• শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ০৬:১৬ অপরাহ্ন |

এমপি হচ্ছেন এরশাদ পরিবারের তিন নারী

63436_1সিসি নিউজ: নানা নাটকীয়তার মধ্য দিয়ে দশম সংসদে স্ত্রী রওশন এরশাদসহ নিজের জায়গা পোক্ত করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। এবার নিজের পরিবারের নারীদের সংরক্ষিত আসনের এমপি বানানোর সুযোগ হাতছাড়া করতে চান না তিনি।

জানা গেছে, রাজনৈতিক কোনো অভিজ্ঞতা না থাকলেও পরিবারের ওই নারী সদস্যদের নিয়েই তিনি সংসদে যাওয়ার সব পরিকল্পনা চূড়ান্ত করেছেন।

সংসদের ৫০টি সংরক্ষিত নারী আসনের মধ্যে জাতীয় পার্টির ভাগে পড়েছে ৫টি। এই ৫টির মধ্যে ৩টি আসনই পরিবারের মধ্যে রাখতে চান এরশাদ।

পরিবারের সদস্যদের মধ্যে রয়েছেন পার্টির চেয়ারম্যান এরশাদের আপন বোন, রওশন এরশাদের বোন ও এরশাদের ভাই জিএম কাদেরের স্ত্রী। বাকি দুজনের মধ্যে একজন বর্তমানে মহিলা পার্টির কেন্দ্রীয় দায়িত্বে থাকা সাধারণ সম্পাদক ও একজন সাবেক নারী এমপি। ব্যাপারটি একেবারেই চূড়ান্ত করা হয়েছে। দুই একদিনের মধ্যেই বিষয়টি পার্টির পক্ষ থেকে প্রকাশ করা হবে বলে পার্টির একটি নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে।

পার্টি সূত্রে জানা গেছে, দশম জাতীয় সংসদের আগে মহাজোটের অন্যতম শরীক দল হিসেবে আওয়ামী লীগের কাছ থেকে নানা সুযোগ সুবিধা পেলেও এবার প্রধান বিরোধী দল হিসেবে জাপাকে দেয়া হচ্ছে ৫টি সংরক্ষিত আসন। সংরক্ষিত নারী এমপি হওয়ার জন্য পার্টির পক্ষ থেকে নোটিশ করে নারী নেত্রীদের বিষয়টি জানানো হয়।

এরপর গত ১৭ থেকে ১৯ জানুয়ারি সংরক্ষিত নারী আসনে প্রার্থী হওয়ার জন্য ৯৬ জন নারী নেত্রী মনোনয়নপত্র কেনেন। তাদের প্রত্যেকের কাছ থেকে ৫ হাজার টাকা নেয়া হয়। এতে পার্টির তহবিলে জমা পড়ে ৪ লাখ ৮০ হাজার টাকা।

মনোনয়ন বিক্রির পর পদ প্রত্যাশীদের ২০ জানুয়ারি বনানীর পার্টি কার্যালয়ে সাক্ষাৎকারের জন্য ডাকা হয়। কিন্ত হঠাৎ করেই সেই কর্মসূচি বাতিল করা হয়। এতে ক্ষুদ্ধ হয়ে ওঠেন মহিলা পার্টির মনোনয়ন প্রত্যাশীরা।

তাদের অনেকে সেইদিন বিভিন্ন মিডিয়ার সামনে অভিযোগ করেন, পার্টির পক্ষ থেকে কোটি টাকার বাণিজ্য করা হচ্ছে।

এদিকে আত্মীয়-স্বজনদের দিয়ে গোপনে মনোনয়নপত্র কেনেন এরশাদের বোন মেরিনা রহমান, রওশন এরশাদের বোন মমতা ওয়াহাব ও জিএম কাদেরের স্ত্রী শেরিফা কাদের।

এরশাদ পরিবারের নারীদেরই এমপি করা হচ্ছে, এ খবর ছড়িয়ে পড়লে কেউ মনোনয়ন কিনবেন না, তাই আগে বিষয়টি প্রকাশ করা হয়নি। ফলে গোপনেই থেকে যায় পরিবারের সদস্যদের মনোনয়ন কেনার বিষয়টি।

এরশাদ পরিবারের যে তিন নারীকে সংরক্ষিত আসনের এমপি করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে, তারা কেউই কোনোদিন পার্টির কোনো কর্মসূচিতে ছিলেন না। দেখা যায়নি কোনো সভা ও সেমিনারেও। তবু কেন তাদের এই পদে নিয়ে আসা হচ্ছে তা পার্টির অনেক নেতাই বুঝতে পারছেন না।

বাকি দুটি আসনের জন্য পার্টির নেত্রী চট্টগ্রামের মেহজাবিন মোরশেদ, কুড়িগ্রামের সাবেক নারী এমপি নুরে হাসনাত চৌধুরী ও জাতীয় মহিলা পার্টির কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদিকা নাজমা আক্তার তালিকায় আছেন। এদের মধ্যে মেহজাবিন মোরশেদ বাদ পড়তে পারেন বলে জানা গেছে।

পরিবারের সদস্যদের নারী এমপি পদে ‍গুরুত্ব দেয়ায় পার্টির অনেক নেতাই ক্ষুদ্ধ। তারা বিষয়টি নিয়ে সেভাবে কোনোকিছুই বলতে পারছেন না পার্টির চেয়ারম্যানকে। সবার একটাই আশঙ্কা, কিছু বললেই বহিষ্কার বা পদ থেকে সরিয়ে দেয়া হতে পারে।

জানা গেছে, নির্বাচনের আগে থেকেই সব সিদ্ধান্ত পাটির চেয়ারম্যান এরশাদ একই নিচ্ছেন। কারো মতামতকেই তিনি প্রাধান্য দিচ্ছেন না। নারী আসনে পরিবারের সদস্যদের নেয়ার বিষয়টিও তারই সিদ্ধান্ত। পার্টির স্বার্থে অনেক নেতাই তা প্রকাশ করছেন না। বিষয়টি পবিবারতন্ত্র বলেও পার্টির অনেক নেতা মন্তব্য করেছেন।

নাম প্রকাশ না করা শর্তে পার্টির এক ভাইস চেয়ারম্যান জানান, সংরক্ষিত নারী আসনে এরশাদের পরিবার থেকেই তিন জনকে নির্বাচিত করার বিষয়টি আগে থেকেই চূড়ান্ত করা ছিল। শুধু বাকি দুটি আসনের জন্য মনোনয়ন বিক্রি করা হয়।

তিনি আরও বলেন, চেয়ারম্যান মূলত এটাকে নিয়ে একটা ব্যবসা করছেন, যাতে পার্টির তহবিলে টাকা আসে। বিষয়টি পার্টির উচ্চ পর্যায়ের অনেকে জানলেও তারা চেয়ারম্যানের আনুগত্যের কারণে প্রকাশ করেননি।

তবে সংরক্ষিত আসন নিয়েও পার্টির ভেতরে একটা খেলা চলছে। বিষয়টি প্রকাশ পেলেই তা খোলাশা হয়ে যাবে বলে পার্টির অনেকে মনে করছেন।

তবে পার্টির অনেক নেতা দাবি করেছেন, সংরক্ষিত আসনে জিএম কাদেরের স্ত্রীর বিষয়টি চূড়ান্ত। বাকি দুজনকে নিয়ে কোনো কথা হয়নি। এ বিষয়ে পার্টির চেয়ারম্যানই ভালো জানেন।

এ ব্যাপারে পার্টির মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিষয়টি জানেন না বলে সাফ জানিয়ে দেন।

উৎসঃ   বাংলামেইল২৪


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ