• মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ০৬:৫০ অপরাহ্ন |

প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানালেন এরশাদ

Arsadঢাকা: প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত হিসেবে মনোনীত করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতঅজ্ঞতা জানিয়েছেন জাতীয়পার্টির চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদ। অতীতের গ্লানি ভুলে জাতির স্বার্থে এবং দেশের ভাবমূর্তি সমুন্নত রাখার জন্য প্রধানমন্ত্রীর সহযাত্রীরূপে কাজ করার অঙ্গীরকারও করেছেন তিনি।

বৃহস্পতিবার এরশাদ তার প্রেস এন্ড পলিটিক্যাল সেক্রেটারি সুনীল শুভরায় স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

বিবৃতিতে এরশাদ বলেন, বিগত দিনের তিক্ত অভিজ্ঞতাকে মুছে ফেলে সম্ভাবনাময় বাংলাদেশকে গড়ে তোলার লক্ষ্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমার ওপর একটি গুরুদায়িত্ব অর্পণ করেছেন। অতীতের গ্লানি ভুলে গৌরবময় অধ্যায়কে পথ ও পাথেয় হিসেবে ধরে নিয়ে আগামী দিনের পথ চলা শুরু করতে হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সেই চলার পথে আমাকে যে সহযাত্রীরূপে সঙ্গে নিয়েছেন, আমি তার মর্যাদা রক্ষা করতে সদা সচেষ্ট থাকবো। জাতির স্বার্থে এবং দেশের ভাবমূর্তি সমুন্নত রাখার জন্য আমি নিবেদিতভাবে কাজ করে যাবার চেষ্টা করবো।

তিনি বলেন, আমি প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত হয়ে নিজে কোনো ব্যক্তিগত সুযোগ-সুবিধা চাচ্ছি না। আমার সরকারি বাড়ি-গাড়িরও প্রয়োজন নেই। একজন সংসদ সদস্য হিসেবে যেটুকু সুযোগ-সুবিধা আমার প্রাপ্য সেটুকু ভোগ করেই আমি বিশেষ দূতের দায়িত্ব পালন করে যেতে চাই। আমি বাংলাদেশের মানুষের গণতান্ত্রিক মন-মানসিকতা, উদার ধর্মীয় মনোভাব বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরতে চাই।

তিনি আরো বলেন, আমি সৈনিক হিসেবে দেশের স্বার্থে সবসময় যুদ্ধ করতে প্রস্তুত ছিলাম। এখনও দেশের অর্থনৈতিক ও জনগণের বৃহত্তর স্বার্থে আমার দায়িত্ব পালন করে যেতে পারবো। আমি জীবনের শেষ প্রান্তে এসে আমার চাওয়া-পাওয়ার কিছু নেই। দেশ-জাতির কল্যাণ এবং মঙ্গল সাধনই আমার জীবনের একান্ত কাম্য ও লক্ষ্য। নিশ্চয় আল্লাহ আমাদের সহায় হবেন।

প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত বলেন, আমি বিশ্ববাসীকে জানাতে চাই, বাংলাদেশ একটি জঙ্গিবাদমুক্ত, সাম্প্রদায়িকতামুক্ত এবং রাজনৈতিক হানাহানিমুক্ত একটি দেশ। আমি মনে করি, বাংলাদেশকে একটি আধুনিক মুসলিম প্রধান গণতান্ত্রিক এবং শান্তি প্রিয়, নিরাপদ ও সহনশীল জাতিগোষ্ঠীর দেশ হিসেবে বিশ্ববাসীর কাছে পরিচিত করতে পারলে আমাদের জনশক্তি রপ্তানি বাড়বে। বাড়বে এফডিআই এবং দেশের অথনৈতিক প্রবৃদ্ধি অত্যন্ত দ্রুত বৃদ্ধি পাবে।

মধ্যপ্রাচ্যে জনশক্তি রপ্তানির বাজার প্রসারে এরশাদ তাঁর ব্যক্তিগত সম্পর্ককে কাজে লাগাবেন বলেও জানিয়েছেন তিনি।

এ বিষয়ে তিনি বলেন, বাংলাদেশের অবস্থান নেক্সট-ইলাভেন থেকে ফ্রন্টিয়ার-ফাইভ এ উন্নীত হয়েছে। তৈরি পোশাক রপ্তানির হার বৃদ্ধি পেয়েছে। শান্তি মিশনে আমাদের সেনাবাহিনীর অংশগ্রহণ বেড়েছে। খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা এসেছে। খাদ্য রপ্তানিও হচ্ছে। মানুষের মাথাপিছু আয় বেড়েছে। দারিদ্র্যের হার কমেছে। এখন কোনো মানুষকে আর না খেয়ে থাকতে হয় না। শিক্ষার হার ও মান বেড়েছে। এসব অগ্রসরমাণ বিষয়গুলো জাতীয়ভাবে যেমন প্রচারে আসছে না, তেমনি বহির্বিশ্বও জানতে পারছে না। অপপ্রচার ও সংঘাতের কারণে বিদেশি বিনিয়োগকারীরা বাংলাদেশের প্রতি আস্থা হারিয়েছে। আস্থা ফিরিয়ে আনতে তিনি কাজ করবেন বলে জানিয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ