• সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০১:৫৮ অপরাহ্ন |

শিক্ষক পেটানোয় ছাত্রলীগ নেতা বহিষ্কার

Univerঢাকা: শিক্ষক পেটানোয় ছাত্রলীগের এক নেতাকে বহিষ্কার করেছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। তাঁর বিরুদ্ধে মামলাও করবে জাবি প্রশাসন।

ক্ষমতাসীন দলের ছাত্র সংগঠনটির এই নেতার নাম মামুন খান। তিনি নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা বিভাগের ছাত্র এবং বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের গ্রন্থনা এবং প্রকাশনা সম্পাদক। এর আগে বিভাগে তালা ঝুলিয়েছিলেন মামুন। তাঁর বিরুদ্ধে শিক্ষকদের কর্মসূচিতে হামলার অভিযোগও আছে।

জাবি’র এই ছাত্রলীগ নেতা বৃহস্পতিবার বিকেলে বিভাগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সহযোগী অধ্যাপক গোলাম মইনুদ্দিনকে মারধর করেন। রাতে উপাচার্য অধ্যাপক এম এ মতিনের সভাপতিত্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের শৃঙ্খলা কমিটির বৈঠকে তাঁকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়।

কেন স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হবে না, ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে তার কারণ দর্শাতে ওই ছাত্রলীগ নেতাকে নোটিস দেওয়া হবে। এছাড়া তার বিরুদ্ধে মামলা করবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। বৈঠকে এ দু’টি সিদ্ধান্তও হয়েছে বলে জানিয়েছেন শৃঙ্খলা কমিটির সদস্য বাংলা বিভাগের শিক্ষক সাজ্জাদ সুমন।

বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান ভবনের নিচতলায় অধ্যাপক গোলাম মইনুদ্দিনের ওপর চড়াও হন মামুন। জানা যায়, যোগ্যতা না থাকায় ওই ছাত্রলীগ নেতাকে পরীক্ষায় অংশগ্রহণের অনুমতি দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন মইনুদ্দিন। এ নিয়ে শিক্ষকের সঙ্গে বাগবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন মামুন। একপর্যায়ে তিনি ওই শিক্ষককে মারধর করেন।

আহত শিক্ষক মঈনুদ্দিন তাৎক্ষণিকভাবে প্রক্টরের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন। ওই সময় তাঁর কপালে ক্ষতচিহ্ন দেখা গেছে বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শী ছাত্র-শিক্ষকেরা।

ঘটনা শুনে শিক্ষক সমিতির সভাপতি অজিত কুমার মজুমদারের নেতৃত্বে শতাধিক শিক্ষক অনুষদের সামনে জড়ো হয়ে প্রতিবাদ জানান। তাঁরা জানান, মামুনের নামে এর আগেও বেশ কিছু অভিযোগ আছে। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। তাঁরা এ ঘটনার দ্রুত বিচারের দাবি জানান।

মামুনের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মাহমুদুর রহমান। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, দোষী প্রমাণিত হলে মামুন খানের বিরুদ্ধে প্রশাসন যে ব্যবস্থা নেবে আমরা তা মেনে নেব। পাশাপাশি সাংগঠনিক ভাবেও ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তবে ঘটনার নায়ক শিক্ষক পেটানোর কথা অস্বীকার করেছেন।  মামুনের দাবি, আমি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছিলাম না। শিক্ষকরা আমাকে নিয়ে অযথা রাজনীতি করছেন।

মামুনের বিরুদ্ধে গত বছরের ৯ অক্টোবর সাবেক উপাচার্য আনোয়ার হোসেনের পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলনকারী শিক্ষকদের ওপর ছাত্রলীগের হামলায় সরাসরি সম্পৃক্ত থাকার অভিযোগ রয়েছে।

এর আগে বিশেষ বিবেচনায় পরীক্ষা দিতে না দেওয়ায় মামুন এবং শাখা ছাত্রলীগের সহসভাপতি মাহমুদ আল জামানের বাধার কারণে গত বছরের ২২ সেপ্টেম্বর দ্বিতীয় সেমিস্টারের একটি পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছিল। এরপর ২৬ সেপ্টেম্বর একই সেমিস্টারের আরেকটি পরীক্ষার দিন বিভাগে তালা ঝুলিয়ে দেন তাঁরা। এরপর ওই সেমিস্টারের সব পরীক্ষা অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত করা হয়। পরীক্ষা কমিটির সভাপতির পদ থেকে পদত্যাগ করেন গোলাম মইনুদ্দিন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ