• শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ০৭:৪৮ পূর্বাহ্ন |

বেড়ালের গলায় ঘণ্টা বাঁধবে কে

হাসান হাফিজ:

 Hasanদিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল অভিনয় কায়দায় তার দাবি আদায় করলেন। আম আদমি পার্টির নেতা তিনি। অরবিন্দসহ ছয় মন্ত্রী ও তার দলের ২০০ সমর্থক রাজপথে রাত কাটিয়েছেন। কনকনে ঠাণ্ডা সহ্য করে দাবি আদায় করেছেন। হোক না আংশিক। দায়িত্বে অবহেলা করেছিল ছয় পুলিশ কর্মকর্তা। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানান কেজরিওয়াল। কেন্দ্রীয় সরকার তা গ্রাহ্য করেনি। প্রতিবাদে এই অবস্থান কর্মসূচি তথা ধরণা। দিল্লির ডেপুটি গভর্নর দুই পুলিশকে ছুটিতে পাঠালেন। এভাবেই গোঁফ নামাল কেন্দ্র।

কেজরিওয়াল চমকের ডিটেইলসে যাব না। এই কলামের বিষয় আশয় কঠোরভাবে আমাদের নিজ দেশকেন্দ্রিক।

এবার মূল চিত্রনাট্যে নজর দেব আমরা। বঙ্গীয় চমকের যে হোতার কাণ্ডকীর্তি বয়ান করতে চলেছি, তেনার নাম রাসেল। ঠাঁই হয়েছে শ্রীঘরে। পুলিশের হাওলায় গেলে একটা সুবিধা অন্তত আছে। হোক না তা কষ্টকর, হোক না তা ন্যূনতম। থাকন-খাওনের ভার পুলিশ ভাইদের কাঁধে বর্তায়। ধরা খাওয়া রাসেল সাব কী এমন সুকর্ম করেছিলেন? যার জন্যে হাতকড়া পরলো তার দস্ত মোবারকে। পদযুগলে ডাণ্ডাবেড়ি পরতে হয়েছে কিনা, সে তথ্য আমাদের জানা নাই। জানা যদি থাকত, চেপে যেতাম।

একটু সিনেমাটিক করে তুলি বয়ানের সূচনা অংশ। করার এজাজত কী দিচ্ছেন সুধী পাঠক? আচ্ছা, আচ্ছা, দিলেন। ধন্যবাদ। শুকরিয়া। পাত্র মিলিটারির লোক। দেখতে শুনতে স্মার্ট। বাপ-মা জীবিত নেই। সংসারে ঝুট ঝামেলা নাই। পাত্র এখন ছুটিতে রয়েছেন। ছুটি শেষ হবো হবো করছে। এই তো মাত্তর দুই দিন পর তিনি জয়েন দেবেন চাটগাঁর সেনা ছাউনিতে। লোভনীয় পাত্তর। বিয়ে সুসম্পন্ন। কবুল টবুল বলার পর্ব সমাপ্ত। লেনাদেনা হলো দেড় লাখ টাকা। বাসর সাজানো হয়েছে কনের বাড়িতেই। বর বাবাজি মসজিদে গেছেন। নামাজ আদায় করবেন। হঠাত্ই বিনা মেঘে বজ্রপাত। কাজী সাহেব ছুটে এলেন হন্তদন্ত হয়ে। বর নাকি ভুয়া সেনা সদস্য। টাকা-পয়সা ট্যাঁকে গুঁজেই ভেগে পড়েছে। এই জামাই প্রবরের নামই রাসেল। যার কথা উল্লেখ করা হয়েছে আগে।
নাটকের সবে শুরু। ঘটনা আরো আরো আছে। গ্রামবাসী ধাওয়া দিয়েছে নতুন জামাইকে। ধাওয়া বৃথা যায়নি। তারা বরকে যে ধর ধর বলে শোর তুলেছিল—সেই ঘোর কেটে গেছে। বরের পায়ে জোর তেমনটা ছিল না বলে অুনমান করি। দৌড়টা জুতমত হতে পারেনি তাই। বেমক্কা ধরা খেতে হলো। শুধুই কী ধরা? ইনস্ট্যান্ট ধোলাইও খেতে হয়েছে। এই খাদ্য (গণপিটুনি) বিশেষ উপাদেয় নয়। এড়াতে চাইলেও এড়ানো যায় না। ‘যদি থাকে নসিবে/আপনা আপনি আসিবে’।

ঘটনা চাউর হয়ে গেল দ্রুত। সেল ফোনের যুগ চলছে বাংলার মাটিতে। বাংলাবান্ধা থেকে ছেঁড়াদ্বীপ পর্যন্ত নেটওয়ার্ক বহু যত্নে বিস্তৃত। ঘটনা জানাজানির পরও নাটকীয়তা আছে। নাটকের ছুটি নাই। ওই বরসমেত প্রতারক চক্রের বিরুদ্ধে মামলা-মোকদ্দমা হয়েছে। ১৩ দিনে ৫ নারী প্রতারণামূলক বিবাহের অভিযোগ এনেছেন। মানিকগঞ্জ আদালতে ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে ‘বর’ এত্তগুলান বিয়ে সম্পর্কে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। দিতেই হবে। হুঁ হুঁ ভাইধন, ঠেলার নাম বাবাজি।

‘বর’ জাহিদুল ইসলাম হাসান ওরফে রাসেলের নিবাস পাবনার সুজানগর উপজেলার বাদাই গ্রামে। মানিকগঞ্জ পৌর এলাকার বাসিন্দা এক পিতা ছিলেন কন্যাদায়গ্রস্ত। প্রতিবেশী ঘটক শরীফ এক বিয়ের প্রস্তাব নিয়ে আসে। পাত্র সেনাবাহিনীতে চাকরি করে। এটসেটরা এটসেটরা। ঘটক সাহেব পাত্রের ছবি, মিলিটারিতে তার চাকরির প্রমাণপত্র দেখাল। গার্জেনরা রাজি থাকলে বিয়ে দিতে হবে পরদিনই। এমন পাত্র অতি লোভনীয় (রাষ্ট্র ক্ষমতার মতো—যে জন্য ৫ জানুয়ারির মতো ভুয়া নির্বাচন করা লাগে লাজ-শরমের মাথা খেয়ে)। হাতে চন্দ্র পাওয়ার শামিল। এই পাত্তর হাতছাড়া করে কোন্ বেকুবে? লোভ সামলানো যায় না রে ভাই, যায় না। ঘটকের প্রস্তাব মোতাবেক দেড় লাখ টাকা জামাইকে দিতে সম্মত হলেন মেয়ের বাপ। যৌতুকের দেড় লাখ টাকা জামাইকে দেয়াও হলো যথারীতি। তারপর কিনা এই কাণ্ডমাণ্ড। ছ্যা ছ্যা ছ্যা।
জামাই আদর জোটেনি রাসেলের ভাগ্যে। চড়-থাপ্পড়, কিল-ঘুষি জুটেছে আচমকাই—অথচ খাওয়ার কথা ছিল কিনা পোলাও-কোরমা কোপ্তা বোরহানি, মিষ্টান্ন। খেতে হলো ডিজিটাল রামধোলাই। ভাগ্যের লিখন না যায় খণ্ডন। প্রতারিত কনের ভাই মামলা ঠুকে দিলেন। আসামি শুধু জামাই বাবাজি একলা নন। কাজী সাব, ঘটক সাব ও তাদের সাঙ্গপাঙ্গরাও রয়েছেন এই তালিকায়। কনের ভাই হাটে হাঁড়ি ভেঙে দিয়েছেন। জানিয়েছেন, কাজী ব্যাটাও এই চক্রের লোক। টাকা-পয়সার ভাগ-বাটোয়ারা নিয়ে ঘাপলা হয়েছে। মতবিরোধের কারণেই ঘটনা ফাঁস করেছে কাজী। বলেছি আগে, ঘটনা দাবানলের মতো ছড়িয়ে পড়েছে চৌদিকে। এই চক্রের গাড্ডায় পড়ে ঘোল খাওয়া আরো কতিপয় পাট্টি এসে জমা হয়েছে থানায়। আটক দু’জনকে তারা যথারীতি শনাক্ত করেছেন। অভিযোগাকারীদের একজন মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার বাসিন্দা। তার কন্যা কলেজ ছাত্রী। গত বছর অক্টোবর মাসে এক লাখ টাকা যৌতুকে ওর সঙ্গে বিয়ে হয় রাসেলের। বিয়ের সময় রাসেলকে টাকা দেয়া হয়। বিয়ের ক’দিন পর সে বলে কর্মস্থলে যাবে। এভাবে উধাও হয়। খোঁজ-খবর নিয়ে জানা যায়—সে বিশিষ্ট টাউট। প্রতারণা করেছে। মামলা হয়।

একই কায়দায় সদর উপজেলার আরেকটি মেয়েকে গত বছর নবেম্বরে বিয়ে করে রাসেল (ব্যাপার কী, মাসে মাসে বিয়ে করা লাগে নাকি তার?)। সেখানে যৌতুক নেয় দেড় লাখ টাকা। গা ঢাকা দেয় টাকা নিয়ে। গত বছরই ডিসেম্বরে ঘিওর উপজেলার আরেক কলেজছাত্রী শিকার হয় তার প্রতারণার। সেখান থেকে লাখ তিনেক টাকা হাতিয়ে নেয় রাসেল ও তার চে চে…চেলাচামুণ্ডারা। কনের চাচা থানায় মামলা করেছেন জামাই বাবাজির বিরুদ্ধে। বরিশালে এক মেয়েকে বিয়ে করে রাসেল। সেখানকার মুনাফা দুই লক্ষ তঙ্কা। ঘটনা ফাঁস হয়ে গেলে ওই পাট্টিও মামলা ঠুকে দিয়েছে।

পঞ্চম বিবাহে রাসেল কাণ্ডের সমাপ্তি ঘটবে কিনা, সেটা আগাম বলা যায় না। যেমন বলা যায় না— প্রহসন মার্কা নির্বাচনের ডুগডুগি বাজিয়ে বর্তমান সরকার পঞ্চ বর্ষ আয়ু প্রাপ্ত হবে কিনা। ছ্যাড়াবেড়া বিরোধী দল (যারা একই সঙ্গে সরকারেরও অংশ) নিয়ে গণতন্ত্র কুঁই কুঁই করছে। জাতীয় পার্টি টামাকুও খাবে ডুডুও খাবে। গাছেরটা খেতে আর তলারটা খেতে যে কত্ত মজা, তা জানেন মহানটরাজ পতিত স্বৈরাচার হো. মো. এরশাদ। গণতন্ত্র ধরা খেয়েছে। বেঘোরে যে ‘কট’ হয়েছে, তা বড়ই থট প্রভোকিং ব্যাপার। গণতন্ত্রকে দলামোচড়া করে জাতির সঙ্গে এই যে প্রতারণা করা হলো, তার বিচার করে ক্যাঠা? হু উইল বেল দ্য ক্যাট?
লেখক : কবি ও সাংবাদিক
(নয়া দিগন্ত, ২৩/০১/২০১৪)


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ