেট ও সমুদয় কাগজপত্র নিয়ে এলেও তার নামজারি হবে না মর্মে ফিরিয়ে দেওয়া হয়।
মুন্সীগঞ্জের আক্তার হোসেনও নামজারি করতে গিয়ে ব্যর্থ হয়ে ফিরে আসেন। তাকে পরিপত্র হাতে না পাওয়াসহ বিভিন্ন অজুহাতে ফিরিয়ে দেওয়া হয়।
গাজীপুরের সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘খ’ তফসিল বাতিলের প্রজ্ঞাপনকে এসি ল্যান্ড অফিস পাত্তাই দিচ্ছে না।
এদিকে ভূমি মন্ত্রণালয়ের একাধিক সূত্র জানায়, মূলত ‘খ’ তফসিল বাতিলের বিষয়টি মেনে নিতে পারছে না ভূমি বিভাগের জেলা প্রশাসন ও কর্মকর্তা-কর্মচারীর সমন্বয়ে গড়ে ওঠা চক্র। জটিলতা জিইয়ে রেখে ভুক্তভোগীদের ‘সোনার হাঁস’ হিসেবে বাঁচিয়ে রেখে চক্রটি খোলা রাখতে চায় উপরি আয়ের পথ। এ কারণেই অনেকটা ধৃষ্টতার সঙ্গেই নামজারির ক্ষেত্রে গড়িমসি করছে।
তবে বিষয়টি অস্বীকার করে ঢাকার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আবুল ফজল মীর বলেন, ‘নামজারিতে আমাদের কোনো আপত্তি বা বাধা নেই। হয়রানির তো প্রশ্নই ওঠে না। তবে ‘খ’ তফসিল বাতিল সংক্রান্ত কোনো পরিপত্র আমাদের হাতে পৌঁছায়নি। তা ছাড়া ‘খ’ তফসিলভুক্ত যেসব জমিতে সরকারি স্বার্থ রয়েছে, সেগুলো যাচাই-বাছাই না করে নামজারি করা যাচ্ছে না।’
আইনজ্ঞ ব্যারিস্টার আকবর আমীন বাবুল এ বিষয়ে বলেন, সরকার কোনো পরিপত্র জারি করলে তা সংশ্লিষ্ট দফতরসহ সব নাগরিকই অনুসরণ করতে বাধ্য। যদি জেলা প্রশাসন ‘খ’ তফসিল বাতিল সংক্রান্ত পরিপত্র অনুসরণ না করেন তাহলে তিনি অন্যায় করছেন। এ বিষয়ে  উচ্চ আদালতে প্রতিকার চাওয়া যেতে পারে।
তবে কোনো ধরনের হয়রানির কথা অস্বীকার করে ভূমি সচিব মোখলেছুর রহমান অর্থনীতি প্রতিদিনকে বলেন, ‘খ’ তালিকা বাতিল এবং পরবর্তী করণীয় সম্পর্কে দুটি পরিপত্র জারি করা হয়েছে। এরপর আর কোনো নির্দেশনার প্রয়োজন নেই। কোনো ভুক্তভোগী প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট দাখিল করলেই প্রজ্ঞাপনের আলোকে এসি ল্যান্ড অফিস নাম জারি করতে বাধ্য। এখানে কোনোর ধরনের ব্যাখ্যাই কার্যকর নয়। সবকিছুই পরিপত্রে রয়েছে। তিনি বলেন, পরিপত্রের আলোকে বিভিন্ন জেলায় নামজারি হচ্ছে। হয়রানির অভিযোগ অমূলক বলেও মন্তব্য করেন তিনি। -অর্থনীতি প্রতিদিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ